দুর্নীতির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াই সবাই

0
219

মীর আব্দুল আলীম : গত ২৭ জুলাই একটি সংবাদ গুরুত্বের সঙ্গে সব পত্রিকাতে প্রকাশ পেয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুর্নীতি উচ্ছেদের কথা বলেছেন। জেলা প্রশাসক (ডিসি) সম্মেলনের উদ্বোধনী ভাষণে জেলা প্রশাসকদের উদ্দেশে বলেন, ‘এই বাংলার মাটি থেকে করাপশন উত্খাত করতে হবে। বাংলার কৃষকরা করাপশন করেন না। করাপশন আমার মজদুর করে না। করাপশন করি আমরা শিক্ষিত সমাজ। যারা ওই কৃষক ও মজুরের টাকায় লেখাপড়া করে শিক্ষিত হয়েছি।’ দেশ থেকে দুর্নীতি উচ্ছেদের প্রধানমন্ত্রীর এ ঘোষণাকে সাধুবাদ জানাতেই হয়। এ কথা বলতে হয়, তিনি (প্রধানমন্ত্রী) দুর্নীতি চান না বলেই সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ১২২ ভাগ বেতন বৃদ্ধি করেছেন। আমরা নামে যাদের খুব বেশি চিনতাম না, জানতাম না, দুর্নীতি রোধের ইচ্ছায় তিনি তাদেরও মন্ত্রিসভায় এনেছেন। দুর্নীতি রোধে প্রধানমন্ত্রীর সদিচ্ছা আছে, তা না বলে উপায় নেই। এবারও দুর্নীতি রোধের ঘোষণা দিয়ে পুনরায় তার সদিচ্ছার প্রমাণ দিলেন।

দুর্নীতি! এটা তো এ-দেশে বহুল পঠিত এবং চর্চিত একটি শব্দ। দুর্নীতির সর্বগ্রাসী থাবা থেকে কীভাবে মুক্ত হওয়া যায়—এই প্রশ্নের উত্তর দিতে গেলে আমাদের বুঝতে হবে যে—কেন দুর্নীতি হয় বা দুর্নীতি বিস্তারের প্রক্রিয়া কীভাবে বৃদ্ধি পায়। সার্বিকভাবে দেখলে দুর্নীতির ব্যাপকতার সাথে নৈতিক মূল্যবোধের অবক্ষয়ের একটি সম্পর্ক আছে। একথার সত্যতা স্বীকার করে নিয়ে বলতে হয় যে, কেবল মূল্যবোধের অবক্ষয় বাংলাদেশের দুর্নীতির ব্যাপক প্রসারের প্রক্রিয়াকে ব্যাখ্যা করতে পারে না। কেননা দুর্নীতি পৃথিবীর সব দেশেই কম-বেশি হয়। কিন্তু বাংলাদেশে দুর্নীতির ব্যাপকতা জনগণের মনে যে পরিমাণ হতাশার সৃষ্টি করে, তা তুলনাহীন। দুর্নীতি কেবল ওপর-মহলে হয়, তাই নয়, বরং দৈনন্দিন জীবনের প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রে জনগণকে দুর্নীতির প্রক্রিয়ায় অংশ নিতে বাধ্য করা হয়। এই অংশগ্রহণের কারণ সব ক্ষেত্রেই শুধু লোভ নয়, বরং অনেক ক্ষেত্রেই হচ্ছে ন্যূনতম জীবনযাপনের প্রচেষ্টা। এই অসহায়ত্বের সাথে যুক্ত হয়েছে চোখের সামনে ঘটে যাওয়া দৃষ্টান্তের, যেখানে দুর্নীতির সাথে সংশ্লিষ্টদের শাস্তির সুযোগ নেই বরং জনগণকে মূল্য দিতে হয় সত্ থাকার জন্য।

জনগণের কাছে এই ধারণা ক্রমেই দৃঢ় হয়েছে যে, সমাজে নীতিবান হয়ে থাকার মাঝে কোনো গৌরব নেই, বরং আছে বহু ভোগান্তি। সমাজের সুশীল অংশেও ন্যায়-অন্যায়ের সংজ্ঞা পরিষ্কার নয়। অন্যদিকে বেআইনি পথে থাকার সুবিধা রয়েছে অনেক। জনগণের মনে এই ধারণা যত ক্রমবিকাশমান হচ্ছে, হতাশা তত বৃদ্ধি পাচ্ছে, সমাজ ও রাষ্ট্রব্যবস্থা সম্পর্কে বিরূপতা তত বেশি বেড়ে যাচ্ছে। এই হতাশার ফল ধরে আমরা হয়ে যাচ্ছি বছরের পর বছর দুর্নীতিতে অন্যতম শীর্ষস্থানীয় একটি দেশ। বলার আর অপেক্ষা রাখে না যে, সমাজের প্রতিটি স্তরে ঘুষ, দুর্নীতি ক্যান্সারের মতো ছড়িয়ে পড়েছে। এ ব্যাধি থেকে নিস্তার পাওয়ার পথ হচ্ছে সমাজ ও রাষ্ট্রের বেশকিছু ক্ষেত্রে ব্যাপক সংস্কার সাধন করা এবং উন্নয়ন ঘটানো। এ জন্য আমাদের রাজনীতিক, মন্ত্রী, আমলা আর দেশের মানুষের মানসিকতার পরিবর্তনেরও কোনো বিকল্প নেই।

বাংলাদেশ একটি প্রধান দুর্নীতিগ্রস্ত দেশ—এই ধারণাটি সৃষ্টি হয়েছে দেশের আমজনতার মনে, কারণ বাংলাদেশের রাষ্ট্র ও সমাজ ব্যবস্থা তার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানগুলোকে কার্যকর ভূমিকা পালনের অবকাশ রাখেনি। সমাজ ও রাষ্ট্রের এই প্রতিষ্ঠানগুলোর ব্যর্থতা দেশের জনগণের মনে তীব্র হতাশা সৃষ্টি করেছে, দুর্নীতির পথে ব্যাপক জনমত গড়ে তুলতে সৃষ্টি করেছে বাধা। যতদিন এই প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের ভূমিকা কার্যকরভাবে পালন করতে না পারবে, সমাজে দুর্নীতির ব্যাপক দৌরাত্ম্যের প্রতাপ আমাদের দেখে যেতে হবে।

দুর্নীতির যে ধারণা আমরা সৃষ্টি করেছি, সেই ধারণাকে বদলাতে হবে আমাদেরই। আর তা করতে হবে কথাকে কাজে পরিণত করার মাধ্যমে। বাংলা নামের এ দেশ আমাদের সবার, তাই আমাদের সবার মিলিত প্রতিরোধে সমাজের সব অনাচার দূর করা সম্ভব। এ ক্ষেত্রে সরকারেরও সঠিক ভূমিকা থাকতে হবে। আর এসব বিষয়ে সরকার জনতার ন্যায্য সমর্থন পাবে বলেই আমার বিশ্বাস।

সর্বশেষ, আমরা আশাকরি যে, ‘এই বাংলার মাটি থেকে করাপশন উত্খাত করতে হবে’ প্রধানমন্ত্রী তার দেওয়া এ বক্তব্যের ওপর স্থির থেকে দেশ পরিচালনায় এগিয়ে যাবেন। আমরা আরও বিশ্বাস করতে চাই, তিনি অসম্ভবকে সম্ভব করবেন। আর তিনি এ কাজে সফল হবেন, এটা দেশের ১৬ কোটি মানুষের প্রত্যাশা। বাংলাদেশের দুর্নীতি দমনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর জয় হোক—এ আশাবাদ ব্যক্ত করছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here