দীর্ঘ ১৫ বছর পর যশোর জেলা ক্রীড়া সংস্থার এজিএম অনুষ্ঠিত

0
135

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ক্রীড়াঙ্গনে রাজতৈকি লোক এসে ভিড় করলে ব্যাঘাত ঘটতে পারে, ক্রীড়াঙ্গন চালাবে ক্রীড়াঙ্গনের লোক। রাজতৈকি লোক রাজনীতিতে সময় বেশি দিলে দেশের উন্নয়ন হবে আর ক্রীড়াঙ্গনের লোক ক্রীড়াঙ্গনে সময় দিলে খেলাধুলার উন্নয়ন হবে। শনিবার যশোর পিটিআই অডিটোরিয়ামে দীর্ঘ ১৫ বছর পর অনুষ্ঠিত জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারন সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য। তিনি বলেন বঙ্গমাতা স্কুল ফুটবল টুর্নামেন্টের মাধ্যম্যে দেশে যথন খেলোয়াড় সৃষ্টির জোয়ার সৃষ্টি হয়েছিলো তখন মহামারি করোনার কারনে থমকে গেছে দেশের ক্রীড়াঙ্গন। একই ভাবে যশোরের খেলাধুলার অতীত ঐতিহ্যেও কথা স্বরন করে তিনি বলেন যশোর জেলা ক্রীড়া সংস্থাকে আবারও দায়িত্ব নিয়ে যশোরের খেলাধুলার অতিত ঐতিহ্যকে ফিরিয়ে এনে ক্রীড়াঙ্গনকে আবারও মুখোরিত করে তুলতে হবে। তিনি বলেন নতুন প্রজন্মকে ক্রীড়ামুখি করতে পারলে তারা মাদক থেকে মুখ ফিরিয়ে নেবে, কারন সমাজ থেকে মাদক দূর করতে হলে অবশ্যয় আমাদের সন্তানদেরকে মাঠে নিতে হবে। সব শেষে তিনি দীর্ঘ ১৫ বছর পর জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারন সভার আয়োজন করায় আয়োজক কমিটিকে ধন্যবাদ জানান। যশোরের জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খানের সভাপতিত্বে এ সময় আরো বক্তব্য প্রদান করেন পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জুয়ারদার। তিনি বলেন আমরা প্রত্যেকে যদি দায়িত্ব নিয়ে নতুন প্রজন্মকে মাদকের ছোবল থেকে উঠিয়ে মাঠে নিয়ে যায় তাহলে আর পুলিশ সদস্যদের মাদকের পেছনে দৌড়াতে হবে না। তিনি বলেন মাদক দূর করার সব থেকে বড় হাতিয়ার খেলোধুলা।
এ সময় জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারন সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা ইয়াকবি কবিরের সাথে মঞ্চে ছিলেন, স্ংস্থ্ার সহ সভাপতি এ জেড এম সালেকন ও মকসেদ সফি, সহ সাধারন সম্পাদক আকসাদ সিদ্দিকী শৈবাল, যুগ্মসম্পাদক এবএিম আখতারুজ্জামান ও শহিদ আহমেদ, কোষাধাক্ষ সোলেল মাসুদ হাসান টিটোসহ সকল সদস্যরা।
সাধারন সভায় প্রশ্ন উত্তরের পর্বে সংস্থার সাধারন সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা ইয়াকবি কবির বলেন আমরা জেলা ক্রীড়া সংস্থার পুকরটি ওপেন ডাকের মাধ্যমে ইজারা দিবো, একই সাথে জেলা ক্রীড়া সংস্থার নিজস্ব একাউন্টে ৮৬ লাখ টাকার এফডিআর আছে বলেও তিনি জানান।
এর আগে ওপেন সেশনে বক্তব্য প্রদান করেন যশোর প্রেসক্লাবের সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুন, বিকেএসপির সাবেক হকির চিপ কোচ কাওসার আলী, ফুটবল খেলোয়াড় হালিম রেজা, সাংবাদিক আবুল বাশার মুকুল, আসাদুজ্জামান মিঠুসহ আরো অনেকে।
তার আগে ২০০৬ সাল থেকে এখন পর্যন্ত যত খেলোয়াড় ও ক্রীড়া সংগঠক মরা গেছেন তাদের রুহের মাগফিরাত কামনা করে ১ মিনিট নিরাবতা পালন করা হয়।