নব্য জেএমবির নতুন প্রধান আইয়ুব বাচ্চু

0
221

ঢাকা প্রতিনিধি: মুসা নিহত হওয়ার পর আইয়ুব বাচ্চু এখন নব্য জেএমবির প্রধান বলে জানিয়েছে পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিট। তাঁর তিন সহযোগীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাঁরা হলেন মনির হোসেন ওরফে সুমন, তৌহিদুল ইসলাম ওরফে তুহিন ও কামাল হোসেন। প্রথম দুজনকে গত শনিবার সাভার থেকে এবং কামালকে লক্ষ্মীপুরের রায়পুর থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে পুলিশ জানায়।

গতকাল রোববার ঢাকা মহানগর পুলিশের মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলন করে তাঁদের গ্রেপ্তারের বিষয়টি জানায় কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম। তিনি বলেন, নব্য জেএমবির প্রধান মইনুল ওরফে মুসা মৌলভীবাজারের বড়হাটের জঙ্গি আস্তানায় নিহত হন। এরপর সংগঠনের হাল ধরেন আইয়ুব বাচ্চু। এটা তাঁর ছদ্মনাম। তিনি সাভারেই থাকতেন। গত ২৭ ও ২৮ মে সাভারে যে দুটি বাড়িতে পুলিশ অভিযান চালিয়েছিল, তার একটিতে থাকতেন আইয়ুব বাচ্চু। অভিযানের সময় বাড়িতে ছিলেন না। অভিযানের খবর পেয়ে জঙ্গি মনির হোসেন দ্রুত আইয়ুব বাচ্চুর স্ত্রীকে অন্যত্র সরিয়ে দেন।

আইয়ুব বাচ্চু যে এখন নব্য জেএমবির নেতৃত্ব দিচ্ছেন, তা কীভাবে নিশ্চিত হলেন—জানতে চাইলে মনিরুল ইসলাম বলেন, তামিম চৌধুরী নিহত হওয়ার পর নব্য জেএমবির দায়িত্ব নেন সারোয়ার জাহান। সারোয়ার নিহত হওয়ার পর নেতৃত্বে আসেন মইনুল ওরফে মুসা। মৌলভীবাজারের বড়হাটে পুলিশের অভিযানে মুসা নিহত হন। এরপর নেতৃত্বে আসেন আইয়ুব বাচ্চু।

মনিরুল বলেন, কথিত এই আইয়ুব বাচ্চু মূলত তৃতীয় বা চতুর্থ সারির নেতা। তিনি মুসার সহযোগী ছিলেন। মুসা যখন সংগঠনের আমির ছিলেন, তখন বাচ্চু ছিলেন নায়েবে আমির। মুসা নিহত হওয়ার পর নেতৃত্বশূন্যতায় বাচ্চুকেই হাল ধরতে হয়। বিভিন্ন ধরনের গোয়েন্দা তথ্য বিশ্লেষণ করে তাঁরা এই সিদ্ধান্তে এসেছেন যে, আইয়ুব বাচ্চুই তাঁদের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। তাঁর বয়স ২৬ থেকে ২৭-এর মধ্যে। বাচ্চুর ছবিও পুলিশ পেয়েছে।

আইয়ুব বাচ্চু সিলেটে ছিলেন

সংবাদ সম্মেলনের পর সংশ্লিষ্ট পুলিশের একাধিক কর্মকর্তা বলেন, গত মার্চ মাসে সিলেটের আতিয়া মহলে অভিযানের সময় আইয়ুব বাচ্চু সিলেটেই ছিলেন। তাঁর বাসা ছিল আতিয়া মহলের কাছাকাছি। সেখানে তাঁর একটি সন্তানও হয়। আতিয়া মহলে অভিযানের পরে তিনি পরিবার নিয়ে পালিয়ে সাভারের গেন্ডা এলাকার বাসায় ওঠেন।

ওই কর্মকর্তারা জানান, আইয়ুব বাচ্চু ঢাকার একটি ভালো কলেজে পড়তেন। পরে একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন। তবে পড়াশোনা শেষ করার বছর দুয়েক আগেই তিনি জঙ্গিবাদে যুক্ত হয়ে ঘর ছাড়েন।

আনসারুল্লাহ থেকে নব্য জেএমবিতে কামাল

গ্রেপ্তার কামাল জঙ্গিবাদে জড়িয়েছেন আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের পলাতক নেতা জুন্নুন শিকদারের মাধ্যমে। ২০১১-১২ সালের দিকে জুন্নুন আতরের ব্যবসা করতেন। কামাল তখন কসমেটিকসের ব্যবসা করতেন। ঢাকার চকবাজারে দুজনের পরিচয় হয়। জুন্নুনের হাত ধরে আনসারুল্লাহ বাংলা টিমে যোগ দেন কামাল। পরে তিনি নব্য জেএমবিতে আসেন। কামাল পরে একটি প্রসাধনী তৈরির কারখানায় চাকরি নেন। সম্প্রতি চাকরি ছেড়ে নিজেই ‘নাইস কসমেটিকস’ নামে একটি কারখানা খোলেন। সেখানে সেলুনে ব্যবহৃত সরঞ্জামাদি তৈরি হতো। কামালের ভগ্নিপতি হাসানও নব্য জেএমবির সদস্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here