দৃষ্টান্ত স্থাপন করুন

0
225

দেশের সর্বত্রই দুর্বৃত্ত শ্রেণির মানুষের যাচ্ছেতাই রকমের বাড়াবাড়ি নিশ্চয়ই কাহারও দৃষ্টি এড়ায় না। অমানবিক সব কাণ্ড-কারখানা ঘটাইতে এই শ্রেণির মানুষ যে সিদ্ধহস্ত তাহাই নহে; বরং এই কাজেই যেন তাহাদের অফুরন্ত আনন্দ আর তাই ইহারা ব্যক্তি মানুষ ও বিভিন্ন গোষ্ঠী বা সম্প্রদায়ভুক্ত মানুষদের উপর নির্বিচারে অত্যাচার চালায়। ইহাদের ব্যাপারে কোনো প্রকার প্রতিরোধ বা প্রতিকার আদৌ চোখে পড়ে না। অথচ, দেশে আইন আছে, কানুন আছে, আছে বিপুল সংখ্যক আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর সদস্য। কিন্তু থাকিলে কী হইবে ঘটনাক্রমে দেখা যাইবে যে ইহারা থাকিয়াও নাই।

গত শুক্রবার জয়পুরহাটের জিন্দারপুর ইউনিয়নের মাদারপুর গ্রামের হিন্দুপাড়ায় একশ্রেণির দুর্বৃত্ত যে হামলা, ভাঙচুর আর অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটাইয়াছে উহাতে আমাদের সমাজের এক ভয়াবহ করুণ চিত্রই ফুটিয়া উঠিয়াছে বৈকি। হিন্দু সম্প্রদায়ের মাসব্যাপী ধর্মীয় লীলাকীর্তন অনুষ্ঠান বানচাল করিতে বেশ কিছুকাল যাবত্ দুর্বৃত্তরা নানাপ্রকার হুমকি-ধামকি দিয়া আসিতেছিল। বৈশাখ মাস উপলক্ষে ঐ গ্রামের হিন্দু সম্প্রদায় প্রতিবেশী খগেন মালীর বাড়িতে মাসব্যাপী লীলাকীর্তন অনুষ্ঠানের মাধ্যমে গীতাপাঠের আয়োজন করিয়া থাকে। দুর্বৃত্তরা তাহাদেরকে লীলাকীর্তন ও গীতাপাঠ হইতে বিরত রাখিতে ভয়-ভীতি প্রদর্শন করিতেছিল বেশ কিছুদিন যাবত্। ধর্মীয় অনুষ্ঠানকে ঘিরিয়া এইরূপ বাধা বা হুমকি-ধামকির নিকট নতি স্বীকার করিতে স্বাভাবিকভাবে ঐ ধর্মপ্রাণ মানুষেরা রাজি হয় নাই। আর ইহাতেই যত গোল বাধিয়া যায় এবং মুখোশধারী দুর্বৃত্তরা খগেন মালীর বসতবাড়িতে হামলা, ভাঙচুর এবং এক পর্যায়ে অগ্নিসংযোগ করে। স্থানীয় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাও ঘটনার সত্যতা স্বীকার করিয়াছেন। কিন্তু ঘটনার সহিত জড়িত কাহাকেও গ্রেফতার করিতে পারেন নাই বা করেন নাই। শুধু কি তাহাই, এই ঘটনা ঘটিবার বহু পূর্ব হইতেই যখন চিহ্নিত দুর্বৃত্তরা হুমকি-ধামকি দিতেছিল তখন ঐ থানার কর্মকর্তাগণ কী করিতেছিলেন জনমনের এই প্রশ্নেরও কি আদৌ কোনো সদুত্তর তাহারা দিতে পারিবেন? এই জাতীয় ক্ষেত্রে ঘটনা ঘটিবার পূর্বেই আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর সদস্যদের তো আগাইয়া আসার কথা। কিন্তু এইসব ক্ষেত্রে বরাবরই তাহাদেরকে নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করিতে দেখা যায়। ইহার কারণ এই যে ইহাদের মানসিকতাও ঐ দুর্বৃত্তদের মানসিকতার অনুরূপ কিংবা স্থানীয় গডফাদারদের প্রভাব-প্রতিপত্তির নিকট নতজানু থাকিয়া তাহারা নিজেরাই কিছু আর্থিক বা অন্যবিধ লাভবান হইবার পথ পায়। নচেত্, আইন-কানুন সবই তাহাদের অনুকূলে আর দুর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে হওয়া সত্ত্বেও কেন তাহারা অসহায় ও বিপন্ন মানুষকে রক্ষা করিতে আগাইয়া আসে না।

দেশের সংবিধানে সকল ধর্মাবলম্বী মানুষের জন্য ধর্মীয় স্বাধীনতার এবং তাহাদের স্ব স্ব ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালনের পরিপূর্ণ নিশ্চয়তা প্রদানের কথা বলা রহিয়াছে। তত্সত্ত্বেও প্রায়শ বিভিন্ন সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষের ধর্ম পালনের ক্ষেত্রে দুর্বৃত্তদের এই অমানবিক অন্যায় অত্যাচারমূলক আচরণ চলিতেই থাকে। ইহা কোনোক্রমেই মানিয়া নেওয়া যায় না নিশ্চয়ই। এমন ঘটনার অন্তত একটির ব্যাপারেও যদি প্রশাসন কঠোর হস্তে দুর্বৃত্তদের দমন করিত তাহা হইলে তাহারা যখনতখন এমন ঘটনা ঘটাইতে সাহস পাইত না। এই ধরনের ঘটনা ঘটাইবার পিছনে যে অসহায় মানুষের সম্পত্তি গ্রাস করাটাই প্রধান উদ্দেশ্য থাকে উহা বলাই বাহুল্য। স্থানীয় সরকার ও প্রশাসনের উদাসীন্য এ ক্ষেত্রে কোনোক্রমেই গ্রহণযোগ্য হইতে পারে না। তাই এই চক্রকে অবশ্যই প্রতিরোধ করিতেই হইবে। পূর্ণ তদন্ত সাপেক্ষে অন্তত একটি ক্ষেত্রে হইলেও প্রতিরোধের কঠিন দৃষ্টান্ত স্থাপন করিতে হইবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here