নদ-নদী রক্ষায় দ্রুত কার্যকর ব্যবস্থা নিন

0
235

ভারতে হিন্দু সমপ্রদায়ের নিকট পবিত্র নদী বলিয়া বিবেচিত গঙ্গা এবং যমুনাকে সমপ্রতি ‘জীবন্ত মানবিক সত্তা’ বলিয়া ঘোষণা করিয়াছেন হিমালয় রাজ্য উত্তরাখণ্ডের হাইকোর্ট। রায়ে বলা হইয়াছে যে, এই দুই নদীকে যদি ‘জীবন্ত মানবিক সত্তা’ হিসাবে গণ্য করা হয়, তাহা হইলে ইহার রক্ষণাবেক্ষণ ও দূষণ রোধে সহায়ক হইবে। এইজন্য হাইকোর্ট নদী দুইটি রক্ষায় দুইজন সরকারি কর্মকর্তাকে নিয়োগ দিয়াছেন আইনগত অভিভাবক হিসাবে। ফলে এখন হইতে এই দুইটি নদীতে ময়লা-আবর্জনা ফেলা বা অন্যভাবে দূষণ করা একজন মানুষের ক্ষতি করিবার সমতুল্য বলিয়া বিবেচিত হইবে এবং আইনি অভিভাবকদ্বয় তাহাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করিতে পারিবেন। ইহার মাত্র এক সপ্তাহ আগে নিউজিল্যান্ডের ওয়াংগানুই নদীকেও একজন ব্যক্তির সমান আইনি অধিকার দেওয়া হয়। নিউজিল্যান্ডের অধিবাসীদের দীর্ঘ দেড়শত বত্সরের লড়াইয়ের পর তাহাদের নিকট পবিত্র বলিয়া গণ্য নদীটিকে ‘মানবীয় সত্তার’ স্বীকৃতি দেওয়া হয়।

নদী মানুষের অস্তিত্বের সহিত জড়িত। পৃথিবীর বহু বিখ্যাত সভ্যতা গড়িয়া উঠিয়াছে নদীকে কেন্দ্র করিয়া। কিন্তু একসময় নদী রক্ষা করিবার কথা মনে থাকে না অনেকেরই। আমরা তখন নির্দয়ভাবে নদীগুলিকে দখল-দূষণে জর্জরিত করিয়া ইহার অপমৃত্যু ডাকিয়া আনি। এভাবে বাংলাদেশেরও অনেক নদী মানচিত্র হইতে হারাইয়া গিয়াছে। এইজন্য দায়ী কিছু মানুষের অবিবেচনাপ্রসূত কর্মকাণ্ড ও অদূরদর্শিতা। কাগজে-কলমে শাখা-প্রশাখাসহ প্রায় ৮০০ নদ-নদী বিপুল জলরাশি নিয়া ২৪ হাজার ১৪০ কিলোমিটার জায়গা জুড়িয়া জালের মতো ছড়াইয়া থাকিবার কথা বলা হইলেও বর্তমানে সচল নদীর সংখ্যা ৪০৫টি। নদীগুলির জীর্ণ-শীর্ণ দশায় নদীকেন্দ্রিক জীবন-জীবিকা ও সংস্কৃতি এখন বিলুপ্তপ্রায়। এমতাবস্থায় জীবন-জীবিকা রক্ষায় ভূ-উপরিস্থ মিঠা পানির উত্স হিসাবে নদ-নদীগুলিকে আগে বাঁচাইতে হইবে। এইসব নদ-নদী বাঁচিলে বাঁচিবে বাংলাদেশও।

বাংলা সাহিত্যের শক্তিশালী ঔপন্যাসিক সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ বহু আগেই লিখিয়া গিয়াছেন ‘কাঁদো নদী কাঁদো’ নামের একটি কালজয়ী উপন্যাস। আমাদের নদীগুলি মানুষের নির্বিচার অত্যাচারে যেন নিরন্তর ডুকরাইয়া ডুকরাইয়া কাঁদিয়া মরিতেছে। তাই যে সব নদী জরাজীর্ণ অবস্থায় আছে— ড্রেজিং, নদীর দুই পাড় সংরক্ষণ, পানির দূষণ রোধে ময়লা-আবর্জনা ও বিশেষত ক্ষতিকর বর্জ্য ও পলিথিন ব্যাগ উত্তোলনের মাধ্যমে এই নদীগুলির প্রাণপ্রবাহ রক্ষা করা জরুরি। কিন্তু এই কাজ অত্যন্ত ব্যয়বহুল। আমরা অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে দিন দিন উন্নতি লাভ করিলেও এমন বৃহত্তর কর্মসূচি বাস্তবায়নে আমাদের সম্পদের সীমাবদ্ধতা রহিয়াছে বৈকি। এই সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বরাবরই খাল-বিল, নদী-নালা খননের ব্যাপারে গুরুত্বারোপ করিয়া আসিতেছেন। এই ব্যাপারে বরাদ্দও দিতেছেন যথারীতি। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রে প্রত্যাশা অনুযায়ী কাজ হইতেছে না বলিয়া অভিযোগ রহিয়াছে। আবার ড্রেজিং করিবার কয়েক মাস বা বত্সরের মধ্যে পলিমাটিতে তাহা ভরাট হইয়া যাইতেছে। অতএব, অন্তত বড় বড় নদীগুলিকে স্থায়ীভাবে রক্ষা ও সংরক্ষণের জন্য আলাদাভাবে গুরুত্বারোপ করা প্রয়োজন। এই সংক্রান্ত প্রকল্প বাস্তবায়নে প্রয়োজন বাড়তি নজরদারি। একইভাবে নদ-নদীকে দখল-দূষণের হাত হইতে রক্ষায় এবং এই ব্যাপারে গণসচেতনতা সৃষ্টিতে কোনো কোনো নদীর ‘মানবীয় সত্তার’ স্বীকৃতির প্রয়োজনীয়তাও অনস্বীকার্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here