নির্বাচন কমিশনের সুশীল সমাজ কারা

0
234

জাফর ওয়াজেদ : নির্বাচনী হাওয়া ছড়িয়ে পড়েছে রাজধানী ছেড়ে নগর, বন্দর, শহর ছাড়িয়ে গ্রামে-গঞ্জে। এমনকি অজপাড়াগাঁওয়েতেও। ভোটের ঢোল বাজতে শুরু করেছে। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সাধারণ মানুষের মধ্যে ‘পোলারাইজেশন’ হতে যাচ্ছে। মানুষ বিভক্ত হয়ে পড়বে সমাজে, পরিবারে প্রার্থীর পক্ষাবলম্বনের মাধ্যমে। নির্বাচন মানে জনতার কাছে যাওয়া, তাদের মতামত নেয়া। নির্বাচন জীবনেরই ধর্ম। অসত্য ও অসুন্দরকে জনগণ বর্জন করে। গ্রহণ করে সত্য ও সুন্দরকে। এই গ্রহণ-বর্জন পালার মধ্য দিয়েই চলে জীবন ও জগতের ক্রমবিকাশ। রাষ্ট্রীয় অবয়বেরও পূর্ণ থেকে পূর্ণতর হয়ে ওঠার প্রক্রিয়া এই নির্বাচন। দেখা গেছে যে, নির্বাচন যেখানে নিষিদ্ধ, প্রাণ সেখানে প্রতিরুদ্ধ। একনায়কতন্ত্র সেখানেই দেয় মাথাচাড়া। অবশ্যই গণতন্ত্রে মুক্তির ধ্বনি বাজে। গণতন্ত্র হচ্ছে সার্বিক বিকাশের অধিকার। নির্বাচন এই গণতন্ত্রের প্রাণ। তাই বলে নির্বাচন মানে গণতন্ত্র নয়। আমাদের কালেই এই বাংলাদেশেও দেখেছি এক নায়কতন্ত্র সাধকের সর্বাঙ্গে নির্বাচনী আলখাল্লা, যা সামরিক শাসকের উর্দির ওপর চাপানো গণতন্ত্রের উদ্ভট দেহাবরণ। ‘মার্শাল ক্যু’ আর ‘মিডিয়া ক্যু’র মাধ্যমে ফলাফল নিয়ন্ত্রণ করে একতরফা ‘বিজয়’ (!) অর্জন। ভোটারদের কেন্দ্রে আসার সব পথরুদ্ধ করে ভোট জালিয়াতি চলেছে অবাধে পঁচাত্তর পরবর্তী সামরিক জান্তা শাসকদের অধীনে অনুষ্ঠিত নির্বাচন নামক প্রহসনকালে। এ দেশের মানুষ পাকিস্তান পর্বকাল থেকেই দেখেছে সীমায়িত গণতন্ত্র, নির্দেশিত গণতন্ত্র, বুনিয়াদী গণতন্ত্র ইত্যাদি অবিধার আঁধি সৃষ্টি। সামরিক শাসন বাংলাদেশকে গণতন্ত্রের সার্থক পীঠভূমিতে পরিণত করতে পারেনি। জান্তা শাসকদের উত্তরসূরিরা আজও সেই পথে হাঁটছেন, যে পথে মতামত প্রকাশের অধিকার কুক্ষিগত। ভোটদাতারা বাধ্য তাদের ভোট দিতে। অবশ্য ভোটদানে তাদের কিছু যায় আসত না। কারণ সিল মেরে ব্যালট বাক্সে ভরার কাজটিতে দক্ষতা তারা বেশ অর্জন করেছিল। জান্তা শাসক ও তাদের উত্তরসূরিরা ‘ইলেকশন ইঞ্জিনিয়ারিং’ এমন সূক্ষ্মভাবে করে এসেছেন, জনগণের মতামতের কোন দরকারই হতো না। তাদের সময়ে ভোট ছিল, এক ধরনের নির্বাচনও ছিল। কিন্তু ছিল না অবাধ, স্বাধীন নির্বাচন ব্যবস্থা, গণতন্ত্র তো সুদূর পরাহত। নির্বাচন কমিশন ছিল তাদের বশংবদ। জান্তাদের ইচ্ছে পূরণের অংশীদার নির্বাচন কমিশন ছিল ‘ঠুঁটো জগন্নাথ।’ গণতন্ত্র, মতামতের স্বাধীনতা, বিচার ব্যবস্থা, নির্বাচন- এসব কিছুকেই পঁচাত্তর পরবর্তী ক্ষমতা দখলকারী সামরিক শাসকরা পদদলিত করেছিল। তাদের খেয়ালখুশির ও মর্জির ধারক-বাহকে পরিণত হয়েছিল প্রতিষ্ঠানগুলো। দল ভেঙ্গে বহু দল গঠন করিয়ে দেশে তথাকথিত ‘বহুদলীয় গণতন্ত্র’ (!) চালুর প্রচারণা চালানো হয়েছে। তাদের কাছে মনে হয়েছিল, গণতন্ত্র সাজানো ব্যাপার। কিন্তু তা যে ধাপ্পা দিয়ে মেলে না, সেটা বুঝতে পারেনি। অথচ বাঙালী আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্যদিয়ে অর্জন করেছিল পাকিস্তান পর্বেই সাধারণের ভোটাধিকার ১৯৭০ সালেই। সেই ভোটে আওয়ামী লীগ নিরঙ্কুুশ সংখ্যাগরিষ্ঠাতা পেয়েছিল। পাকিস্তানী সামরিক জান্তা শাসকরাও সেদিন নির্বাচন কমিশনকে বশংবদ বানাতে পারেনি। বাঙালীর জানা ছিল। যথার্থ গণতন্ত্রেই হতে পারে অবাধ নির্বাচন। সেখানে সদর্থক হয় ভোটাদানও। সংখ্যাগরিষ্ঠের ভোটে নির্বাচিত শাসক দল যা খুশি তা-ই করতে পারে না সেখানে। সব সময় তাদের জনমতের কথা ভাবতে হয়। নীতি-নির্ধারণ করতে হয় জনস্বার্থে এবং নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি স্মরণে রেখে। সংখ্যাগরিষ্ঠের সমর্থন পেলেও সংখ্যালঘিষ্ঠেরও যে বিপুল জনগোষ্ঠী দেশে থাকে তাদের অগ্রাহ্য করা চলে না গণতন্ত্রে। এই কথাটিই উইনস্টন চার্চিল হাউস অব কমন্সে বলেছিলেন উনিশ শ’ একত্রিশের ২ জুন ‘নো গবর্নমেন্ট, হুইচ ইজ ইন এ লার্জ মাইনরিটি ইন দ্য কান্ট্রি, ইভেন দো ইট পজেস এ ওয়ার্কিং মেজরিটি ইন দ্য হাউস অব কমন্স, ক্যান হ্যাঙ দ্য নেসেসারি পাওয়ার টু কোস্ট উইথ রিয়াল প্রবলেম।’ এই গণতন্ত্র গড়ে ওঠে অবাধ নির্বাচনের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ। এই নির্বাচনের এক প্রক্রিয়া। অস্ট্রেলিয়ায় গণতন্ত্রকে বলিষ্ঠ করার জন্য এমন আইন করা হয়েছে আশির দশকে যে, সকলকেই ভোট দিতে হবে। ভোটদানে বিরত থাকা যাবে না। উপযুক্ত কারণ ছাড়া ভোট না দিলে জরিমানা গুনতে হয়। বাংলাদেশে জরিমানার বিধান না থাকলেও সংবিধান যেমন আঠারো উর্ধ বয়সীকে ভোটদানের অধিকার প্রদান করেছে, তেমনি এর প্রয়োগকে বলা হয়েছে সকলের পবিত্র কর্তব্য। আবার কোথাও গণতান্ত্রিক অধিকার হরণ করা হচ্ছে বলে অভিযোগ তুলেও দল বিশেষের নির্বাচন বর্জন করার উদাহরণও রয়েছে। তারা বলেছেনও, এই বর্জনের লক্ষ্যে নির্বাচনবিরোধী বা গণতন্ত্রবিরোধী নয়। বরং বিপরীত। তারাও চান, গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য সুষ্ঠু নির্বাচন। অর্থাৎ গণতন্ত্র এমন একটা জীবনাচরণ তৈরি করে যা ঐতিহ্যে পরিণত হয়।

