নওয়াপাড়া নদী বন্দরের সড়কর ও ঘাটের বেহাল দশা : সামান্য বৃিষ্টতেই জলাবদ্ধতা

0
88

রাজয় রাব্বি. অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি : যশোরের অভয়নগরে নওয়াপাড়া নৌবন্দরে যাওয়ার বিভিন্ন সড়ক ও বেশির ভাগ ঘাট ব্যাবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। দুই-একটা পন্টুন ও জেটি ছাড়া কিছুই নেই এই বন্দরে। এছাড়া একটু বৃষ্টি হলেই পুরো বন্দর জুড়ে সৃষ্টি হয় জলাবদ্ধতা।
জানা গেছে, ২০০৪ সালের মে মাসে নওয়াপাড়ার ভৈরব নদের তীরে গড়ে ওঠা বন্দরকে প্রথম শ্রেণির নৌ বন্দর হিসেবে গেজেটভুক্ত করে সরকার। কিন্তু ১৮ বছরেও প্রথম শ্রেণির নৌবন্দরটির তেমন কোন অবকাঠামো উন্নয়ন হয়নি। নানান দূর্ভোগ মাথায় নিয়েই বাণিজ্য কার্যক্রম চালিয়ে আসছেন ব্যবসায়ীরা। দেশ ও বিদেশ থেকে জাহাজ, কার্গো ও ট্রলার নৌপথে সার, সিমেন্ট, কয়লা, বালুসহ বিভিন্ন ধরনের খাদ্যশষ্য নিয়ে নওয়াপাড়ার নৌবন্দরের ঘাটে আসে। এসব পণ্য নৌবন্দর থেকে সড়ক পথে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে সরবরাহ হয়ে থাকে।
সরকারীভাবে ৯ টি ঘাট ইজারা দেওয়া হয়েছে। এছাড়া লাইসেন্সকৃত ৭৯টি ঘাট রয়েছে এই নদী বন্দরে। তবে বেশিরভাগ ঘাট চলাচলের অনুপযোগী। একটি পন্টুন ও আটটি জেটি ছাড়া কিছুই নেই এ নৌবন্দরে। একটু বৃষ্টি হলেই পুরো বন্দরজুড়ে সৃষ্টি হয় জলাবদ্ধতা। এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন বন্দরের ব্যবসায়ী, যানবাহনের শ্রমিক ও বন্দরে মালামাল বহনকারী শ্রমিকেরা।
নওয়াপাড়া সার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব আব্দুল গনি সরদার বলেন, নওয়াপাড়াকে প্রথম শ্রেণির নৌ বন্দর ঘোষণা করা হলেও এর রাস্তাঘাটের বেহাল অবস্থা। আমরা নিয়মিত খাজনা দিচ্ছি, কিন্তু তেমন কোনো সুবিধা পাচ্ছি না। এতে ব্যবসায়ীরা চরম ক্ষতির মধ্যে আছে। দ্রুত বন্দরে গাইডওয়াল করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করছি।
যশোর জেলা ট্রাক মালিক সমিতির সভাপতি মোঃ রেজাউল বিশ্বাস বলেন, নওয়াপাড়া নদী বন্দর থেকে সরকার প্রতিবছর কোটি কোটি টাকা রাজস্ব আয় করলেও বন্দরের উন্নয়নের কোনো কাজ করা হচ্ছে না। বন্দরের রাস্তাগুলোর অবস্থা খুবই খারাপ। প্রায়ই সময় যানবাহন বিকল হয়ে রাস্তা বন্ধ থাকে। তাই আশা করি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যেন এই রাস্তাগুলোর উপর সুদৃষ্টি দেয়।
নওয়াপাড়া নদীবন্দরের উপ-পরিচালক মোঃ মাসুদ পারভেজ বলেন, নৌবন্দরের রাস্তাঘাটের উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন সময়ে উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা পরিদর্শন করেছেন। ইতোমধ্যে বন্দরের রাস্তা সংস্কারসহ বিভিন্ন অবকাঠামো উন্নয়ন মূলক কাজের জন্য প্রায় ৪৩০ কোটি টাকার একটি প্রকল্প পাশ হয়েছে। আশা করছি দ্রুত সময়ের মধ্যে কাজ শুরু হবে।