নবীদের সম্পর্কে কটুক্তি করায় যশোরের এক শিক্ষককে বহিষ্কার

0
110

অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি : যশোরের অভয়নগরে ইসলাম ধর্মের নবীদের নিয়ে কটুক্তি করায় নিউটন সরকার নামে এক সহকারী শিক্ষককে সাময়িক বহিষ্কার করেছে বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদ। রবিবার (২৯ জানুয়ারি) দুপুরে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেন।
নিউটন সরকার উপজেলার দেয়াপাড়া মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের জীব বিজ্ঞান বিভাগের সহকারী শিক্ষক। তিনি যশোরের মণিরামপুর উপজেলার বাহাদুরপুর গ্রামের দীলিপ সরকারের ছেলে।
সরেজমিনে রবিবার দুপুরে দেয়াপাড়া মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, শিক্ষার্থী, অভিভাবক, এলাকাবাসী ও বিভিন্ন ধর্মীয় দলের শতশত নেতাকর্মীরা স্কুলের মাঠে ওই শিক্ষাকের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করছে।
এসময় ৮ম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা জানায়, গত বুধবার (২৫ জানুয়ারি) বিজ্ঞান ক্লাস নেওয়ার সময় শিক্ষক নিউটন সরকার বলেছিলেন, ‘ইসলাম ধর্মে নবীরা ছিল কি না আমি জানিনা। বিজ্ঞান এসব বিশ্বাসও করে না। বানর থেকে মানুষের জন্ম।’ এ ঘটনার পর ওই শিক্ষকের বহিষ্কার দাবি করলে প্রধান শিক্ষক বিষয়টি দেখবেন বলে তাদের বাড়ি চলে যেতে বলেন। তারা আরো জানায়, বৃহস্পতিবার স্বরসতী পূজা, শুক্র ও শনিবার সরকারি ছুটি থাকায় স্কুল বন্ধ ছিল। রবিবার স্কুল খোলার পর নিউটন সরকারের শাস্তির দাবিতে সব শ্রেণির শিক্ষার্থীরা ক্লাস থেকে বেরিয়ে বিক্ষাভ শুরু করে। এক পর্যায়ে অভিভাবক, এলাকাবাসী ও বিভিন্ন ধর্মীয় দলের নেতাকর্মীরা মাঠে উপস্থিত হয়। দুপুরে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা, অভয়নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি), স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সদস্যদের অংশগ্রহণে জরুরী সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভা শেষে নিউটন সরকারকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে বলে ঘোষণা করা হলে আন্দোলন স্থগিত করা হয়।
বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি লুৎফর রহমান জানান, সহকারী শিক্ষক নিউটন সরকারের বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের আনিত অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তাকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে সহকারী শিক্ষক নিউটন সরকার নবীদের কটুক্তি করার বিষয় অস্বীকার করে বলেন, ‘গত বুধবার ৮ম শ্রেণির বিজ্ঞান ক্লাসে বিজ্ঞানের বাস্তবতা সম্পর্কে কথা বলেছি। দেবদেবী ও নবীদেরকে শ্রদ্ধা এবং বিশ্বাসের সঙ্গে সম্মান দেওয়ার কথা বলেছিলাম। শিক্ষার্থীরা আমার কথা পরিবর্তন করেছে। কেন বা কি কারণে তারা এমন করেছে আমি বুঝতে পারছিনা। ধর্মীয় বিষয়ে কথা বলা আমার ভুল হয়েছে।’
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম জানান, ঘটনা তদন্তে তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। তিন কর্মদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। ওই শিক্ষককে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।