ইউনিয়ন পরিষদ থেকে সংসদ, সমাজ রাষ্ট্রের গতিধারায় নিয়ত নির্বাচনের মাধ্যমে পরিশুদ্ধ হয়ে ওঠা, নতুন হয়ে ওঠা বাঙালীর। অনেকে এমনটাও বলে থাকেন যে, বাংলাদেশের মতো দারিদ্র্যের ও অশিক্ষার দেশে নির্বাচন অর্থহীন। অশিক্ষিত ভোটার সিদ্ধান্ত নিতে জানে না। টাকার কাছে বিক্রি হয়ে যায় গরিবের ভোট। গণতন্ত্র অতএব এ দেশের প্রহসন। যথার্থ জনমত প্রতিফলিত হয় না। কিন্তু কথাটা যে কত ভ্রান্ত, ২০০৮ সালের নির্বাচনই তার উদাহরণ। যাদের অশিক্ষিত বলা হয়, তারা মূর্খ নয়, অজ্ঞান নয়, তারা সচেতন। আত্মচেতনাকে অর্থের কাছে বেঁচে দেয় না তারা। যেমন আত্মবিক্রয় করে তথাকথিত শিক্ষিত সমাজ নায়কেরাও অনেক সময় উচ্চপদ অর্জনের জন্য। যেমন মুহূর্তে বিসর্জন দেয় বিবেককে, ওরা তাদের মতো নয়। তারাই ওই অগণিত উপেক্ষিতের দলই গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে এনেছে। ক্ষমতাসীন মহাজোটকে ক্ষমতায় এনেছে ২০০৮ সালে। এরাই এ দেশের গণতন্ত্রের প্রতিশ্রুতি। এ দেশের গণতন্ত্র শিকড় থেকে রস নিয়ে পল্লবিত হয়ে উঠতে পারে এদের কারণেই। সমাজ জীবনের সর্বত্র প্রসারিত করে দিতে পারে গণতন্ত্রের শাখা-প্রশাখা। এরা জানে নির্বাচন গণতন্ত্রের প্রাণ। গণতন্ত্রকে সজীব রাখে। নবরসে সতেজ করে নির্বাচন। তাই নির্বাচনকে নিরপেক্ষ নিষ্কলুষ রাখারও দায় আছে জনগণের। এতবার দেশে যে নির্বাচনগুলো হয়ে গেল, তা থেকে কিছু অভিজ্ঞতা পেতে পারেন জনগণ। আবার যে নির্বাচন আসন্ন, সতর্ক হতে পারেন সে সম্পর্কেও। যেসব অশুভ শক্তি অবাধ, নিরপেক্ষ, স্বচ্ছ নির্বাচনকে বিঘিœত করতে পারে। নির্মূল করতে হবে সেই শক্তিগুলোকেও।

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে বানচাল করতে সংঘাত, হত্যা, নির্যাতন, অরাজকতা, নাশকতা চালিয়েছে যে শক্তিগুলো, তারা আবার মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। নির্বাচন যাতে সুষ্ঠু ও অবাধ হতে না পারে, সে জন্য নানা শর্ত, নানা দাবি-দাওয়া তুলে একটি অস্থিতিশীল পরিবেশ তৈরি করতে চায় আসন্ন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে। এরা সংবিধানবহির্ভূত বিধি-বিধান চালু করে নির্বাচনী ব্যবস্থাকে ধ্বংস করতে চায়। নির্বাচন কমিশন ও নির্বাচন বিধিকে শক্তিশালী করায় আগ্রহী নয়। হওয়ার কথাও নয়। কারণ, এরা এবং এদের পূর্বসূরি জান্তা শাসকরা নির্বাচন কমিশন এবং নির্বাচনী বিধি-ব্যবস্থাকে ধ্বংস করেছিল। তারা কেন চাইবে শক্তিশালী কমিশন, সে প্রশ্ন জাগা স্বাভাবিক। এরাই এক কোটির বেশি ভুয়া ভোটার তৈরি করেছিল, বৈতরণী পাড়ি দিতে। এরা মৃত মানুষের ভোটও বাক্সে ভরেছিল। ভোটকেন্দ্র দখল করে ব্যালটে সিল মারায় এরা এত বেশি দক্ষতা অর্জন করেছিল যে, সত্যিকারের ভোটাররা ভোট দিতে পারেনি, দলের ক্যাডাররা