নওয়াপাড়ায় রেলওয়ের জমি পতিত দেখিয়ে লিজ দেয়ার অভিযোগ

0
19

অভয়নগর প্রতিনিধি : যশোরের অভয়নগর উপজেলার চেঙ্গুটিয়া রেলওয়ে স্টেশনের সরকারি পরিত্যক্ত কোয়ার্টারসহ ডককে পতিত জমি দেখিয়ে লিজ দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। রেলওয়ের কতিপয় অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারী মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে অবসরপ্রাপ্ত এক কর্মচারীর ছেলেকে লিজ দিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সম্প্রতি ওই ডকে তিন প্রজন্ম থেকে বসবাস করে আসা রেলওয়ের মৃত ভ‚মিহীন কর্মচারীর পরিবারসহ বসবাসরত ৭টি ভ‚মিহীন পরিবারকে একজন লিজ গ্রহিতা উচ্ছেদের চেষ্টা চালাচ্ছেন। উচ্ছেদে ব্যর্থ হয়ে তিনি ওই পরিবারগুলোর সদস্যদের নামে থানায় মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির করে আসছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, চেঙ্গুটিয়া রেলওয়ে স্টেশন সংলগ্ন পরিত্যক্ত সরকারি কোয়ার্টার ও তার গা ঘেষে ৭টি পরিবার জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বসবাস করছে। এরই একপাশে বসবাস করছেন রেলওয়ে স্টেশনে কর্মরত কর্মচারীরাও। স্থানীয়রা জানায়, এই জায়গা পতিত দেখিয়ে রেলওয়ের সদ্য অবসরপ্রাপ্ত এক কর্মচারীর ভাতিজা অসাধু কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করে লিজ নিয়েছেন।

ডকে বসবাসরত রেলওয়ের সাবেক কর্মচারী শাহাজান মোল্যার স্ত্রী শাহিদা বেগম বলেন, বিয়ের পর থেকেই স্বামীর সাথে এখানে বসবাস করে আসছেন। ১৫ বছর আগে রেলওয়েতে কর্মরত অবস্থায় অসাবধানতাবশত শাবলের আঘাতে স্বামী ভূমিহীন শাহাজান মোল্যা মারা যায়। ৪ ছেলে মেয়ে নিয়ে তিনি সেখানেই বসবাস করে আসছেন। বর্তমানে তাদের জায়গা ছেড়ে দেয়ার জন্য নানা হুমকি ধামকি দেয়া হচ্ছে। এমনকি প্রাণনাশেরও হুমকি দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, রেলওয়ের পুলিশ পরিচয়ে দুজন এসেও তাদের জায়গা ছেড়ে দেয়ার জন্য হুমকি দিয়ে গেছে। স্বামী পরিত্যক্তা ও মা-বাবা হারা ভ‚মিহীন মিনা বেগম (৩২) ও তার ভাই মামুন (১৭) জানান, ডকের ওই ঘরেই তাদের জন্ম হয়েছে। তাদের বাপ-দাদারাও এখানে বসবাস করে গেছেন। আমাদের নামে এই জায়গার ডিসিআর করে দেয়ার কথা বলে প্রত্যেকের কাছ থেকে ১০ হাজার করে টাকাও নেয়া হয়েছে। কিন্তু পরবর্তীতে আমাদের লিজ দেয়া হয়নি। আমাদের জীবন গেলেও এই জায়গা ছেড়ে কোথাও যাবনা। একই অভিযোগ করেছেন, ডকে বসবাসরত সাবিহা, আকলিমা, ওমর সাদাত, লাভলিসহ অনেকেই।

যশোর রেলওয়ের ১৭ নম্বর কাচারির আমিন আব্দুল মতিন স্টেশনের ডকের জায়গা পতিত জমি দেখিয়ে লিজ দেয়ার কথা স্বীকার করেন। স্টেশনের ডক ও সরকারি কোয়ার্টারের জায়গা লিজ দেয়ার বিধান আছে কিনা এমন প্রশ্নে তিনি এ প্রতিবেদকের সাথে সাক্ষাতে কথা বলবেন বলে জানান।

নওয়াপাড়া রেলওয়ে স্টেশনে দায়িত্বরত পুলিশ কর্মকর্তা এসআই সোহাগ কুমার শর্মা বলেন, তিনি ওই পরিবারগুলোকে উচ্ছেদের জন্য হুমকি-ধামকি দেয়ার কথা অস্বীকার করে বলেন, যেহেতু জায়গাটি একজন লিজ নিয়েছে তার পক্ষে রেলওয়ে পুলিশ ওই জায়গায় যেতে পারে। তবে কাউকে হুমকি ধামকি দেয়া হয়নি।

রেলওয়ের পাকশি জোনের স্টেট অফিসার মো. নুরুজ্জামান জানান, ভুক্তভোগীরা অবৈধভাবে বসবাস করছে। তাদের আবেদন আমাদের অফিসে নিয়ে আসুক, দেখবো।