“নানা অনিয়ম, অব্যাবস্থাপনার মধ্যে খুড়িয়ে খুড়িয়ে চলছে বেনাপোল বন্দর। সরকার অধিক রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে”

0
276

আরিফুজ্জামান আরিফ: বন্দর নগরী বেনাপোলে আধুনিকতার ছোয়া না থাকায় সরকারের রাজস্ব আদায়ে লক্ষমাত্রা অর্জিত হচ্ছে না। নানা সমাস্যায় জর্জরিত।এখানে পন্যজট লেগেই আছে।জনভোগান্তি চরমে।

এশিয়া মহাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম স্থল বন্দর বেনাপোল ।প্রতি বছর এখান থেকে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে সরকারের ১০ হাজার কোটি টাকা রাজস্ব আদায় হলেও বন্দর অবকাঠামোর কোন উন্নতি হয়নি। চট্রগাম বন্দরের পর দেশের এই বন্দরটিতে আধুনিকতার কোন ছোয়া না লাগায় ব্যবসায়ীরা হতাশা প্রকাশ করছে। আমদানী পন্যে সার্বক্ষনিক যানজট লেগেই থাকে।

নানা অনিয়ম,অব্যাবস্হাপনার মধ্যে খুড়িয়ে খুড়িয়ে চলছে এ স্হল বন্দর। এতে ব্যবসায়ীরা যেমন ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে তেমনি সরকার অধিক রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

বেনাপোল বন্দর ব্যবহারকারী ব্যবসায়ীরা বলছে,দীর্ঘদিন বেনাপোল বন্দরের এ অবস্থা সৃষ্টির জন্য তাদের আমদানি কৃত পন্য এনে নানবিধ সমস্যায় পড়তে হচ্ছে।
অপরদিকে বেনাপোল বন্দর কর্তৃপক্ষ বলছে, বন্দরের সমস্যা দ্রুত সমাধান করার জন্য উপরি মহলকে অবগত করা হয়েছে।

দেশের ২২ টি স্থল বন্দরের মধ্যে বর্তমানে ১১ টি চালু রয়েছে। এর মধ্যে গুরুত্ব পূর্ন বেনাপোল বন্দর। বন্দরটি ১৯৭২ সালে অবস্থিত। ব্যবসা বানিজ্যর জন্য ও কলকাতার সাথে যোগাযোগ ব্যবস্থা ও ভাল এ বন্দরে। মাত্র ২ থেকে ৩ ঘন্টায় কলকাতা থেকে পন্য নিয়ে আসা যায় এই বন্দরে।

বন্দর ওয়্যারহাউজের ভিতর সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায় রাস্তাঘাট ও পন্যগারের বেহাল দশা। যেখানে ৩৬ হাজার মেট্রিক টন পন্য রাখা যায় সেখানে চাপাচাপি করে রাখতে হচ্ছে ১ লাখ টন এর উপরে। জায়গা সংকটের কারনে অপরিকল্পিত ভাবে রয়েছে পন্য। রেল লাইনের খাদে পড়ে রয়েছে আমদানিকৃত পন্য। ওয়্যারহাউজের ভিতর সামান্য পানি হলে হাটু পানি হয়ে দাঁড়ায়। কাদায় হাটা চলা যায় না। সব মিলিয়ে একটি হ জ ব র ল অবস্থা।

রাত দিন বন্দর এলাকায় পন্যজট লেগে থাকে। যার ফলে রাস্তায় সারাদিন যানজটের কারনে মানুষ চলাচল করতে পারে না। বন্দরে কোন সিসি ক্যামেরা না থাকায় চুরির প্রবনতা বৃদ্ধি পেয়েছে। যার বহিঃপ্রকাশ আনসার সদস্য দুস্কৃতকারীদের আঘাতে নিহত হয়েছে। এরপরও বন্দর কর্তৃপক্ষ কোন ব্যাবস্থা না নেওয়ায় জনমনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে নানা মুখী প্রশ্ন।

বেনাপোল বন্দরে জনবল সংকটের কারনে বহিরাগত দৌরাত্ম্য বৃদ্ধি পেয়েছে। প্রতিটি শেডে দেখা গেছে ষ্টোর কিপাররা ১/২জন করে লোক রেখে দিয়েছে তাদের কাজের সুবিধার জন্য। আর এতে চুরি বৃদ্ধি পাচ্ছে।

বন্দরের সামনে একাধিক দোকান গড়ে উঠেছে।সেখানে বন্দরের আমদানিকৃত পন্য কিনতে পাওয়া যায়। নানা ধরনের অব্যবস্থাপনার কারনে ব্যবসায়ীদের লোকসান গুনতে হচ্ছে। ইতিমধ্যে অনেকে এ বন্দর ছেড়ে অন্য বন্দরে চলে গেছে। যার ফলে বেনাপোল কাষ্টমস হাউজ পর পর ৪ বছর তাদের লক্ষমাত্রা পুরন করতে পারছে না।
অপরদিকে বেনাপোল বন্দরের বিপরীতে ভারতের পেট্রোপোল বন্দরে বানিজ্য সম্প্রসারনের জন্য রয়েছে অত্যাধুনিক সিসি ক্যামেরা। পুরা ওয়্যারহাউজ জুড়ে রয়েছে শীততাপ নিয়ন্ত্রিত ব্যাবস্হা। নিরাপত্তা প্রহরায় রয়েছে সীমান্ত রক্ষী বাহিনী বিএসএফ। চোরাচালান প্রতিরোধে রয়েছে সিসি ক্যামেরার পাশাপাশি অত্যাধুনিক স্ক্যানিং মেশিন। অথচ বেনাপোল বন্দর এলাকায় এ সমস্ত কোন কিছুর অস্তিত্ব নেই।ফলে যা হবার তাই হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here