নির্বাচনী পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে

0
187

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনার মধ্য দিয়ে গত ৩১ জুলাই নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সংলাপ শুরু হয়। এরপর গণমাধ্যম প্রতিনিধি, নিবন্ধিত ৪০টি রাজনৈতিক দল, নির্বাচন পর্যবেক্ষক, নারী নেত্রী, সাবেক সিইসি, নির্বাচন কমিশনার ও সাবেক সচিবদের সঙ্গে বৈঠক হয়েছে।
এসব আলোচনায় শুধু রাজনৈতিক দলগুলোর কাছ থেকেই ৫৩১টি সুপারিশ পেয়েছে ইসি। সুধীসমাজ, গণমাধ্যম প্রতিনিধি, পর্যবেক্ষক, নারী নেত্রী ও নির্বাচন বিশেষজ্ঞদের কাছ থেকে এসেছে আরো দুই শতাধিক প্রস্তাব। তিন মাস ধরে চলা সংলাপে সংসদীয় আসন সীমানা পুনর্বিন্যাস, আইন সংস্কারসহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনায় ইসি সন্তুষ্ট হলেও সাংবিধানিক ও রাজনৈতিক বিষয়ে প্রধান রাজনৈতিক দলগুলোর মতানৈক্য স্পষ্ট। এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশনের করারও কিছু নেই। আবার রাজনৈতিক দলগুলো সহায়তা না করলে কমিশনের একার পক্ষে সুষ্ঠু নির্বাচন করাও সম্ভব হবে না।

সংলাপে আসা মতামত পর্যালোচনায় দেখা যায়, ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে কোনো কথাই বলেনি। বিএনপি চায় নির্দলীয় সহায়ক সরকার। আর জাতীয় পার্টি সংসদ ভেঙে দিয়ে অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের অধীনে নির্বাচন চায়। বিএনপির পক্ষ থেকে বিচারিক ক্ষমতাসহ সেনা মোতায়েনের দাবি এসেছে।
জাতীয় পার্টিও ভোটের নিরাপত্তায় সেনাবাহিনী চায়। আওয়ামী লীগ বর্তমান সংসদীয় আসন সীমানা বহাল রাখার পক্ষে বললেও বিএনপি চায় দেড় যুগ আগের সীমানায় ভোট হোক। আর জাতীয় পার্টি ভোটারের সংখ্যা অনুপাতে নতুন করে আসনবিন্যাস করতে বলেছে। ইভিএম ও ‘না’ ভোট নিয়েও প্রধান তিন দলের অবস্থান বিপরীতমুখী; যদিও কোন প্রস্তাব ইসির এখতিয়ারে আছে, আর কোনটা নেই তা রাজনৈতিক দলগুলোও জানে। এর পরও তারা সংলাপে এসে সেসব প্রস্তাব দিয়ে গেছে। স্বাভাবিকভাবেই ধরে নেওয়া যায়, অংশীজনদের সঙ্গে সংলাপ শেষ করে স্বস্তিতে থাকা নির্বাচন কমিশনের সামনে রয়েছে বড় চ্যালেঞ্জ।

বর্তমান নির্বাচন কমিশনের জন্য সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হচ্ছে, কমিশন ও নির্বাচন প্রক্রিয়ার ওপর জনগণের আস্থা ফেরানো এবং ২০১৯ সালের শুরুতে অনুষ্ঠেয় একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সব দলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা। এ লক্ষ্যেই নির্বাচন কমিশনকে কাজ করতে হবে। ইসিকে কথা ও কাজকর্মে স্বচ্ছতা ও নিরপেক্ষতা বজায় রাখতে হবে। তবে এটাও ঠিক যে সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠান শুধু ইসির একার পক্ষে করা সম্ভব নয়। এ ক্ষেত্রে রাজনৈতিক দলগুলোরও দায়িত্ব আছে। নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল ও অংশীজনদের সঙ্গে সংলাপে নির্বাচন কমিশনও তাদের বার্তা পৌঁছে দিতে পেরেছে বলে আশা করা যায়। এখন নির্বাচন কমিশন রাজনৈতিক দলগুলোকে আস্থায় নিয়ে নিজেদের নিরপেক্ষতা বজায় রেখে অনুষ্ঠিত সংলাপের ভিত্তিতে প্রতিটি কাজ সুসম্পন্ন করলে একটি সুন্দর অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন অনুষ্ঠান অসম্ভব হবে না বলে আমরা মনে করি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here