নির্বাচনকালীন সরকারের প্রধান থাকবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা : ড. হাছান মাহমুদ

0
348

নিজস্ব প্রতিবেদক :  আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ এমপি বলেছেন, বিশ্বের অন্যান্য সংসদীয় গণতান্ত্রিক দেশের মত বাংলাদেশেও জাতীয় সংসদ নির্বাচনকালীন সরকারের প্রধান থাকবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
তিনি বলেন, ‘নির্বাচনকালীন সরকারের প্রধান থাকবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আর নির্বাচন কমিশন (ইসি)’র অধীনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।’
আওয়ামী লীগের মুখপাত্র ড. হাছান আরো বলেন, ‘বিশ্বের অন্যান্য সংসদীয় গণতান্ত্রিক দেশে যেভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় আমাদের দেশেও সেভাবেই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।’
ড. হাছান মাহমুদ আজ সকালে রাজধানীর সেগুনবাগিচাস্থ শিল্পকলা একাডেমীর মহড়া কক্ষে বিশিষ্ট পরমানু বিজ্ঞানী ড. ওয়াজেদ মিয়ার ৭৫ তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের উদ্যোগে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।
জোটের কার্যকরি সভাপতি সৈয়দ হাসান ইমামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটির উপাচার্য অধ্যাপক ড. আব্দুল মান্নান চৌধুরী, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সহ-সভাপতি ড. ইনামুল হক, শিল্পকলা একাডেমীর মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী ও আওয়ামী লীগ নেতা এডভোকেট বলরাম পোদ্দার।
বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ড. হাছান মাহমুদ বলেন, গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে আহবান জানিয়েছিলেন। কিন্তু বিএনপি-জামায়াত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আহবান প্রত্যাখ্যান করে নির্বাচন প্রতিহত করার পথ বেছে নিয়েছিলেন।
তিনি বলেন, বিএনপির এ ভুল রাজনীতির জন্য তারা জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছেন। আগামী নির্বাচনে বিএনপি আর এ ধরনের আত্মহননের পথ বেছে নেবেন না বলে মনে হয়।
আওয়ামী লীগের মুখপাত্র হাছান বলেন, গত জাতীয় সংসদ নির্বাচন যেমন কারো জন্য থেমে ছিল না তেমনি আগামী জাতীয় নির্বাচনও কারো জন্য বসে থাকবে না। নির্ধারিত সময় শেষেই আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।
বেগম খালেদা জিয়াকে জেলে পাঠানোর কোন ইচ্ছা সরকারের নেই- উল্লেখ করে তিনি বলেন, তাকে (বেগম জিয়া) জেলে পাঠানোর কোন ইচ্ছা সরকারের নেই। আদালত এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে।
এ বিষয়ে তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়া দুর্নীতি করে থাকলে তার বিচার হবে। আর তা না করলে খালাস পাবে। এ বিষয়ে সরকারের কোন এখতিয়ার নেই। আদালতের রায়ই চূড়ান্ত।
ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহারে বিএনপির বক্তব্যের জবাবে ড. হাছান বলেন, বেগম খালেদা জিয়া তার জ্ঞানের স্বল্পতার জন্য ইভিএম ব্যবহারের বিষয়ে শংকা প্রকাশ করেছেন। কারণ ইভিএম একটি আধুনিক পদ্ধতি। প্রযুক্তিগত এ পদ্ধতি সম্পর্কে জানার জন্য শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকা আবশ্যক।
আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী নির্বাচনে ইভিএম পদ্ধতি ব্যবহারের বিষয়ে মতামত ব্যক্ত করেছেন। আর নির্বাচন কমিশন (ইসি) এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবেন।
ড. হাছান বলেন, বিদেশে তথ্য পাচার হয়ে যাওয়ার ভয়ে বিএনপি সরকার সাবমেরিন ক্যাবল স্থাপন করেনি। কিন্তু বর্তমান সরকার ক্ষমতায় থাকার সময়ে সাবমেরিন ক্যাবল স্থাপনের সিদ্ধান্ত নিলেও কোন তথ্য বিদেশে পাচার হয়ে যায়নি।
ড. ওয়াজেদ মিয়ার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, নিজেদের সন্তানদের যেভাবে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করেছেন তা তাঁর জীবনে সবচেয়ে বড় সফলতা। তিনি বঙ্গবন্ধুর জামাতা, প্রধানমন্ত্রীর স্বামী হওয়া স্বত্ত্বেও ক্ষমতার অপব্যবহার তো দূরের কথা, ক্ষমতার ব্যবহারও করেননি।
তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে গ্রেফতারের সময় ড. ওয়াজেদ মিয়ার সাথে দুর্ব্যবহার করা হয়েছিল। এতে তিনি মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়েছিলেন।
পাবনার রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প বা এ ধরনের স্থাপনার নাম তাঁর নামে নামকরণ করার বিষয়ে দলীয় বৈঠকে আলোচনা করা হবে বলেও তিনি জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here