দীর্ঘ ৩ যুগ পর আবারও যশোর এম এম কলেজে ছাত্র সংসদ নির্বাচনের হাওয়া

0
2101

ডি এইচ দিলসান : দীর্ঘ ৩ যুগ বন্ধ থাকার পর ছাত্র সংসদ নির্বাচন নিয়ে চাঙ্গা হয়েছে যশোর এম এম কলেজের শিক্ষার্থীরা। ১৯৮১ সালে সর্বশেষ ছাত্র সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এর পর আর কোন নির্বাচন হয়নি বলে জানা যায়। তবে আশার কথা হলো কলেজের ছাত্র এবং শিক্ষকদের সহযোগিতায় খুব শিঘ্রই হতে যাচ্ছে ছাত্র সংসদ নির্বাচন।

জানা যায় ১৯৮১ সর্বশেষ যশোর এম এম কলেজের ছাত্র সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠান হয়, সে সময় ভিপি নির্বাচিত হন আব্দুল কাদের এবং প্রভিপি নির্বাচিত হন জাহাঙ্গীর হোসেন, এবং জি এস নির্বাচিত হন মাহাবুব আলম। এর আগে ১৯৭২সালে আহবায়ক নির্বাচিত হন মতিয়ার রহমান, ১৯৭৩ সালে ভিপি নির্বাচিত হন আব্দুস সামাদ প্র ভিপি নির্বাচিত হন মকসেদ আলী এবং জি এস নির্বাচিত হন আব্দুল মান্নান। ১৯৭৪ সালে ভিপি-মহিউদ্দিন আহম্মদ মহিন, প্রভিপি-আবুল কাশেম এবং জি এস আবু সাঈদ বাবলু। এর পর ১৯৭৪ সালে ভিপি নির্বাচিত হন মাসুদুর রহমান প্রভিপি আক্তার কামাল ও জি এস আজিজুল ইসলাম, তারপর ১৯৮০ সালে ভিপি নির্বাচিত হন কাজী ইকরাম। প্র-ভিপি ওবায়দুর রহমান মিলন, জি এস মোকাররম হোসেন টিপু।
এ ব্যাপারে যশোরের সম্মেলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাবেক সভাপতি ও তৎকালীন ছাত্র নেতা এবং ১৯৭৪ সালে এম এম কলেজের ছাত্র সংসদ কমিটির এজিএস হারুন আর রশিদ বলেন,তৎকালীন সময়ে

হারুন আর রশিদ

র অধ্যক্ষ প্রফেসর শরিফ স্যার সংবিধান পরিবর্তনের জন্য একটি গন ভোটের আয়োজন করে, সে সময় গন ভোটটি ভেস্তে যাওয়ার কারনে পরবর্তীতে আর গঠনতন্ত্রও সংসোধনও হয়নি, হয়নি কোন নির্বাচন।
তিনি বলেন, ছাত্র সংসদ নির্বাচনের খুব প্রয়োজন, নির্বাচন না হওয়ার কারনে এখন আর দেখা যায় না ছাত্র নেতৃত্ব। তিনি বলেন, আমরা চাই আবার ছাত্র সংসদ নির্বাচন হোক।
এ ব্যাপারে যশোর এম এম কলেজের প্রাক্তন অধ্যক্ষ এবং ১৯৭৪ সালের ছাত্র সংসদ কমিটির বিজ্ঞান বিষায়ক সম্পাদক প্রফেসর নোমিতা রানী ম্যাগপাই নিউজকে বলেন, পুঁথিগত বিদ্যার্জন বা শ্রেণিকক্ষের সিলেবাস ভিত্তিক পড়াশোনায় ডুবে থাকাই যে উচ্চশিক্ষা তথা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার প্রধান উদ্দেশ্য নয় এটা সবারই জানা কথা। নির্দিষ্ট সময় শেষে একটি সনদপত্র প্রাপ্তিই উচ্চশিক্ষার মূল লক্ষ্য নয়। উচ্চশিক্ষা পরিপূর্ণ করার জন্য দরকার কিছু অনুষঙ্গের, যা একজন বিশ্ববিদ্যলয় শিক্ষার্থীর মানবিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক গুণের বিকাশ ঘটায়। আর এ অনুষঙ্গগুলোর আধিকাংশই পূরণ করে থাকে কোন কি জের ছাত্র সংসদ। তিনি আরো বলেন, ছাত্র সংসদ হলো কোন বিশ্ববিদ্যালয়ের গণতন্ত্র চর্চার অন্যতম পরিচায়ক। জ্ঞানার্জনের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ চলবে ছাত্র-শিক্ষকের পারস্পরিক সহযোগিতায়। আর এ সহযোগিতার জন্য চাই ছাত্র প্রতিনিধিত্ব, যারা ছাত্রদের দাবি-দাওয়া নিয়ে কথা বলবে বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারণী পর্যায়ে। এ প্রতিনিধিত্ব করাই ছাত্র সংসদের প্রধান কাজ। ছাত্র সংসদ হলো এমন একটি প্রতিষ্ঠান যার

