নগ্ন করে ধর্ষিতাকে পরীক্ষা করলো পুরুষ পুলিশ

0
225

ম্যাগপাই নিউজ ডেক্স : ধর্ষণের বিচার চাইতে ১৪ বছরের মেয়েটিকে নিয়ে থানায় গিয়েছিলেন বাবা-মা। কিন্তু সেখানে যে তাদের জন্য আরও কঠিন বাস্তবতা অপেক্ষা করছে তা ধারণাও করতে পারেননি। পরীক্ষার নামে বাবা-মায়ের সামনে মেয়েটিকে নগ্ন করা হয়। আর সেটা করেন থানার পুরুষ পুলিশ সদস্যরা। এ ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই তুমুল হৈ চৈ পড়ে গেছে। ওই পুলিশ কর্মীদের শাস্তি চেয়ে রাস্তায় নেমেছে সাধারণ মানুষও।

টনাটি ঘটেছে ভারতের হরিয়ানার কৈথল থানায়। গত বছরের ২০ নভেম্বর বাবা-মায়ের সঙ্গে ধর্ষণের অভিযোগ জানাতে থানায় গিয়েছিল ১৪ বছরের ওই কিশোরী। তার বেশ কিছু দিন আগে তাকে ধর্ষণ করা হয় বলে অভিযোগ। তার পরে বেশ কিছু দিন শারীরিক ও মানসিক যন্ত্রণা, পাশাপাশি প্রকাশ্যে আসার লজ্জা নিয়ে নিজেকে সে গৃহবন্দি রেখেছিল। এসব ধকল সামলে উঠতে বেশ খানিকটা সময় পেরিয়ে যাওয়ার পর ওই কিশোরীর বাবা-মা তাকে নিয়ে থানায় হাজির হয়েছিলেন। একটাই দাবি ছিল, ধর্ষকদের কঠোর শাস্তি চাই। কিন্তু, ভাবতেও পারেননি থানায় এসে তাদেরকে আরও কঠিন পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হবে।

সেখানে ধর্ষণের প্রমাণ দেখতে চান এক পুরুষ পুলিশকর্মী! শুধু দেখতে চেয়েই ক্ষান্ত হলেন না, ওই কিশোরীকে নগ্ন হয়ে দাঁড়াতে বললেন। পুলিশের সেই হুকুম তামিল করতে না চাওয়ায়, বাবা-মায়ের সামনেই জোর করে তাকে পোশাক খুলতে বাধ্য করা হয়। এখানেও থামেনি পুলিশের প্রমাণ নেওয়ার পালা। আদৌ ধর্ষণ করা হয়েছে কি না তা পরীক্ষা করে দেখতে এর পর কিশোরীর শরীরের বিভিন্ন জায়গায় হাত দেন ওই পুলিশকর্মী। আর সবটাই করা হয় থানার ভিতরে, অন্য কয়েক জন পুলিশ কর্মীর সামনে!

গোটা ঘটনাটির কথা জানিয়ে পঞ্জাব-হরিয়ানা হাইকোর্টে পিটিশন দাখিল করেন ওই কিশোরীর বাবা। এই অভিযোগের কথা প্রকাশ্যে আসতেই গোটা দেশ জুড়ে সমালোচনার ঝড় বইতে শুরু করে। থানায় ওই দিন ঠিক কী হয়েছিল, তা অবিলম্বে জানাতে গত সোমবার হরিয়ানা পুলিশের ডিজিকে নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট। এর পর মঙ্গলবার রাজ্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ওই ঘটনা তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে। রাজ্যের অতিরিক্ত স্বরাষ্ট্র সচিব রাম নিবাস জানান, ঘটনাটি সত্যিই মারাত্মক! ওই কিশোরীর অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here