ধর্মঘটে ইন্টার্ন চিকিৎসকরা : কাঁদছে রোগীরা

0
473

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী : ইন্টার্ন চিকিৎসকদের টানা কর্মবিরতিতে ভেঙে পড়েছে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের চিকিৎসাসেবা। চিকিৎসাসেবা চলমান অনেক রোগীকে ছেড়ে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

অনেকেই ভর্তির পর পাননি চিকিৎসকের দেখা। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন রোগী ও স্বজনরা। অনেক রোগী যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছেন। সেই সঙ্গে স্বজনরা রোগীদের চিকিৎসা করাতে না পেরে কাঁদছেন। আবার কেউ কেউ চলে গেছেন অন্যত্র।

প্রচণ্ড পেটে ব্যাথা নিয়ে শনিবার রাতে রামেক হাসপাতালে ভর্তি হন হাফিজুর রহমান রাজু (২৬)। ওয়ার্ডের ভেতরে উৎকট দুর্গন্ধ। তাই ওয়ার্ড কিংবা ওয়ার্ডের বারান্দা ছেড়ে চলাচলের প্রধান পথে বিছানা পেতে শুয়েছিলেন তিনি। রোববার দুপুরে ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সামনে কথা হয় তার সঙ্গে।

রাজশাহী নগরীর শিরোইল এলাকার বাসিন্দা রাজু বলেন, ভর্তির পর রাতে একটা স্যালাইন আর কিছু ওষুধ লিখে দিয়েছিলেন ডাক্তার। রাতেই একজন নার্স ঝুলিয়ে দেন স্যালাইনটা। এরপর দেখা পাননি চিকিৎসকের।

নগরীর উপকণ্ঠ নওহাটা এলাকার ইকবাল হোসেন সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয়ে গত ২৭ ফেব্রুয়ারি। সেদিন থেকেই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তিনি।

অর্থোপেডিক ও সার্জারি বিভাগের ৩১ নম্বর ওয়ার্ডে গিয়ে ভর্তি ইকবাল জানান, তার পায়ের প্লাস্টার রোববার খোলার কথা ছিল। এরপর আবার এক্স-রে করা হতো। কিন্তু ইন্টার্নরা না থাকায় এসবের কিছুই হয়নি।

ভর্তি থেকেও চিকিৎসা না হওয়ায় জেলার বাগমারা উপজেলার বীরকোয়া গ্রামের বৃদ্ধ হারান উদ্দীনকে (৭০) হাসপাতাল থেকে বের করে নিয়ে যাচ্ছিলেন তার স্বজনরা।

নাতি ইকবাল হোসেন জানালেন, ওয়ার্ডে থাকলে রোগীর মৃত্যু দেখতে হবে। কাল থেকে ইন্টার্নরা ওয়ার্ডে যাননি। একজন চিকিৎসককে ওয়ার্ডে পাওয়া গেলেও তিনি সব রোগীকে সময় দিতে পারছেন না। তাই রোগী নিয়ে ক্লিনিকের পথ ধরেছেন তারা।

সড়ক দুর্ঘটনায় মারাত্মকভাবে আহত হয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জের রহনপুরের আব্দুর রহিম আটদিন ধরে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন হাসপাতালের ৮ নম্বর ওয়ার্ডে।

তিনি জানান, ধর্মঘটের কারণে এ দুই দিন চিকিৎসা হয়নি বললেই চলে। তিনি এখনো সুস্থ হননি। সোজা হয়ে দাঁড়াতেও পারছেন না। তারপরও চিকিৎসক তাকে ছাড়পত্র দিয়েছেন। এখন বাধ্য হয়ে তাকে বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হতে হবে।

এমন ভাষ্য পাওয়া গেলে ওই ওয়ার্ডেরই আরও কয়েকজন রোগী ও তাদের স্বজনদের মুখে। অনেকেই অসুস্থ রোগী নিয়ে বাড়িও ফিরেছেন বলে জানান তারা।

বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চার ইন্টার্ন চিকিৎসককে শাস্তির প্রতিবাদে দেশের বিভিন্ন স্থানের ইন্টার্ন চিকিৎসকরা কর্মবিরতি শুরু করেছেন। এতে একাত্মতা ঘোষণা করে শনিবার সকাল ৮টা থেকে রামেক হাসপতালের ইন্টার্নরাও কর্মবিরতিতে যান।

রোগীর স্বজনরা বলেছেন, ইন্টার্নরা না থাকায় ওয়ার্ডে একজন করে অতিরিক্ত চিকিৎসক পাঠানো হয়েছে। কিন্তু এই চিকিৎসক সব রোগীকে সময় দিতে পারছেন না। ফলে চিকিৎসার অভাবে ধুকছেন রোগীরা।

রোগীর স্বজনরাও পড়েছেন চরম ভোগান্তিতে। এ অবস্থায় অনেকেই রোগীর ছুটি নিয়ে চলে যাচ্ছেন বেসরকারি হাসপাতাল-ক্লিনিকে।

এমন ঘটনা জানা নেই ইন্টার্ন চিকিৎসকদের। নিজেদের এ নিয়ে তাদের কোনো দায় নেই দাবি করে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন ইন্টার্ন চিকিৎসক জানান, স্যাররা সকাল ৯টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করে চলে যান। এরপর রাতদিন খাটুনি খাটতে হয় তাদের।

কিন্তু বরাবরই রোগীর স্বজনরা তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগের আঙুল তুলছেন। অনেক সময় লাঞ্ছিতও করছেন। তারা কেবলই নিরাপদ পরিবেশ চান দায়িত্বপালনের।

তবে ইন্টার্ন চিকিৎসকদের কর্মবিরতি মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে বলে জানিয়েছেন, রামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এএফ এম রফিকুল ইসলাম।

তিনি জানান, শনিবার ইন্টার্ন চিকিৎসকরা সকাল থেকেই কাজে যোগদান করেননি। তবে রোগী দুর্ভোগের কথা ভেবে সেবার মান ঠিক রাখতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তারা।

এদিকে, চলমান আন্দোলনের অংশ হিসেবে দুপুরে রামেক হাসপাতালের সামনে মানববন্ধন করেছে ইন্টার্ন চিকিৎসকরা। রামেক ইন্টার্ন চিকিৎসক পরিষদের ব্যানারে এ মানববন্ধন হয়েছে।

রামেক হাসপাতাল ইন্টার্ন চিকিৎসক পরিষদের মুখপাত্র রায়হান শরীফ জানান, শনিবার সকাল ৮টা থেকে শুরু হওয়া এ কর্মবিরতি আগামী মঙ্গলবার সকাল ৮টা পর্যন্ত চলবে। এই সময়ের মধ্যে তাদের দাবিগুলো মেনে নিলে তারা কাজে ফিরবেন। তা না হলে সংগঠনের সিদ্ধান্ত মোতাবেক কর্মবিরতি আরও বাড়তে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here