নদী ও খাল রক্ষায় কঠোর হউন

0
226

নগরজীবনে বেদখলকৃত নদী, খাল ও প্রাকৃতিক জলাধার উদ্ধার ও সংরক্ষণের গুরুত্ব এখন প্রায় সকলেই স্বীকার করিতেছেন। উপর্যুপরি জলাবদ্ধতার কারণে বিষয়টি বর্তমানে একরকম গণদাবিতেও পরিণত হইয়াছে বলা যায়। অন্যদিকে নগরীর প্রতিবেশ রক্ষা ও জলাবদ্ধতা দূরীকরণে রহিয়াছে সিটি করপোরেশনসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন কর্তৃপক্ষের বহু আশ্বাসও। কিন্তু এতদসত্ত্বেও বাস্তবতা যেন ভিন্ন কথাই বলে। বিভিন্ন কর্তৃপক্ষের অবহেলা, নাগরিক অসচেতনতা ও স্বার্থান্বেষী মহলের পেশী শক্তির দাপটে দিনে দিনে এই সকল জলাধারের অবস্থা ক্রমেই আরো শোচনীয় হইয়া পড়িতেছে। সম্প্রতি পত্রিকান্তরে প্রকাশিত প্রতিবেদন হইতে জানা যায়, রাজধানী ঢাকার ধোলাই খালসহ একাধিক খাল বর্জ্যের কবলে পড়িয়া ময়লার ভাগাড়ে পরিণত হইয়াছে। মানিকগঞ্জের একটি খালের অবস্থাও অনেকটা একই রকম। তাহা ছাড়া বুড়িগঙ্গার চীন মৈত্রী সেতুর দক্ষিণ প্রান্ত দখল করিয়া অবাধে চলিতেছে ইট, বালু, সিমেন্ট, পিট কয়লা ও মাটির বাণিজ্য।

খাল বা যেই কোনো প্রাকৃতিক জলাধার দখল করা আইনত নিষিদ্ধ। কিন্তু এই অবৈধ কাজের সহিত যখন খোদ সরকার-সংশ্লিষ্ট কোনো প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তির সম্পৃক্ততার কথা শোনা যায়, তখন হতাশ হইতে হয় বৈকি। অভিযোগ রহিয়াছে, অবৈধ দখলদাররা বিআইডব্লি­উটিএ’র কতিপয় কর্মকর্তা ও কর্মচারীকে নিয়মিত মাসোহারা দিয়াই বুড়িগঙ্গার তীরে তাহাদের অবৈধ বাণিজ্য টিকাইয়া রাখিয়াছে। তাহা ছাড়া নগরীর অবৈধ খাল দখলের সহিত নগর উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ ও সিটি করপোরেশনেরও সংশ্লিষ্টতা রহিয়াছে বলিয়া জানা যায়। উপরন্তু তাহাদের পরিচালিত বিভিন্ন অভিযানের ব্যাপারেও জনমনে অসন্তোষ রহিয়াছে। স্থানীয়রা মনে করেন, তাহাদের পরিচালিত অধিকাংশ অভিযানই লোক দেখানো ব্যাপার মাত্র। কেননা, অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করিবার ক্ষণকাল পরেই আবার সেইখানে দখলদারদের দৌরাত্ম্য বাড়িয়া যায়। এই ক্ষেত্রে নূতন নূতন দখলদারদের অভিনব পন্থাও লক্ষ্য করিবার মত। কেহ কেহ প্রবহমান খালের উপর মাচা বানাইয়া তাহা নিম্ন আয়ের মানুষদের ভাড়া দিয়া থাকে। এক সময় ভাড়াটেদের দৈনন্দিন নিক্ষিপ্ত বর্জ্যের কারণে সংশ্লিষ্ট খালটি ভরিয়া যায়।

জলাবদ্ধতার মত দুর্যোগ হইতে রক্ষা পাইতে হইলে বেদখল হইয়া যাওয়া খালগুলি উদ্ধার ও সংস্কারে সর্বশক্তি নিয়োগ করাই জরুরি বলিয়া প্রতীয়মান হয়। এই ব্যাপারে সিটি করপোরেশন ও ওয়াসাসহ সংশ্লি­ষ্ট সকল সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানকে আরো সক্রিয় হইতে হইবে। প্রয়োজনে খালগুলি উদ্ধারের পর ইহার সংরক্ষণ ও রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব অন্য কোনো একক কর্তৃপক্ষকেও দেওয়া যাইতে পারে। কেননা, খালগুলি উদ্ধারের পর ইহার দুইপাড় বাঁধাই করিয়া নিয়মিত তদারকি, পরিচর্যা ও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার ব্যবস্থা করা না গেলে পরিস্থিতি পরিবর্তন সুদূরপরাহতই বলা চলে। নগরীকে পরিবেশবান্ধব হিসাবে গড়িয়া তুলিতে জলাধারের দুই পাড়ে সবুজ বেষ্টনী গড়িয়া তুলিবারও প্রয়োজনীয়তা রহিয়াছে। একইসঙ্গে বুড়িগঙ্গাসহ রাজধানীর চারিপার্শ্বের নদীগুলি খনন ও দখলমুক্ত করিবার প্রয়োজনীয়তাও অনস্বীকার্য। আমরা এই ব্যাপারে জরুরি ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সরকারের নীতিনির্ধারক মহলের দৃষ্টি আকর্ষণ করিতেছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here