নারী, তোমার হাতেই আজ বিজয় পতাকা!

0
277

রাশেদা রওনক খান : আজ বিশ্ব নারী দিবস। ১৯১০ সালে কোপেনহেগেনে অনুষ্ঠিত হয় দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক নারী সম্মেলন, যেখানে ১৭টি দেশ থেকে ১০০ নারী প্রতিনিধি যোগ দিয়েছিলেন। সেই সম্মেলনে জার্মানির রাজনীতিবিদ ক্লারা জেটকিন, যিনি কি-না জার্মান কমিউনিস্ট পার্টির স্থপতিদের একজন, তিনি প্রতি বছর ৮ মার্চকে আন্তর্জাতিক নারী দিবস হিসেবে পালন করার প্রস্তাব দেন। তার সেই প্রস্তাবের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত হয়_ ১৯১১ সাল থেকে নারীদের সমঅধিকার দিবস হিসেবে দিনটি পালিত হবে। তাই সমঅধিকার আদায়ের লক্ষ্যে কাজ করাই এখন নারীদের একমাত্র লক্ষ্য হওয়া উচিত।

নারী দিবসে কেবল শুভেচ্ছা প্রদানের মধ্য দিয়েই রাষ্ট্র্র-সমাজ কিংবা পরিবার তার দায়িত্ব বা কর্তব্য শেষ করতে পারে না। দিবসটির প্রত্যয় হলো_ নারীর প্রতি বৈষম্যমূলক আচরণ নিষিদ্ধ করতে হবে, নারীর প্রতি সহিংসতা রোধে সংকল্পবদ্ধ হতে হবে এবং পুরুষতান্ত্রিক মনমানসিকতা পাল্টাতে হবে।
দিব্যদৃষ্টিতে দেখতে পাচ্ছি, সামনের দিনগুলোতে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে নারীরাই। আরও এগিয়ে যাওয়ার শপথ গ্রহণের দিন আজ। সমাজের একটু খণ্ডচিত্র দিয়ে এই মুহূর্তে নারীর এগিয়ে যাওয়াকে যদি একটু পর্যবেক্ষণ করি, তাহলেই দেখতে পাব, পুরুষের তুলনায় নারী আজ কত এগিয়ে গেছে। কেবল আরেকটু স্পষ্ট লক্ষ্য নির্ধারণ, চেষ্টা, সততা, ব্যক্তিত্ব, ব্রত, অঙ্গীকারই পারে নারীকে তার কাঙ্ক্ষিত স্থানে নিয়ে যেতে। নারী এগিয়ে গেছে অনেকটা পথ। যেটুকু পিছিয়ে আছে, সেটুকুও এগিয়ে যাবে যদি আমরা আমাদের পুরুষতান্ত্রিক মনোভাব দূর করে স্বচ্ছ চিন্তাচেতনার পথ প্রসারিত করতে পারি।
প্রতিদিন পত্রিকার পাতা উল্টালেই দেখি, সমাজে পারস্পরিক কলহের জেরে মানুষ খুন হচ্ছে। এসব খুনের সঙ্গে জড়িতরা নারী, না পুরুষ? যেমন ধরুন, গাইবান্ধা-১ আসনের সংসদ সদস্য মনজুরুল ইসলাম লিটন হত্যার দায়ে অভিযুক্ত কাদের খান একজন নারী, না পুরুষ? নারায়ণগঞ্জে সাত খুনে দণ্ডপ্রাপ্ত ২৬ জন আসামির মাঝে একজনও কি নারী আছে? রংপুরে জাপানি নাগরিক কোনিও হোশি হত্যার আসামিরা নারী, না পুরুষ? হলি আর্টিসান রেস্টুরেন্টে জঙ্গি আক্রমণ কারা চালিয়েছে? ভয়ঙ্কর কিলিং মাস্টার জঙ্গি জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজীব গান্ধী নারী, নাকি পুরুষ? বিশ্বজিৎকে যারা পিটিয়ে মারল, তাদের মাঝে কি কেউ নারী ছিল? ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে ঘটে যাওয়া তাণ্ডবের পেছনে যাদের হাত ছিল তারা নারী, না পুরুষ? একই রকম তাণ্ডব চালিয়েছিল রামুতে বৌদ্ধদের ওপর। তারা কারা? টাঙ্গাইলের স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা এবং মুক্তিযোদ্ধা ফারুক আহমেদকে হত্যার সঙ্গে জড়িতরা নারী, না পুরুষ? ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে রক্তাক্ত করেছে কারা? নারী প্রার্থী, না পুরুষ প্রার্থীরা? শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তকে কান ধরিয়ে ওঠবস করানোর মতো ঘৃণ্য কাজ করেছেন যে সেলিম ওসমান, তিনি নারী, না পুরুষ? বরগুনায় মাছ চুরির অভিযোগে ১১ বছরের শিশু রবিউলকে হত্যার অভিযোগে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি মিরাজ হোসেন নারী, না পুরুষ? দরপত্র ও চাঁদাবাজি নিয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হয় কোনো নারী? খাদিজাকে কুপিয়েছে কে? নরসিংদীতে নারী কনস্টেবল নীরাকে হত্যা করেছে কে? চট্টগ্রামের মিতু হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে কারা? অপরাধীদের মধ্যে কোনো নারী আছে কি?
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী ওয়াহিদা সিফাতের মৃত্যুর পেছনে কার হাত রয়েছে? আদনান হত্যার সঙ্গে জড়িতরা কিশোর, নাকি কোনো কিশোরী? হুমায়ুন আজাদ, বল্গগার রাজীব কিংবা লেখক অভিজিৎকে যারা হত্যা করেছে, সেসব সন্ত্রাসীর কেউ কি নারী? ধর্ষণ ও ধর্ষণের পর হত্যার সব ঘটনার অপরাধীই তো পুরুষ। গত সপ্তাহে গাবতলীতে রাতে যে পরিবহন শ্রমিকদের তাণ্ডব দেখলাম আমরা; তারা নারী, না পুরুষ? সাংবাদিক শিমুলের ওপর শাহজাদপুরে সংঘর্ষের সময় গুলি চালানোর আসামি পৌর মেয়র তো একজন পুরুষই।
ওপরে যেসব ঘটনার কথা বললাম, এর বাইরেও ঘটেছে হাজার হাজার অপরাধের ঘটনা, যেগুলোর সঙ্গে নারী নয়; পুরুষরাই জড়িত। এখানে গত কয়েক বছরে বাংলাদেশের সবচেয়ে আলোচিত কয়েকটি ঘটনার কথা বললাম, যার একটির সঙ্গেও নারী জড়িত নেই। বিচ্ছিন্ন দু-একটি ঘটনা ছাড়া সাধারণত অপরাধে নারীরা তো জড়িত থাকেই না, বরং তারা নির্যাতিত হয় বেশিরভাগ ঘটনায়।
অপরাধক্ষেত্রের এই চিত্রের বিপরীতে আমরা দেখছি পুরুষতান্ত্রিক সমাজের ভেতরে চলমান নির্যাতন, অবদমন, বর্বরতা-নির্মমতা নারীকে পুরোপুরি দমিয়ে রাখতে পারেনি। নারীরা জেগে উঠেছে তাদের মতোই, আপন শক্তিতে। অবদমন প্রক্রিয়ার মধ্য থেকেও বাংলাদেশে নারীদের সাফল্য এখন আকাশছোঁয়া! প্রতি বছর বিশ্বব্যাপী এই নারী দিবসটি পালিত হয়ে থাকে। আমি বলব, বাংলাদেশে আমরাও এ দিবসটি পালন করি, তবে বিশ্বের যে কোনো দেশের চেয়ে অনেক বেশি গর্ব আর অহঙ্কার নিয়ে। কারণ বিশ্বে এই মুহূর্তে আমরাই সবচেয়ে বেশি নারীর ক্ষমতায়নে