নামমাত্র পরীক্ষা নেন যশোর বিআরটিএ, পাশ করানোর দায়িত্ব ইজারাদারদের

0
151

ডি এইচ দিলসান : তিনশ স্কয়ার ফিট জায়গায় ৩৩১ জনের রিটেন পরীক্ষা। তাউ আবার নেই কোন বেঞ্চ, নেই মাথার ওপর ছাদও। চট দিয়ে ঘেরা লাইট ফ্যানহীন অন্ধকার মাটির ওপর ভ্যাপসা গরমে সম্বল কেবলমাত্র একখানা প্লাস্টিকের চেয়ার। এই একটি চেয়ারে বসেই গাদাগাদি করে হাটুর উপরে পরীক্ষা দিতে বাধ্য হচ্ছেন যশোর বিআরটিএর অধিনে যশোরের অঞ্চলের মটর ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রত্যাশীরা। একজন ম্যাজিস্ট্রেডের সামনে অনুষ্ঠিত এমন প্রহশন পরীক্ষার ব্যাপারে পরীক্ষার্থীরা বলছেন “এই পরীক্ষা তো নাম মাত্র, আমরা তো টাকা দিয়েছি, পাশ করলেই কি আর ফেল করলেই কি, সব তো অটো পাশা হয়ে যাবে, তাই একটু কষ্ট করে পরীক্ষা দেওয়া আর কি”। তবে পেশাদার ড্রাইভাররা বলছেন অন্য কথা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন বলেন “প্রচন্ড গরম, চট দিয়ে ঘেরা ঘরের মধ্যে কোন ফ্যান লাইটের ব্যবস্থাও নেই। পরীক্ষার খাতা রাখার জন্য একটি টেবিলও নেই, এখানে কি করে পরীক্ষা দেয় মানুষ”। এই পরীক্ষাথীর বিবরন অনুযায়ী মঙ্গলবার যশোর উপশহর কলেজ মাঠে গিয়ে দেখা যায় মাঠের মধ্যে চলছে জাতীয় স্কুল ক্রিকেট প্রতিযোগিতা। তার মধ্যে মাঠের দক্ষীনপার্শে তাবু দিয়ে ঘিরে তৈরি করা হয়েছে পরীক্ষা কেন্দ্র। এই কেন্দ্রে ঢুকে দেখা গেলো আনুমানিক ৩০০ স্কয়ার ফিট জায়গার ৩৩১ জন পরীক্ষার্থীর পরীক্ষা দিচ্ছে। ভ্যাপসা গরম, কারন ভরা চৈত্রে ফ্যান নাই, অন্ধকার, কারন লঅইট নাই, আর শুধু মাত্র একটি প্লাস্টিকের চেয়ারে বসে হাটুর উপর রেখে লিখছেন পরীক্ষার্থীরা। গত ২ বছর ধরে চলে আসছে এই কেন্দ্রে নিয়মিত পরীক্ষা কার্যক্রম, কবে নাগাদ নির্দিষ্ট কোন নিজস্ব পরীক্ষা কেন্দ্র হবে সে ব্যাপারে যশোর বিআরটিএর উপ পরিচালক মাফুজুর রহমান বলেন, “এটা সরকারের ব্যাপার, সরকার যখন মনে করবে তখন এখান থেকে পরীক্ষা কেন্দ্র সরে অন্য কোথাও যাবে”।
এদিকে পরীক্ষার্থীদের ভাষ্য অনুযায়ী “রিটেন, প্রাকটিকাল আর ভাইবা পরীক্ষায় পাশ করলে বা কি আর ফেল করলেই বা কি, অটো পাশ হয়ে যাবে” এমন কথার উত্তর খুজতে গিয়ে দেখা গেলো বিআর টিএর ইজারা নিয়ে বসে আছেন কিছু অসাধু ব্যক্তি। ইজারাদাররা হলেন পাবনা থেকে আসা মামুন, বরিশাল থেকে আসা সাইফুল, ঝাউডাঙ্গার তুহিন, চৌগাছার খাইরুল, ঝিকরগাছার ইয়াসিন, বকচরের শাহিন, রাজারহাটের পান্না, শেখহাটির মিলন, ঝিকরগাছার ইমন, চৌগাছার মনিরও পুলের হাটের বিদ্যুসহ আরো কয়েকজন।
এই ৩৩১ জন পরীক্ষার্থীর ৯৫ শতাংশই এই এজারাদারদের কাছে নির্ধারিত ফির চেয়ে অতিরিক্ত ২ হাজার থেকে ৩ হাজার টাকা দিয়ে পরীক্ষা দিতে এসছেন। কারন এই্ ইজারাদাররা পরীক্ষার্থীদের নিশ্চয়তা দিয়েছেন তারা অংশ নিলেই পেয়ে যাবেন ড্রাইভিং লাইসেন্স। কিভাবে নিশ্চয়তা দেন এমন প্রশেবনর জবাবে একজন ইজারাদার বলেন, আমরা প্রতিটা ফাইল থেকে অফিসারদের ১ হাজার করে টাকা দিয়ে থাকি, অফিসাররা টাকা ছাড়া কোন সই করেন না। আর আমরা যে খাটাখাটনি করি তারজন্য মুজুরিটা নিই আর কি।
এ ব্যাপারে যশোর বিআরটিএর উপ পরিচালক মাফুজুর রহমান বলেন, “টাকা পয়সা লেনদেনর ব্যাপারে আমার জানা নেই। আর পরীক্ষায় ফেল করলে কিভাবে পাশ করে সেটাও আমি জানি না”। তবে তিনি কোন ব্যবস্থা নেওয়ার ব্যাপারে কোন আশ্বাস না দিলেও বলেন “বিআর টিএ কমিটি আছে, তাদের কাছে যান”।