দৃষ্টি দিতে হইবে পাহাড় ধসের মূলে

0
233

টানা ভারী বর্ষণে বান্দরবানে আবারো পাহাড় ধসের ঘটনা ঘটিয়াছে। ইহাতে মাটি চাপায় নিহত হইয়াছে একজন এবং এখন পর্যন্ত নিখোঁজ রহিয়াছে চারজন। জানা যায়, গত শনিবার হইতে বান্দরবানে টানা ভারী বর্ষণ শুরু হইলে রুমা সড়কের দলিয়ানপাড়া এলাকায় পাহাড় ধসিয়া পড়ে। ইহাতে সড়কটিতে সাময়িকভাবে যান চলাচল বন্ধ হইয়া যায়। কিন্তু পরদিন সকাল আনুমানিক ১০টা নাগাদ বান্দরবান হইতে রুমা উপজেলার উদ্দেশ্যে এবং রুমা হইতে বান্দরবানের উদ্দেশ্যে ছাড়িয়া যাওয়া দুইটি যাত্রীবাহী বাস পাহাড় ধসে বিধ্বস্ত স্থানটিতে আসিয়া পৌঁছায়। তখন দুই পার্শ্বের যাত্রীরা বাস পরিবর্তনের জন্য ভাঙা রাস্তা পায়ে হাঁটিয়া পার হইবার সময় বৃষ্টিতে আবারো পাহাড় ধসের ঘটনা ঘটে। এই সময় মাটি চাপা পড়ে দুইটি বাসের বেশ কয়েকজন যাত্রী।

সামপ্রতিক একটি পরিসংখ্যান হইতে জানা যায়, গত ৩০-৩৫ বত্সরে পাহাড়ি অঞ্চলে জনসংখ্যা প্রায় দ্বিগুণ বৃদ্ধি পাইয়াছে। সমতল ভূমিতে বসবাস করা অনেক মানুষ এখন পাহাড়ে গিয়া বসতি স্থাপন করিতেছে অপরিকল্পিতভাবে। বসতি স্থাপন করিবার জন্য উঁচু-নিচু পাহাড় কাটিয়া তাহারা যথেচ্ছভাবে সমান করিতেছে। ফলে ক্রমশই দুর্বল হইয়া পড়িতেছে পাহাড়ের মাটি। বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, অতিবৃষ্টি ও পাহাড়ে অপরিকল্পিত বসতি এবং পাহাড় ও গাছ কাটাই হইতেছে পাহাড় ধসের মূল কারণ। বলা যায়, এইসব কারণে বর্তমানে পার্বত্য অঞ্চলে পাহাড় ধসের ঘটনা ঘটিতেছে অহরহ। জানা যায়, গত ১০ বত্সরে বাংলাদেশে পাহাড়-ধসে চার শতাধিক মানুষ মৃত্যুবরণ করিয়াছে। আহত হইয়াছে সহস্রাধিক। পার্বত্য জেলাগুলিতে প্রতিবত্সরই এইভাবে লাশের পাহাড় ভারী হইতেছে। পাহাড় চাপা পড়িয়া একের পর এক জানমালের ক্ষয়ক্ষতির ঘটনা পাহাড়ের অব্যবস্থাপনাকেই প্রকাশ করে।

প্রতিবত্সর পাহাড়ে এমন করুণ মৃত্যুকে স্বাভাবিকভাবে মানিয়া লওয়া যায় না। আমরা জানি যে, অপরিকল্পিতভাবে পাহাড় কাটিয়া স্থাপনা নির্মাণ করিলে বা পাহাড়ের গায়ে বাড়িয়া ওঠা গাছপালা উজাড় করিলে পাহাড়ের মাটি আলগা হইয়া যায়। ফলে বৃষ্টি হইলেই পাহাড়ের গা বাহিয়া তীব্র বেগে নামিয়া আসা ঢল আলগা মাটি ধুইয়া নিচে নামিয়া যায়। ইহাতে পাহাড় হইয়া পড়ে দুর্বল। শুধু তাহাই নহে, ইহাতে পাহাড়ের স্থিতিস্থাপকতাও নাজুক হইয়া পড়ে। অতঃপর দেখা দেয় অকস্মাত্ পাহাড় ধস। ধসের আশঙ্কা তো রহিয়াছেই, পাহাড় কাটিবার ফলে ভূমিকম্পের সম্ভাবনাও বাড়িয়া যায় বহুগুণ। তাই শুধু বর্ষা মৌসুমে পাহাড়ের ঢালের বসতি উচ্ছেদের ব্যবস্থা করাই এই সমস্যার একমাত্র সমাধান নহে, পাহাড় ধস ঠেকাইবার জন্য ইহার অন্তর্নিহিত কারণসমূহের দিকে দৃষ্টিপাত করিতে হইবে, সমাধান আনিবে হইবে তাহার আলোকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here