রোল মডেল হয়ে দাঁড়িয়ে আছি! আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী একজন সফল নারী, যিনি একাধারে একজন সফল সরকারপ্রধান এবং সফল মা! সফল নেতৃত্বের সব গুণ অর্জন করে আজ তিনি বিশ্বনেতাদের কাতারে। বিরোধী দলের নেতা নারী, আমাদের স্পিকার নারী, সংসদ উপনেতা নারী। আমাদের মন্ত্রিসভায় আছেন অনেক নারী মন্ত্রী, যা অন্যান্য দেশের জন্য এখনও অকল্পনীয়! শুধু তাই নয়, বাংলাদেশে এখন সচিব পদে নারী, জেলা প্রশাসকের দায়িত্বে নারী, বিচারপতির আসনে নারী, জজ-ব্যারিস্টার হিসেবে নারীরা জায়গা করে নিচ্ছেন। সামরিক বাহিনীতে নারীদের সাফল্য দেখার মতো, পুলিশ সদস্য হিসেবে নারীদের সাফল্য অনেক বেশি। কেননা শোনা যায়, নারী পুলিশ সদস্যরা পুরুষ পুলিশ সদস্যের তুলনায় অনেক সৎ হয়। গণমাধ্যম, শিক্ষকতা, এনজিওতে নারীর সাফল্য ঈর্ষণীয় পর্যায়ের। মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক কিংবা বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়াশোনায় সর্বোচ্চ ভালো ফলগুলোও আজ মেয়েদের মুঠোয়। বাংলাদেশের অর্থনীতির চাকা ঘুরিয়ে দিয়েছে আমাদের লাখো নারী গার্মেন্ট কর্মী! বাংলাদেশের মেয়েরা আজ চষে বেড়াচ্ছে হিমালয়ের চূড়া; পাইলট হয়ে পৃথিবীর আকাশে উড়ে বেড়াচ্ছে দুর্দান্ত প্রতাপের সঙ্গে! শিলা-সীমান্তরাই বাংলাদেশের পতাকা বিদেশের মাটিতে উড়িয়ে দেয় সগৌরবে। বাংলাদেশের নারীরা এভাবে এগিয়ে যাক দুর্বার গতিতে। বিশ্ব জানুক আমাদের আকাশ ছোঁয়ার গল্প।
মনে রাখতে হবে, বাংলাদেশের পুরুষতান্ত্রিক সমাজে এ ধরনের আকাশ ছোঁয়ার গল্প শুনতে অনেকেরই ভালো লাগবে না। কিন্তু আমাদের শুনতে ও শোনাতে হবে। কাজটা আমাদের নিজেরই করতে হবে। শুরু করতে হবে পরিবার থেকেই। যেসব মা আজ অবধি ঘরের কাজ করেই জীবন পার করে দিলেন; যেসব বাবা ভাবেন_ ‘আমার মেয়েও যদি এমনভাবে বিশ্বজয় করত, তাদের আজ শপথ নেওয়ার দিন। বাবারা, যারা এতদিন স্ত্রীকে দমিয়ে রেখেছেন, আজ সময় এসেছে মেয়েকে এগিয়ে নেওয়ার। আর নীচুতা, ভীরুতা, অবদমন নয়। নিজের মেয়েকে আকাশ ছোঁয়ার গল্প বলার সময় এসেছে। স্বপ্ন দেখাতে হবে তাদের। তৈরি হতে হবে নতুন এই বাংলাদেশের জন্য, বিশ্বজয়ের জন্য। কেননা, সময় এসেছে। মেয়েদের হাতেই আসছে বাংলাদেশের বিজয় পতাকা! এই বিজয়ের পতাকা হাতে বাংলাদেশের প্রতিটি মেয়ে বিশ্বের পুরুষতান্ত্রিক মনোভাবাপন্ন মানুষের দিকে তাকিয়ে একদিন বলবে_ তোমরা যা পার না, আমরা তা পারি! আমরা পশ্চাৎপদ নই, বরং তোমরাই পেছনে আছ। অনুসরণ কর আমাদের। আমরাই তোমাদের রোল মডেল!
শিক্ষক, নৃবিজ্ঞান বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here