নাসরিনের কেঁচো কম্পোস্ট সার কারখানা

0
2011

এম আর মাসুদ ॥ নাসরিন সুলতানা একটি কেঁচো কম্পোস্ট (ভার্মি কম্পোস্ট) সার কারখানার মালিক। নাসরিন সুলতানা লেখাপড়ার পাশপাশি কেঁচো কম্পোস্টের (ভার্মি কম্পোস্ট) মাধ্যমে তৈরি করছেন জৈব সার। তাঁর কারখানায় প্রতি নান্দায় প্রতি মাসে তৈরি হচ্ছে ১০-১২ কেজি জৈব সার। নাসরিনের কারখানায় নান্দা রয়েছে ১০২টি। নিজের লেখপড়ার খরচ যোগানোর পাশাপাশি সংসারেও আর্থিক যোগান দেয় সে।
নাসরিন সুলতানা যশোর জেলার ঝিকরগাছা উপজেলার গদখালী ইউনিয়নের বারবাকপুর গ্রামের লুৎফর রহমানের মেয়ে মায়ের নাম শিউলী বেগম। দুই ভাই বোনের মধ্যে সে ছোট। নাসরিন সুলতানা উপজেলার দিগদানা খোশালনগর দাখিল মাদরাস্ াকারিগরি এবং কৃষি কলেজে ডিপ্লোমা ইন এগ্রিকালচার শিক্ষা কার্যক্রমের চতুর্থ সেমিস্টারের ছাত্রী। পাশাপাশি জাতীয় বিশ^বিদ্যালয়ের অধীনে ঝিকরগাছা মহিলা ডিগ্রি কলেজে সমাজ বিজ্ঞান বিভাগে অনার্সের (সম্মান) তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। এক বছর আগে ১০০ গ্রাম কেঁচো দিয়ে দুইটি নান্দায় দুই ঝুড়ি গোবর সার দিয়ে যাত্রা শুরু হয়েছিল নাসরিনের কেঁচো কম্পোস্ট সার তৈরি। শুরুকালে সহপাঠী, প্রতিবেশীরা উপহাস করলেও এখন তারা রীতিমত উৎসাহের পাশাপাশি অনেকেই আবার নিজেই এই কেঁচো কম্পোস্ট সার তৈরিতে ঝুঁকেছেন।
২০১৬ সালের প্রথম দিকে ওই এলাকার ব্লকের উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা আইয়ুব হোসেন দেড়শ টাকা দিয়ে ১০০ গ্রাম কেঁচো কিনে দিয়েছিল। দুইটি নান্দা কিনে সেই কেঁচো দিয়ে দুই ঝুড়ি গোবরের মাধ্যমে জৈব সার তৈরি শুরু করেছিল নাসরিন। তা থেকে প্রথম বছরে যে সার তৈরি হয়েছিল সেটা তার পিতা লুৎফর রহমান জমিতে ব্যবহার করেছিলেন। সে ১০০ গ্রাম কেঁচো থেকে বর্তমান নাসরিনের ১০২ টি নান্দায় কেঁেচা রয়েছে ১২-১৫ কেজি। এক কেজি কেঁচোর দাম ১৫০০/- টাকা। নাসরিন এ বছর কেঁচো কম্পোস্ট (ভার্মি কম্পোস্ট) সার তৈরির জন্য একটি চালা (সেড) তৈরি করেছেন। সে জানিয়েছেন ১০২ টি নান্দার জন্য চালা তৈরি, মাঁচা, বেড়া ও ছাউনী ঘেরা দিয়ে মোট খরচ হয়েছে ১২-১৩ হাজার টাকা। নাসরিনের সংসারে পিতার ৪ টি গরু আছে। ফলে তাকে গোবর কেনা লাগে না। প্রতিটি নান্দায় ২০০ গ্রাম কেঁচো আর এক ঝুড়ি গোবর দিলে তা থেকে ১৫-২৫ দিনের মাথায় ১২-১৩ কেজি জৈব সার পাওয়া যায়। এক কেজি জৈব সারের দাম ১৫/-। পাশপাশি প্রতি নান্দা থেকে ২-৩ মাস অন্তর ৫০০ গ্রাম থেকে এক কেজি করে কেঁচো বিক্রি করা যায়। নাসরিনের কেঁচো কম্পোস্ট সার তৈরিতে এলাকাতে এই সারের কদর বেড়ে গেছে। এলাকার চাষীরা অগ্রিম বায়না দিয়ে যাচ্ছে এই সার কিনতে। নিরাপদ (বিষমুক্ত) সবজী উৎপাদনে জাতীয় পুরষ্কার প্রাপ্ত উপজেলার বোধখানা গ্রামের আলী হোসেনসহ এলাকার এক হাজার চাষী ৬০ ভাগ জমিতে কেঁচো কম্পোস্ট সার ব্যবহার করছেন। এই সার সকল ফসলে ব্যবহার করা যায়। নাসরিনের এই কারখানা থেকে প্রতিমাসে তার আয় ১০-১২ হাজার টাকা। তার মা শিউলী বেগম জানিয়েছেন নাসরিন নিজের লেখপড়া সহ সকল খরচ মিটায়েও সংসারে যোগান দেয়। নাসরিনের ইচ্ছা লেখাপড়া শেষ করে চাকরি করতে চায়না, চাকরি দিতে চাই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here