দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিন

0
342

মানুষের জীবন লইয়া ছিনিমিনি খেলা বা অবহেলা যেন এক ধরনের নৈমিত্তিক ব্যাপার হইয়া দাঁড়াইতেছে। বড় বড় নির্মাণ কাজের ক্ষেত্রে নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলি আদৌ গুরুত্ব প্রদান করেন কিনা সন্দেহ। গত সোমবার গভীর রাতে মগবাজার-মৌচাক-মালিবাগ ফ্লাইওভারের গার্ডার ভাঙিয়া পড়িয়া একজন হতভাগ্য শ্রমিকের মৃত্যু ও অপর দুইজনের গুরুত্বর আহত হইবার ঘটনা ইহাই প্রমাণ করে যে, একশ্রেণির নির্মাতা মানুষের জীবনের থোড়াই পরোয়া করে। রাজধানীতে নির্মাণ কাজে অনুরূপ অবহেলার ঘটনা ইতোপূর্বেও বেশ কয়েকবার ঘটিয়াছে এবং তাহাতে নিরীহ ব্যক্তিদের প্রাণহানিও কম হয় নাই। শুধু রাজধানীতে কেন, বন্দরনগরী চট্টগ্রামেও অনুরূপ এক দুর্ঘটনা বহু মানুষের জীবন কাড়িয়া লইয়াছে। অবশ্য এই ধরনের বৃহত্ নির্মাণ কাজের সময় দুর্ঘটনা ঘটা অস্বাভাবিক নহে; কিন্তু তথাপি দুর্ঘটনা যাহাতে না ঘটে সেইজন্য সর্বোচ্চ সতর্কাবস্থা ও নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করাটা যে জরুরি, এ কথা নিশ্চয়ই কাহাকেও বুঝাইয়া বলার প্রয়োজন পড়ে না। এ ক্ষেত্রে নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের দায়িত্বজ্ঞান ও সঠিক ব্যবস্থাপনার কোনো বিকল্প নাই। যথেষ্ট নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত না করিয়া কংক্রিটের বিশাল বিশাল স্ল্যাব, পিলার গার্ডার ইত্যাদি উপরে উঠানো বা নীচে নামানো যে কতটা ঝুঁকিপূর্ণ, উহা যাহারা না বোঝে তাহাদের দ্বারা এই কাজ করানোই তো রীতিমত অন্যায়! নির্মাণ কার্যে সার্বক্ষণিক সাবধানতা অবলম্বন না করায় নিরীহ শ্রমিক, পথচারী বা যাত্রীসাধারণের প্রাণপ্রদীপ নিভিয়া যাওয়ার আশঙ্কা থাকিয়া যাইতেছে। আর এই অবস্থা নিশ্চয়ই মানিয়া নেওয়া যায় না। তাই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের উচিত, যে বা যাহারা এই জাতীয় অবহেলার জন্য দায়ী, সে বা তাহারা যেন প্রচলিত আইন মোতাবেক সর্বোচ্চ শাস্তি পায় তাহা নিশ্চিত করা।

ক্রেন দিয়া গার্ডার তোলার সময় কিংবা শ্রমিকরা উপর হইতে নীচে নির্মাণ সামগ্রী ফেলার সময় জননিরাপত্তার বিষয়টিকে অনেক সময় মাথায়ই রাখা হয় না। ২০১২ সালে চট্টগ্রামের বহদ্দারহাটে ফ্লাইওভার নির্মাণকালে গার্ডার ভাঙিয়া ১৫ ব্যক্তি মৃত্যুমুখে পতিত হইয়াছিল আর সে স্মৃতি নিশ্চয়ই এখনও সকলকে তাড়িত করিয়া ফিরে। মাত্র কয়েকদিন পূর্বে মগবাজারের ফ্লাইওভারের উপর হইতে লোহার রড পড়িয়া এক মোটরসাইকেল আরোহী মারা যায়। অবস্থাদৃষ্টে মনে হয়, ক্রেন দিয়া গার্ডার তোলার সময় ক্রেনের চেইনের সেই সক্ষমতা আছে কিনা, উহা যাচাই-বাছাই করার প্রয়োজনও কেহ কেহ বোধ করে না। ফলে সমূহ বিপদ সব সময়ই শ্রমিক ও পথচারীদের মাথার উপর ঘোরে। যাহা হউক, মালিবাগে ফ্লাইওভারের গার্ডার ভাঙিয়া যে মর্মান্তিক দুর্ঘটনাটি ঘটিল এবং যাহারা হতাহত হইল, সেই সকল ব্যক্তির পরিবারগুলির জন্য কোনো সান্ত্বনা আছে কি? মোদ্দাকথা, সকল উন্নয়ন কার্যে নিরাপত্তার বিষয়টিকে সর্বাধিক গুরুত্বারোপ করিতে হইবে। এই ক্ষেত্রে কোনো প্রকার গাফিলতি পরিলক্ষিত হইলে দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে অবশ্যই কঠোর হইতে হইবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here