দুখিনী বর্ণমালার দুর্গম জাতিসংঘযাত্রা

0
351

শেখ রোকন : অমর একুশে গ্রন্থমেলা উদ্বোধন কিংবা একুশে পদক প্রদান অনুষ্ঠানে এ বছরও কি প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘের সপ্তম ‘সপ্তম দাপ্তরিক ভাষা’ হিসেবে বাংলার স্বীকৃতি আদায়ে উদ্যোগের কথা পুনর্ব্যক্ত করেছেন? এ সংক্রান্ত সংবাদগুলো দেখে অন্তত আমার চোখে পড়েনি। অথচ তার প্রধানমন্ত্রিত্বের টানা দুই মেয়াদের প্রায় প্রতিবছরই দুই আয়োজনের কোনো একটিতে তিনি এই প্রত্যয় ব্যক্ত করে আসছিলেন। তবে কি শেষ পর্যন্ত আমরা ‘বাস্তবতা’ মেনে নিয়েছি?

বস্তুত গৌরব ও অনুপ্রেরণার এই স্বীকৃতি প্রতিষ্ঠায় উদ্যোগ কম ছিল না। এর প্রেক্ষাপটে ছিল, একুশে ফেব্রুয়ারি জাতিসংঘের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের স্বীকৃতিপ্রাপ্তি। প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত উদ্যোগ ও আন্তরিকতা ছাড়া যে দুই প্রবাসী বাঙালির তোলা ওই প্রস্তাব জাতিসংঘের স্বীকৃতির জন্য যথাস্থানে উপস্থাপিতই হতে পারত না, বলা বাহুল্য। সেই সাফল্য পেছনে রেখেই বাংলা ভাষাকে নতুন উচ্চতায় নেওয়ার প্রচেষ্টা চলছিল সঙ্গত কারণেই। আমরা দেখেছি, প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে বাংলায় ভাষণ প্রদানকে প্রায় রেওয়াজে পরিণত করেছেন। সেখানেও তিনি বাংলাকে সপ্তম ভাষা হিসেবে গ্রহণের আহ্বান জানিয়ে থাকেন। এর তাৎপর্য বিশাল, মনে রাখতে হবে।
অনেকের মনে আছে, ২০০৯ সালের এপ্রিলে বাংলাকে জাতিসংঘের সপ্তম দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে গ্রহণ করার আহ্বান জানিয়ে একটি প্রস্তাবও পাস হয়েছিল। ওই সেপ্টেম্বরেও জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে ভাষণ দিতে গিয়ে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী দাবিটি এগিয়ে নিতে বিশ্বের সব বাংলা ভাষাভাষী, বিশেষ করে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার ও ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের বাঙালি মন্ত্রীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছিলেন। আমরা দেখি, কয়েক মাস পরেই পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য বিধানসভায় বাংলাকে জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষা করার আহ্বান জানিয়ে সর্বসম্মত প্রস্তাব পাস হয়। বাঙালি অধ্যুষিত রাজ্য ত্রিপুরা ও উলেল্গখযোগ্যসংখ্যক বাঙালির আবাস আসাম থেকেও সমর্থন পাওয়া গিয়েছিল। তারপর? ইতিমধ্যে গঙ্গা, যমুনা, মেঘনা বয়ে অনেক পানি বঙ্গোপসাগরে গড়িয়ে গেছে। জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে স্বীকৃতির বিষয়টি কতদূর এগিয়েছে?
মাতৃভাষা একটি আবেগের বিষয়, সন্দেহ নেই। বস্তুত আবেগ প্রকাশের জন্য মাতৃভাষাই সবচেয়ে উপযুক্ত মাধ্যম। আর বাংলা ভাষা তো আবেগের আরও উপলক্ষ। এই ভাষা যাদের মাতৃভাষা, সেই বাঙালি আবেগপ্রবণ জাতি বলে শুধু নয়, ভাষার মর্যাদা রক্ষায় বুকের রক্ত বিলিয়ে দেওয়ার ইতিহাসও বিরল। যে কারণে আমরা সবাই ভেবেছি, কমবেশি ৩০ কোটি মানুষের মুখের ভাষা জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষার স্বীকৃতি পাবে না কেন? মায় এই অধমও গত কয়েক বছর ধরে ‘দুখিনী বর্ণমালার জাতিসংঘযাত্রা’ নিয়ে লিখে গেছি। কিন্তু দিনের শেষে আমরা কি আসলেই আশা করতে পারি, বাংলা জাতিসংঘের সপ্তম দাপ্তরিক ভাষা হওয়ার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে?
