ধানক্ষেত থেকে কৃষকের গলাকাটা লাশ উদ্ধার যশোরে

0
144

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরের চৌগাছার দক্ষিণ কয়ারপাড়া গ্রামের মাঠে নিজ ধানক্ষেত থেকে পিকুল হোসেন (৩২) নামে এক কৃষকের গলা কাটা ক্ষতবিক্ষত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তিনি উপজেলার দক্ষিণ কয়ারপাড়া গ্রামের সাকাওয়াত হোসেনের ছেলে। দুর্বৃত্তরা তাকে কুপিয়ে হত্যার পর লাশটি নিজের ধানক্ষেতে ফেলে গেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।
রবিবার গভীর রাতে লাশটি উদ্ধার করে পুলিশ।সোমবার সকালে সেটি ময়নাতদন্তের জন্য যশোর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।
নিহতের পিতা সাখাওয়াত হোসেন এবং স্ত্রী জুলেখা জানান, রবিবার দুপুরে খাবার খেয়ে পিকুল বাড়ি থেকে ধানের ক্ষেতে যায়। এরপর সন্ধ্যা পেরিয়ে গেলেও বাড়িতে না ফেরায় তাকে খুঁজাখুজি শুুে করে পরিবারের লোকজন। একপর্যায়ে রাত দশটার দিকে নিজেদের ধানক্ষেতে লাশ দেখে থানায় খবর দিলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে।
তারা আরো জানান, ছাগলে ক্ষেত খাওয়া নিয়ে প্রতিবেশি শাহাবুদ্দীনের ছেলেদের সাথে বিরোধ ছিল। এছাড়া কারোর সাথে কোনো ঝামেলা ছিলনা। ঘটনার দিন রবিবার দুপুরেও তাদের সাথে এ নিয়ে কথা কাটা কাটি হয়।
এঘটনায় জড়িত সন্দেহে গ্রামের চা বিক্রেতা শরিফুল ও ৯ম শ্রেণির ছাত্র আরিফুল নামে দুই সহ্দেরকে রাতে আটক করে পুলিশ। সোমবার সকালে এ ঘটনায় আটক দুই সহোদরসহ আরো আরো ৩/৪ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে চৌগাছা থানায় একটি হত্যা মামলা করেছেন নিহতের পিতা সাখাওয়াত হোসেন। মামলা নম্বর ৬।
এদিকে আটক শরিফুল ও আরিফুল ইসলামের মা রাশেদা বেগম অভিযোগ করে বলেন, বড় ছেলে শরিফুল সারাদিন চায়ের দোকানে ছিল। রাত ৯ টার দিকে বাড়ি ফিরে ঘরে ঘুমিয়ে পড়ে এবং আরিফুল চৌগাছা মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণির ছাত্র। সারাদিন স্কুলের এ্যাসাইনমেন্টের কাজ করেছে। রাতেও স্কুলের কাজ করতে করতে ঘুমিয়ে পড়েছিল। পুলিশ আমার ঘুমিয়ে থাকা নিরাপরাধ দুই ছেলেকে উঠিয়ে নিয়ে গিয়েছে।
চৌগাছা থানার ওসি রিফাত খান রাজীব বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে, ধারাল অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। নিহতের শরীরে একাধিক ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এঘটনায় হত্যা মামলা হয়েছে। কে বা কারা কি কারণে তাকে হত্যা করেছে তা এখনি সঠিকভাবে বলা যাচ্ছেনা। জড়িতদের শনাক্ত করে আটকের জন্য পুলিশের একাধিক টিম কাজ শুরু করেছে।