প্রফেসর নোমিতা রাণী বিশ্বাস

কোন একক রাজনৈতিক ব্যানার নেই। বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়মিত ছাত্রদের ভোটে প্রতিনিধিরা নির্বাচিত হন। ছাত্র সংসদের কার্যক্রমের মধ্যে রয়েছে-শিক্ষার্থীদের সাংস্কৃতিক ও বুদ্ধিবৃত্তির চর্চা ত্বরান্বিত করা, বিশ্ববিদ্যলয় জীবনে একাডেমি ও একাডেমির বাইরের বিষয়ে সর্বোচ্চ সুবিধা অর্জন করা, নেতৃত্ব বিকাশে এবং সত্যিকারের নাগরিক হিসেবে শিক্ষার্থীদের প্রস্তুত করা। এ প্রধান চারটি কাজ ছাড়াও ছাত্র সংসদের অধীনে জার্নাল বুলেটিন, পত্রিকা প্রকাশ, বিতর্কের আয়োজন, গান, আবৃত্তি, খেলাধুলার আয়োজন করা হয়।
সর্বোপরি ছাত্র সংসদ হল প্রতিটি শিক্ষার্থীর সর্বোচ্চ বিকাশের একটি সহযোগী মঞ্চ যা শিক্ষার্থীদের অধিকার আদায়ের কথা বলে, ন্যায্য আন্দোলন-সংগ্রামে সামনে থেকে নেতৃত্ব দেয়, বিশ্ববিদ্যালয়ের নীতি নির্ধারণে রাখে সক্রিয় ভূমিকা।
এ ব্যাপারে যশোর এম এম কলেজের প্রাক্তন অধ্যক্ষ প্রফেসর ইবাদুল হক ম্যাগপাই নিউজকে বলেন, মুক্তবুদ্ধির চর্চা কেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় আক্ষরিক অর্থে বিশ্ববিদ্যালয় হয়ে ওঠার অন্যতম নিয়ামক হল গণতন্ত্রের চর্চা। আর এজন্যই দরকার নির্বাচিত ছাত্র প্রতিনিধি।
আমাদের সমস্যা অনেক-হল নেই, পরিবহন অপর্যাপ্ত, লাইব্রেরীতে বই অপর্যাপ্ত, এরকম হাজারো সমস্যা সম্পর্কে আমাদের কথা বলার প্রয়োজন আছে। সেজন্য দরকার একটি প্লাটফর্ম, দরকার ছাত্র সংসদের।

রওশন ইকবাল শাহী

যশোর এম এম কলেজের বর্তমান ছাত্রলীগের সভাপতি রওশন ইকবাল শাহী ম্যাগপাই নিউজকে বলেন, ছাত্র সংসদ নির্বাচনের ব্যাপারে আমরা সব সময়ই আন্তরিক। আমরা চাই ছাত্র সংসদ নির্বাচন হোক।
আর তাই আমরা কলেজের অধ্যাক্ষ প্রফেসর মিজানুর রহমানকে জানিয়েছি, তিনি বলেছেন হীরক জয়ন্তী অনুষ্ঠানের পর কলেজের ছাত্র সংসদ নির্বাচনের আশ্বাস দিয়েছেন । তিনি আরো বলেন, আমি যশোর জেলা ছাত্রলীগের  সম্পাদক আনোয়ার হোসেন বিপুলের সাথে এ ব্যাপারে কথা বলছি, উনি কেন্দ্রীয় সভাপতি-সম্পাদককে বিষয়টি জানিয়েছেন। তিনি বলেন খুব শিঘ্রই আমরা আবার কলেজের ছাত্র সংসদ নির্বাচন করবো। তিনি বলেন দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে ছাত্র সংসদ অকার্যকর থাকায় শিক্ষার্থীরা যেমন বঞ্চিত হচ্ছে তেমনি জাতীয় পর্যায়ে মেধাবী নেতৃত্বও তৈরি হচ্ছে না। অথচ পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতের কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়, জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়, দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়সহ পৃথিবীর অধিকাংশ বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র সংসদ কার্যকর আছে।
তিনি আরো বলেন, দীর্ঘ দিন ধরে সাধারণ শিক্ষার্থীরা ছাত্র সংসদ নির্বাচনের দাবি জানিয়ে আসছে।
মানসম্মত শিক্ষা কার্যক্রমের সাথে ছাত্রদের বিবিধ কার্যক্রম নির্বাচিত প্রতিনিধিদের দ্বারা হওয়া উচিত। মূলত একাডেমিক ক্যালেন্ডারের মত প্রতিবছর একটি নির্দিষ্ট সময়ে ছাত্র সংসদ নির্বাচন করতে হবে।
এম. এম কলেজ ছাত্রলীগ ছাত্র সংসদ নির্বাচনের বিষয়ে সর্বদা তৎপর আছে ।

এবিষয়ে এম. এম কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মিজানুর রহমান ম্যাগপাই নিউজকে বলেন, সাধারণ শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের কারণে আমরা ইতোমধ্যে ছাত্র সংসদ নির্বাচনের কাজে হাত দিয়েছি। গঠণতন্ত্র সংশোধনসহ নানা কর্মকাণ্ডের জন্য আগামী ২০আগস্ট শিক্ষক পরিষদের বৈঠক ডাকা হয়েছে। বৈঠকে গঠনতন্ত পরিবর্তন হলেই নির্বাচনের তফসিল ঘোষনা করা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here