দেড় যুগ পরে কপোতাক্ষের তীরে সোনালী ফসল

0
700

এম আর মাসুদ : দীর্ঘ দেড়যুগ পরে কপোতাক্ষ নদে স্রোত বহমানে সুফল পেয়েছেন পাড়বাসী। মহাকবি মাইকেল মধূসুদন দত্তের স্মৃতি বিজড়িত এ নদে ক্ষীর্ণ মাত্রায় হলেও স্রোত বহমানে ভাটার টানে পানি নামায় এ বছর বর্ষা মৌসুমে বাড়ি ছাড়তে হয়নি তীরের অধিবাসীদের। ফলে ঘুরে দাড়ানোর স্বপ্ন বুনছেন তাঁরা।



২০০০ সালের সেপ্টেম্বর মাসের শেষের দিকে ভারত থেকে ধেয়ে আসা পানিতে সৃষ্ট বন্যার পর থেকেই কপোতাক্ষ নদ পানি উগ্রে দেয়। দীর্ঘদিন পলিবাহিত পানিতে কপোতাক্ষ নদের ভূ-পৃষ্ঠে পলি জমে নদের নব্যতা হারায়। বন্ধ হয়ে যায় কপোতাক্ষ নদের জোয়ার ভাটা। কপাল পোঁড়ে যশোর ও সাতক্ষীরা জেলার ৮ উপজেলার অন্তত ২’শ গ্রামবাসীর। প্রতিবছর বর্ষা মৌসুম এলেই এসব গ্রাম বাসীকে বাড়ীঘর ছেড়ে আশ্রয় নিয়ে হত অন্যত্র। নদের তীরবর্তী এসব গ্রামের নিন্মাঞ্চল জলাবদ্ধতার কারণে কোনো ফসল হয়নি। এক পর্যায়ে ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতাসীন হলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একনেকে নদের জন্য ২’শ ৬১ কোটি ৮৩ লক্ষ ৫৬ টাকা বরাদ্দ দেন। যার মধ্যে রয়েছে নদের ড্রেসিং, সাতক্ষীরা জেলার তালা উপজেলার পাখিমারা বিলের টিআরএম প্রকল্প, বেড়িবাধ নির্মাণ এবং উজানে নদী সংযোগে পদ্মা ও মাথাভাঙ্গায় সমন্বিত প্রকল্প। ইতিমধ্যে পাখিমারা বিলে টিআরএম, নদের ড্রোসিং ও বেড়িবাধ নির্মাণের কাজ হয়েছে। ফলে দীর্ঘ ১৮ বছর পরে নদের অধিবাসীরা নিজগৃহে বসবাস করে সফল ফলিয়েছেন। যশোর জেলার ঝিকরগাছা উপজেলার বল্লা গ্রামের রবিউল ইসলাম জানান, ২০০০ সাল থেকে বর্ষা মৌসুম এলেই পানিবন্দী জীবন যাপন করতে হত। বেড়িবাধ দেওয়ার আগে বাড়ি ছেড়ে উঁচু জায়গায় আশ্রয়ও নিতে হয়েছে কয়েক বছর। এ বছর বর্ষা কালে কোনো অসুবিধা হয়নি। একই গ্রামের ইজাহারুল ইসলাম, হবিবর রহমান, শহিদুল ইসলাম জানান, অনেক বছর পর এবার নদের তীরে আমন ধান হয়েছে। বৃষ্টি আর কপোতাক্ষ নদের উপচে পড়া পানিতে গত দেড়যুগ তাঁদের এসব জমিতে জলাবদ্ধতা ছিলো বলে তাঁরা দাবি করেন। সাতক্ষীরা জেলার তালা উপজেলার পাটকেলঘাটা এলাকার পারকুমিরা গ্রামের শেখ সাইফুল্লাহ আল মামুন জানান, গত ১৮ বছর পর কপোতাক্ষ নদে ক্ষীর্ণ মাত্রায় হলেও ¯্রােত প্রাবহে তীরবর্তীতে একদিকে যেমন ফসল হয়েছে অন্যদিকে নৌকা বাহনের স্বপ্ন দেখছেন মাঝিরা। ইতোমধ্যে তালার সরুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদ পাটকেলঘাটা বাজারে নদে দুইটি ইঞ্চিন চালিত বড় (দ্বিতলা) নৌকা দিয়ে ভ্রমনপিয়াসীদের আকৃষ্ট করেছেন। এ অবস্থায় পাড়বাসীদের স্বপ্ন কপোতাক্ষ নদ স্বযৌবনে পুরোদমে না ফিরলেও দখল মুক্ত হলে আরও সুবিধা পাওয়া যাবে। সরেজমিনে দেখা গেছে, নদের বহু স্থানে পুকুর কেটে, ভেড়িবাধ দিয়ে মাছচাষ। ভেঁসাল, পাটাতন, নেট দিয়ে পানি প্রবাহে বাঁধা ও কচুরিপনা আটকে রেখেছে মাছ শিকারের জন্য অসাধু ব্যক্তিরা। যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার বাঁকড়া ইউনিয়নের বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের আলহাজ্ব কওছার আলী গোলদার বলেন, একনেকের চলমান প্রকল্পে আমরা সুবিধা পেয়েছি। এখন আর বর্ষাকালে বাড়ি ছাড়তে হয় না। এবছর নিন্ম অঞ্চলে ফসল ও হয়েছে। তবে এই মুহুর্তে নদ দখলমুক্ত করা গেলে সুবিধা আরো বেশি হবে বলে তিনি আশাব্যক্ত করেন। এ বিষয় কপোতাক্ষ বাঁচাও আন্দোলন কমিটির আহ্ববায়ক অনিল বিশ্বাস জানান, নদ দখলমুক্তর সাথে সাথে উড়ানে নদী সংযোগে পদ্মা ও মাথাভাঙ্গার সাথে সমন্বিত প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে কপোতাক্ষ নদ স্বযৌবনে ফিরবে। নইলে ক্ষরা মৌসুমে শুকিয়ে যাওয়ার আশঙ্কাও করেন তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here