আবেগের ঊধর্ে্ব উঠে যদি দেখা যায়, এখন পর্যন্ত ছয়টি ভাষা জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষার মর্যাদা পেয়েছে। জাতিসংঘ গঠনের সময় দাপ্তরিক ভাষা ছিল চারটি_ ইংরেজি, চায়নিজ, ফরাসি ও রুশ। এগুলো যদিও নিরাপত্তা কাউন্সিলের পাঁচ সদস্য রাষ্ট্রের মাতৃভাষা, ব্যাখ্যা হাজির করা হয় অন্যটা। বলা হয়, বাস্তবতার কারণেই ওই চার ভাষাকে দাপ্তরিক মর্যাদা দেওয়া হয়েছিল। যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান ভাষা হওয়া ছাড়াও ইংরেজি ততদিনে আন্তর্জাতিক যোগাযোগ মাধ্যম হিসেবে প্রতিষ্ঠিত। ইউরোপ, উত্তর আমেরিকা ও আফ্রিকার বড় অংশের মানুষের আন্তর্জাতিক যোগাযোগের ভাষা ফরাসি, ইংরেজি নয়। চায়নিজ বা মান্দারিন তখন থেকেই সবচেয়ে বেশি মানুষের মাতৃভাষা। আর সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের প্রভাবেই রুশ ভাষাকে এড়ানো অসম্ভব ছিল। পরে যুক্ত হয়েছিল স্প্যানিশ ও আরবি। কারণ ইউরোপ ও দক্ষিণ আমেরিকা এবং মধ্যপ্রাচ্য ও আফ্রিকার বিপুলসংখ্যক মানুষের মাতৃভাষা স্প্যানিশ ও আরবি।এই ছয়টির বাইরে সপ্তম দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে বাংলার সম্ভাবনা কতটুকু? আরও কয়েকটি ভাষার পক্ষে একই ধরনের উদ্যোগ বা প্রচারণা চলছে গত কয়েক বছর ধরে। সেগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে জার্মান, পর্তুগিজ, জাপানিজ ও হিন্দি। স্মর্তব্য, এদের মধ্যে জার্মানি, জাপান ও ভারত জাতিসংঘের স্থায়ী পরিষদের সদস্যপদের দাবিদার। বাংলার শক্তি একটাই, বিশ্বের কমবেশি ৩০ কোটি মানুষ এই ভাষায় কথা বলে। অন্য যে কয়টি ভাষা জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষার মর্যাদা চায়, সেগুলো ল্যাঙ্গুয়েজ-র‌্যাংকিংয়ে বাংলার পেছনে। উইকিপিডিয়ার হিসাবে হিন্দি ও উর্দু মিলে বাংলার চেয়ে এগিয়ে আছে। অবশ্য কোনো কোনো হিসাবে বাংলাই এগিয়ে রয়েছে। যেমন ফোটিয়াস ডটকম নামে একটি তথ্যকেন্দ্রের হিসাবে প্রথম ভাষা হিসেবে ব্যবহারকারী জনসংখ্যা বিবেচনায় বাংলা এখন বিশ্বের পঞ্চম ভাষা। এর আগের চারটি ভাষা যথাক্রমে চায়নিজ বা মান্দারিন, ইংরেজি, স্প্যানিশ ও আরবি।
প্রশ্ন হচ্ছে, মুখের বা প্রথম ভাষা হিসেবে ব্যবহারকারী মানুষের সংখ্যাই কি শেষ কথা। দুর্ভাগ্যজনকভাবে না। বরং আন্তর্জাতিক ক্ষমতাকাঠামোতে ওই ভাষাভাষী দেশ বা জাতির অবস্থান গুরুত্বপূর্ণ। যে কারণে রুশ ভাষার চেয়ে পর্তুগিজ ভাষাভাষীর সংখ্যা বেশি হওয়া সত্ত্বেও পর্তুগিজ স্থান পায়নি। একই কারণে বহুদিন দাপ্তরিক ভাষা বলয়ের বাইরে ছিল আরবি ও স্প্যানিশ।
