ধ্বংসস্তূপ থেকে জয় এনে দিলেন আফিফ-মিরাজ

0
67

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ধ্বংসস্তূপ থেকে ফিরিয়েছেন দলকে, গড়েছেন রেকর্ড জুটি। সপ্তম উইকেটে বাংলাদেশের আগের রেকর্ড (১২৭) টপকে নতুন রেকর্ড (১৭৪) গড়লেন আফিফ হোসেন ও মেহেদী হাসান মিরাজ। তাদের ব্যাটে চেপে জয়ের হাসি হাসল টাইগাররা। তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে আফগানিস্তানের দেওয়া ২১৬ রানের টার্গেট টপকে ৪ উইকেটের জয় পেয়েছে বাংলাদেশ।
কিছুদিন আগে চট্টগ্রামে এসে আলোচিত হয়েছিলেন মিরাজ। বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের দল চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের সঙ্গে ঝামেলায় জড়ান তিনি। সেই চট্টগ্রামেই আবার আলোচনায় মিরাজ। এবার যা করলেন তাতে রীতিমতো নায়ক বনে গেলেন। পরে চট্টগ্রাম দলের সঙ্গে মিরাজের বনিবনা হলে তার পরামর্শে আফিফ হোসেনকে অধিনায়ক করে বন্দরনগরীর দলটি। নেতৃত্ব পেয়ে বিপিএলে চট্টগ্রামকে প্লে-অফে তোলেন আফিফ। আজ নেতৃত্ব না দিলেও আফগানদের বিপক্ষে সামনে থেকে লড়লেন আফিফ। আফিফ-মিরাজের যুগলবন্দীতে বাংলাদেশ পেল রেকর্ড গড়া জয়।

স্বপ্নের মতো এক স্পেলে বাংলাদেশকে রীতিমতো কাঁপিয়ে দিয়েছিলেন ফজলহক ফারুকি। মাত্র দ্বিতীয় ওয়ানডে খেলতে নেমেছেন। স্বাগতিক দল তাকে সিলেবাসে রেখেছিল কি না কে জানে! রশিদ খান, মুজির উর রহমানদের আড়ালে রেখে এই ২১ বছর বয়সী ত্রাস ছড়ালেন।
বাঁহাতি পেসারের তোপে ২১৬ রান তাড়া করতে নেমেও কোমায় চলে যায় বাংলাদেশের ব্যাটিং লাইন। ৪৫ রানে হারিয়ে ফেলে ৬ উইকেট। সেখান থেকে আফিফ হোসেন ধ্রুব ও মেহেদী হাসান মিরাজ প্রাণ সঞ্চার করেন। সপ্তম উইকেটে রেকর্ড জুটি গড়ে দলকে এনে দেন দারুণ জয়।
২১৬ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে বাঁহাতি পেসার ফজলহক এলোমেলো করে দেন স্বাগতিক ব্যাটিং অর্ডার। ৪৫ রানেই ৬ উইকেট হারিয়ে খাদের কিনারে চলে যায় বাংলাদেশ। ইনিংসের তৃতীয় ওভারে দুই ওপেনার লিটন দাস (১) ও তামিম ইকবালকে (৮) তুলে নেন ফজলহক। পঞ্চম ওভারে ফিরে আবারো জোড়া উইকেট শিকার করেন তিনি। এবার তুলে নেন মুশফিকুর রহিম (৩) ও ইয়াসির আলী রাব্বীকে (০)। ইয়াসির অভিষেকে ডাক মারার তেতো স্বাদ পান। বাংলাদেশ মাত্র ১৮ রানে ৪ উইকেটে পরিণত হয়।
অষ্টম ওভারে বাংলাদেশ আবারো ধাক্কা খায়। এবার সাকিব আল হাসানকে (১০) বোল্ড করেন মুজিব উর রহমান। ১২তম ওভারে মাহমুদউল্লাহকে (৮) গুলবাদিন নাইবের হাতে ক্যাচে পরিণত করেন রশিদ খান। ফলে দলীয় ৫০ পূরণের আগেই ৬ উইকেট হারিয়ে দিশেহারা হয়ে পাড়ে টাইগাররা। সেখান থেকে দলকে টেনে তুলার দায়িত্ব কাঁধে নেন দুই তরুণ আফিফ ও মিরাজ। ৫৮ বলে ৫০ পূরণ করে এই জুটি। বাংলাদেশ ২১.৬ ওভারে দলীয় ১০০ পূরণ করে।
ড্রিংকস বিরতির সময় ৩০ ওভার শেষে বাংলাদেশের স্কোর ১৩০/৬। ড্রিংকসের পর ফিফটি তুলে নেন আফিফ। মিরাজও তার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে রান করতে শুরু করেন। মিরাজ ফিফটি তুলে নেওয়ার পর তার রান এগিয়েছে আফিফের সঙ্গে হাতধরাধরি করে।
এর আগে টাইগার বোলারদের চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেওয়ার মতো ব্যাটিং করতে পারেনি আফগানরা। নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়েছে দলটি। নাজিবুল্লাহ জাদরানের ৮৪ বলে ৬৭ ও রহমত শাহর ৬৯ বলে ৩৪ রানের পরও তাই ৪৯.১ ওভারে ২১৫ রানে থামে তারা।
টাইগারদের পক্ষে মোস্তাফিজুর রহমান সবচেয়ে সফল। ৯.১ ওভারে ৩৫ রান খরচায় ৩ উইকেট নেন তিনি। ২টি করে উইকেট নিয়েছেন তাসকিন, সাকিব ও শরিফুল। অন্য উইকেটটি মাহমুদউল্লাহর।
একই ভেন্যুতে সিরিজের পরের দুই ম্যাচ ২৫ ও ২৮ ফেব্রুয়ারি। এরপর ঢাকায় দুই ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলবে দুই দল।