নিউক্লিয়ার ফিউশন এনার্জির যুগান্তকারী আবিষ্কার

0
100

অনলাইন ডেস্ক : কার্বনশূন্য পৃথিবীর লক্ষ্যে এক যুগান্তকারী আবিষ্কারের খবর দিয়েছে যুক্তরাজ্য। তাদের নিউক্লিয়ার ফিউশন এনার্জির পরীক্ষা সফল হয়েছে।

খনিজ জ্বালানি নয়, জলবিদ্যুৎও নয়, এক সম্পূর্ণ ভিন্ন ধরনের এনার্জির কথা জানালেন যুক্তরাজ্যের একদল বিজ্ঞানী।

দীর্ঘদিন ধরে তারা এই বিষয়টি নিয়ে কাজ করছিলেন। নতুন এই এনার্জির নাম নিউক্লিয়ার ফিউশন। সহজ কথায় এর ফলে তারা, নক্ষত্র থেকে এনার্জি সংগ্রহ করে জ্বালানির ব্যবস্থা করা যাবে।
বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, এই নিউক্লিয়ার ফিউশন প্রক্রিয়াতেই সূর্য তার তাপমাত্রা বজায় রাখে। অর্থাৎ এনার্জি তৈরি করে।

নিউক্লিয়ার ফিউশন কী

কালহাম সেন্টার ফর ফিউশন এনার্জি অক্সফোর্ডের খুব কাছে অবস্থিত। সেখানেই আছে জয়েন্ট ইউরোপিয়ান টোরাস (জেইটি) ল্যাবরেটরি। দীর্ঘদিন ধরে যুক্তরাজ্য এবং ইউরোপের বিজ্ঞানীরা এই পরীক্ষাগারেই নিউক্লিয়ার ফিউশন এনার্জি নিয়ে কাজ করছিলেন।

১৯৯৭ সালে প্রথম বিজ্ঞানীরা এই এনার্জির বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পান। তবে এবার তা ব্যবহার করার মতো অবস্থায় নিয়ে যাওয়ার জায়গায় পৌঁছেছেন বিজ্ঞানীরা। গত বছর ডিসেম্বর মাসে বিজ্ঞানীদের হাতে যুগান্তকারী তথ্য হাতে আসে।

গবেষকদের বক্তব্য, পরীক্ষাগারে তারা ৫৯ মেগাজউলস এনার্জি তৈরি করতে পেরেছেন। মেগাজউলস এনার্জি মাপার একক। এক মেগা জউলস মানে এক মিলিয়ন বা দশ লাখের সমান।

যুক্তরাজ্যের বিজ্ঞানমন্ত্রী বিজ্ঞানীদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন এবং এই কাজ আরো এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। টুইট করে তিনি জানিয়েছেন, যুক্তরাজ্যের বিজ্ঞানীরা অসম্ভবকে সম্ভব করেছেন। টুইট করেছে যুক্তরাজ্যের এনার্জি অথোরিটিও।

বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, দীর্ঘদিন ধরে এই পরীক্ষা চলেছে। এই এনার্জি ব্যবহার করলে কার্বন ফুটপ্রিন্ট একেবারে কমিয়ে ফেলা সম্ভব। এটি সম্পূর্ণ ভিন্ন রকমের এক জ্বালানি হয়ে উঠতে পারে। যা প্রকৃতি থেকেই এনার্জি তৈরি করে নেবে। সূর্যও এই প্রক্রিয়ায় নিজের উত্তাপ বজায় রাখে।

সূত্র: ডয়চে ভেলে।