এ ক্ষেত্রে কী করতে হবে? নিজেও আগে একাধিকবার লিখেছি যে, সংসদে প্রস্তাব পাশের পাশাপাশি বিশ্বব্যাপী প্রচার-প্রচারণা চালাতে হবে; জাতিসংঘে কূটনৈতিক চ্যানেলে শক্তিশালী লবিং করতে হবে; ইন্টারনেটে পিটিশন পেজ খোলা যেতে পারে ইত্যাদি। বাংলাদেশের জাতীয় সংসদে ও পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা থেকে আমরা ইতিমধ্যেই প্রস্তাব পেয়েছি। সমর্থন মিলেছে বাংলা ভাষাভাষী অন্যান্য অঞ্চল থেকেও। ইন্টারনেটে প্রচারণাও নেহাত কম নয়। বাংলাদেশ সরকার জাতিসংঘে নিযুক্ত স্থায়ী প্রতিনিধিকে এ ব্যাপারে স্থায়ী দায়িত্বও দিয়ে রেখেছে। কাজের কাজ কি কিছু হয়েছে বা হচ্ছে? সময় গড়াতে গড়াতে বুঝেছি যে বিষয়টি এত সহজ নয়।
প্রথম কথা হচ্ছে, জাতিসংঘ বাংলাকে দাপ্তরিক ভাষা করার প্রশ্নে জার্মানি, জাপান ও ভারতের প্রভাব এড়াতে পারবে? কেনই-বা এড়াতে চাইবে, সেটাও বড় প্রশ্ন। তারপর সাধারণ পরিষদে এ সংক্রান্ত প্রস্তাব পাশে সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশের সমর্থন পাওয়ার প্রশ্ন রয়েছে। দক্ষিণ এশীয় দেশগুলোর না হয় বাংলার প্রশ্নে প্রতিবেশীসুলভ সমর্থন থাকল; না হয় বিশ্বমোড়লরা বিষয়টিকে সামগ্রিক স্বার্থ সমর্থন দিলেন; দূরের সদস্য রাষ্ট্রগুলো কি তাতে সায় দেবে?
তর্কের খাতিরে না হয় ধরে নেওয়া গেল, বাংলা ভাষার অবদান ও এই ভাষার প্রতি বিপুল সংখ্যক মানুষের আবেগের মূল্য দিয়ে সবাই সমর্থন করল এবং জাতিসংঘ বাংলাকে সপ্তম দাপ্তরিক ভাষার মর্যাদা দিল। তারপর? জাতিসংঘের সব নথিপত্র দাপ্তরিক সব ভাষায় প্রকাশের নিয়ম। সেই নিয়ম আক্ষরিক অর্থে ‘সস্তা’ নয়। এতে বছরে গড়ে ৫৫ মিলিয়ন ডলার খরচ লাগে। টাকার অঙ্কে ৪৪০ কোটি। ২০১২ সালের মে মাসে তৎকালীন পররাষ্ট্রমন্ত্রী দীপু মনি জাতীয় সংসদে এই হিসাব দিয়েছিলেন। আর এটা স্বতঃসিদ্ধ যে, জাতিসংঘে দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে বাংলা থাকা না থাকায় আর কোনো রাষ্ট্রের যেহেতু মাথাব্যথা নেই, এই খরচ বাংলাদেশকেই বহন করতে হবে। মাতৃভাষার ‘মর্যাদা’ জাতিসংঘে প্রতিষ্ঠায় সেই খরচ করতে কি আমরা প্রস্তুত?
এর চেয়ে অনেক বেশি সহজ বাংলাদেশেই বাংলা ভাষার মর্যাদা অক্ষুণ্ন রাখা। অফিসে, আদালতে, শিক্ষাক্ষেত্রে, সরকারি-বেসরকারি কার্যালয়ে, সড়কে, সংবাদমাধ্যমে, ফেসবুকে, ব্যবহারিক জীবনে বাংলা ভাষা চর্চা বাড়ানো। তাতেই আমাদের দুখিনী বর্ণমালা অনেক খুশি থাকবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here