নতুন শুল্কের পেঁয়াজ এলো, দাম বাড়বে আরো

0
111

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : পেঁয়াজ রপ্তানির ওপর ৪০ শতাংশ শুল্ক আরোপ করেছে ভারত। এ খবরেই গতকাল রবিবার থেকে দেশের বাজারে পেঁয়াজের দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। এবার ভারতের আরোপিত ৪০ শতাংশ শুল্ক দিয়ে আমদানি শুরু হয়েছে পেঁয়াজ।

রবিবার (২০ আগস্ট) সাতক্ষীরার ভোমরা বন্দরে আমদানি হয় নতুন শুল্কযুক্ত পেঁয়াজ।

সোমবার (২১ আগস্ট) বিকেল ৫টা পর্যন্ত পাঁচ ট্রাক পেঁয়াজ আমদানি করা হয়। তার আগে পুরনো শুল্কে ১৬ ট্রাক পেঁয়াজ আমদানি হয়েছে এই বন্দর দিয়ে।
ভোমরা শুল্ক স্টেশনের তথ্য কর্মকর্তা শান্ত হাওলাদার কালের কণ্ঠকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

নতুন শুল্ক আরোপে আমদানি খরচ বৃদ্ধি পেয়েছে ব্যবসায়ীদের।

এর প্রভাব পড়বে বাজারে। পেঁয়াজের কেজি ৮০ টাকা ছাড়ানোর সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।
ভোমরা স্থলবন্দর সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মাকসুদ খান কালের কণ্ঠকে বলেন, ভারতীয় অর্থ মন্ত্রণালয়ের রাজস্ব শাখা ১৯ আগস্ট পেঁয়াজের ওপর নতুন শুল্ক আরোপ করে। এতে শুল্ক উন্নীত হয়েছে শতকরা ৪০ টাকায়।

এখন যেটা হলো, প্রতি কেজি পেঁয়াজ আমদানি করতে খরচ হবে ৬৬ থেকে ৬৭ টাকা। সুতরাং ভোমরা স্থলবন্দরেই পেঁয়াজ বিক্রি করতে হবে কমপক্ষে ৭০ টাকা। খুচরা পর্যায়ে পেঁয়াজ ৭৫ থেকে ৮০ টাকা ছাড়ানোর সম্ভাবনা রয়েছে।
তিনি আরো বলেন, শুল্ক বৃদ্ধির আগে ২৩০ ডলারের পেঁয়াজ আমদানি করতে হয়েছে ২৪৫ থেকে ২৫৫ মার্কিন ডলারে। এ ছাড়া অন্যান্য খরচসহ ৫৫ টাকার নিচে পেঁয়াজ বিক্রির সুযোগ ছিল না।

এবার নতুন শুল্কে আমদানি করা পেঁয়াজ ৭০ টাকার নিচে বিক্রি করলে আমদানিকারকরা টিকতে পারবেন না।
সরেজমিনের দেখা যায়, সাতক্ষীরা শহরের সুলতানপুর বড়বাজারে ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৬৫ থেকে ৭০ টাকায়। খুচরা ব্যবসায়ীরা ভোমরা স্থলবন্দর থেকে পাইকারি পেঁয়াজ কিনছেন ৫৮ থেকে থেকে ৬০ টাকায়। দুই দিনের ব্যবধানে পেঁয়াজের দাম ১০ থেকে ১৫ টাকা বেড়ে যাওয়ায় ক্ষুব্ধ ক্রেতারা।

সুলতানপুর বড়বাজারের ব্যবসায়ী সাইফুল ইসলাম জানান, তারা আড়ত থেকে পেঁয়াজ কিনছেন ৫৮ থেকে থেকে ৬০ টাকায়। পরিবহন ভাড়া ও শ্রমিক খরচ যোগ করে তাদের পেঁয়াজ বিক্রি করতে হচ্ছে ৬৫ থেকে ৭০ টাকায়।

কাটিয়া আনন্দপাড়ার রহিমা খাতুন বলেন, ‘একটি কলেজে পিয়নের চাকরি করি। কাঁচা মরিচ থেকে পেঁয়াজসহ সব জিনিসের দাম বেড়েছে। দাম বাড়ায় ঝালের তরকারিও কম ঝালে খাচ্ছি। এবার পেঁয়াজের দাম বেড়ে যাওয়ায় সপ্তাহে এক কেজির পরিবর্তে ৫০০ গ্রামে কাজ মেটাতে হবে।’