দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা যশোরে, কমবে আরোও

0
31

ডি এইচ দিলসান : মঙ্গলবার দেশের সর্বনি¤œ তামপাত্রা ছিলো যশোরে। যশোর বিমান বন্দর আবহাওয়া অফিস সুত্রে জানা গেছে যশোরে সর্বনিম্ন ১২ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়। বুধ ও বৃহস্পতিবার তাপমাত্রা আরো কমবে বলে জানান আবহাওয়া অফিস। সারা দিন সুর্যের দেখা না মেরায় সর্বনি¤œ এ তাপমাত্রার সঙ্গে বাতাসে আদ্রতার পরিমাণ বেশি থাকায় এবং বাতাসের কারণে শীত অনুভূতও হচ্ছে খুব বেশি। আর যার কারনে শৈত্যপ্রবাহে বিপর্যস্থ হয়ে পড়েছে যশোরের জনজীবন।
মঙ্গলবার ভোর ছিল কুয়াশা ঘেরা। সকালে সূযের্র ক্ষীণ আলো কুয়াশাকে ভেদ করে মাটি ছুঁতে না পরায় গায়ে উষ্ণতা জাগাতে পারেনি। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে কুয়াশা সরে গেলেও রোদের দেখা মেলেনি। আর যার ফলে মানুষজনের স্বাভাবিক কর্মকান্ড ব্যহত হয়। মোটা জ্যাকেট, মাফলারে ঢেকে মানুষজনকে জুবুথুবু হয়ে পথ চলতে দেখা যায়। হাড় কাঁপানো শীতে ঘর থেকে বের হননি অনেকে। খুব সকালে ক্ষেতে প্রতিদিনের মতো চাষিদের দেখা মেলেনি। বেশি দুর্ভোগে পড়তে হয়েছে দিন আনা দিন খাওয়া মানুষগুলোকে। প্রতিদিন শহরের লালদীঘির পাড়ে শ্রমিক জনগোষ্ঠীর বহর বসলেও, কাল তা ছিলো কম।
বিকেলের দিকে শীতের প্রকোপ বেড়ে যায় দ্বিগুন। সন্ধা নামতেই সৃষ্টি হয় অসহ্য শীতের কাঁপুনি। রাস্থায় রিকশা, অটোরিকশা কম থাকায় অফিস থেকে ঘরে ফেরা মানুষগুলোর অনেককেই ধীর পায়ে হেঁটে ঘরে ফিরতে দেখা যায়। রাত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে আরও বাড়ে শীতের তীব্রতা।
শহরের রেলস্টেশন, বাসটার্মিনাল, অফিস-আদালতের বারান্দায় রাত কাটানো মানুষগুলো জুবুথুবু পড়ে থাকতে দেখা যায়। শীতের ‘যাঁতাকলে’ এই সব মানুষগুলো এখন তাকিয়ে আছেন সামাজিক ও সেচ্ছাসেবী সংগঠন ও প্রশাসনের দিকে। প্রতিবারের মতো হয়তো সংগঠনগুলোর সহযোগিতায় তাদের গায়ে চড়বে গরম কাপড়, কম্বল।
এদিকে, কৃষকরা চাষ কাজ আর সবজি তোলার জন্য মাঠে গেলেও তীব্র ঠান্ডা বাতাসে টিকতে পারেনি। যার প্রভাব পড়েছে বাজারে, শীতের কারনে দাম বেড়েছে সবজির। অনেকে আগুন জ্বালিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা চালায়। অন্যদিকে শীতের পোশাকের দোকানগুলোতে ছিল উল্লেখযোগ্য ভিড়। সারাদিনের হাড় কাঁপানো শীতে ছিন্নমূল মানুষ মানবেতর জীবনযাপন করছে। শীতজনিত রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। তীব্র শীতে কয়েকদিনে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে মারা গেছে।
সন্ধ্যা হতে তখনও ঘন্টা দুয়েক বাকি। সূর্যের আলো দৃশ্যমান হলেও কমতি নেই শীতের তীব্রতার। এমন পরিবেশে রেলরোডের বাসিন্দা রাবেয়া খাতুন ছোট্ট নাতিটাকে নিয়ে এসেছেন শীত নিবারণের উপকরণ কিনতে। কিন্তু গন্তব্যে পৌছেও তিনি ভিড় আর দামের কারণে সংগ্রহ করতে পারছেন না কাক্সিক্ষত পোশাকটি। বয়সের ভার ও শীতের তীব্রতায় তিনি কাঁপছিলেন। মঙ্গলবার যশোর কালেক্টরেট মার্কেটে এমন দৃশ্য দেখা যায়।
ধনিরা শীত উপভোগে ব্যস্ত থাকলেও চরম বিপাকে পড়েছে নি¤œ আয়ের মানুষ। যাদের পরিবার পরিজনদের নিয়ে দু’বেলা খেয়ে বেঁচে থাকতেই নাভিশ্বাস উঠছে। এখন নতুন শত্রুর সাথে তাদের সংগ্রাম করতে হচ্ছে। তাই তারা মিলিত হয়েছে গরিবের মার্কেট খ্যাত যশোর ইন্সটিটিউট মার্কেট ও কালেক্টরেট মসজিদ মার্কেটে। তবে এ মার্কেট দুটিও তাদের দখলে নেই। এখানেও সমাগত ঘটেছে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষের। সেই সুযোগে দোকানিরা দাম হাঁকাচ্ছেন বেশি। পূর্বের দশ টাকার অন্যের পরিত্যক্ত বস্ত্র এখন বিক্রি হচ্ছে ২০ টাকায়। এছাড়া মান ও চাহিদা ভেদে সব গরম কাপড়ের দাম বেড়েছে প্রায় দ্বিগুণ। শুক্রবার ইন্সটিটিউট মার্কেটে গা-ঘেষা ভিড়ে কথা হয় সখিনা বেগমের সাথে। তিনি জানান, রিক্সা চালক স্বামীর উপার্জনে পাঁচ সদস্যের সংসার চালানোই দায়। তার উপর বর্তমানের তীব্র শীতে গরম কাপড় কেনার ঝামেলায় পড়েছেন তারা। তিনি দাম কম শুনে এ মার্কেটে এসেছেন। কিন্তু পেরে উঠছেন না।
অন্যদিকে অনেক মধ্যবিত্ত পরিবারের মানুষও এসেছেন এ মার্কেটে। দাম কমের আশায় রাফ ইউজের লক্ষ্যে এখানে এসেছে তারা। ব্যবসায়ী আব্দুল আওয়াল জানান, নতুন জিনিসের অনেক দাম। তাছাড়া এখানে অনেক ভাল জিনিস পাওয়া যায়। তাই এখানে এসেছেন তিনি।
এদিকে, বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষের আগমনের ফলে দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন দোকানদাররা। রহিম উদ্দিন ও বক্কর নামে দুই দোকানি জানান, চাহিদার তুলনায় সরবরাহ কম থাকায় দাম কিছুটা বেড়েছে।