আগেই ভোট দিয়ে দিয়েছে। নির্বাচনে কারচুপিকে স্বাভাবিক বিচার পরিণত করেছিল জিয়া, এরশাদ, খালেদা, নিজামী গংরা। নির্বাচনী দুর্নীতি বন্ধ করে গণতন্ত্রের পবিত্রতা রক্ষার জন্য শেখ হাসিনার অজস্রবার উচ্চারিত আহ্বানকে ভ্রƒক্ষেপ করেনি। বরং ক্ষমতায় বসে শেখ হাসিনা অভিজ্ঞতার আলোকে নির্বাচন বিধি ও নির্বাচন কমিশনে সংস্কার আনেন। নির্বাচনকালে শাসক দল যাতে সরকারী শাসনকার্য ব্যবহার না করতে পারেন, সে ব্যবস্থাও করেছেন। ভোটার তালিকা হালনাগাদ করার বিধি চালু করেছেন। ভোট কেনাবেচা, জালভোট প্রদান, ভোটকেন্দ্র দখল, বলপ্রয়োগ ইত্যাকার বিষয় বন্ধের জন্য কতিপয় ব্যবস্থার পরিবর্তন আনেন। শেখ হাসিনা নির্বাচন কমিশনের স্বাধীনতায় বিশ্বাসী। সরকারী প্রভাবমুক্ত নির্বাচন কমিশনে তাই একাধিক কমিশনার পদ সৃষ্টি করেছেন তিনি। বেতার, টিভিতে সকল দলপ্রধানের বক্তব্য রাখার সুযোগ-সুবিধা বাড়িয়েছেন। জনপ্রতিনিধিত্ব আইনের বিভিন্ন ধারার সংশোধন করে অভিজ্ঞতার আলোকে যুগোপযোগী করেছেন কমিশন ও বিধি-বিধানসমূহ। নির্বাচনে কালো টাকা বন্ধ করার জন্য নির্বাচনী ব্যয় নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। রাজনৈতিক দলের আয়-ব্যয়ের হিসাব প্রদানও করা হয়েছে বাধ্যতামূলক। নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থাকবে অন্তর্বর্তী বা তদারকি সরকার কিংবা সহায়ক সরকারÑ যে নামেই ডাকা হোক। কোন প্রাকৃতিক বিপর্যয় ছাড়া প্রধানমন্ত্রী বা অন্য কোন মন্ত্রী সরকারী বিমান ব্যবহার করতে পারবেন না। জাতীয় স্বার্থের কোন জরুরী ঘোষণা ছাড়া, নির্বাচনী প্রচারের নির্ধারিত সময়ের বাইরে বেতার বা টিভিতে কিছু বলতে পারবেন না তারা। এই সময়ে নির্বাচন কমিশনের বিশেষ সেল বেতার ও টিভি নিয়ন্ত্রণ করবে। নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের বদলিও করা যাবে না প্রধানমন্ত্রী ও মন্ত্রীরা নতুন প্রকল্প ঘোষণা, ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনকারী রাস্তার ব্যবস্থায় হাত দেয়াও চলবে না ইত্যাদি। সুতরাং ক্ষমতাসীন সরকারের কাজই হবে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্পন্ন করতে ইসিকে লজিস্টিক সাপোর্ট প্রদান। শেখ হাসিনাও চান শক্তিশালী নির্বাচন কমিশন। তাই সকল দলের প্রস্তাবেও রাষ্ট্রপতির মনোনয়নে নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ মেনে নিয়েছেন। কোন পক্ষাবলম্বন করেননি। শেখ হাসিনা নিজেও বিশ্বাস করেন গণতন্ত্রকে সুরক্ষিত করতে হলে নির্বাচনের শুদ্ধিকরণ অত্যাবশ্যক। ছোট এই দেশ, বিপুল জনসংখ্যা তার। নানা অপশক্তি সক্রিয় নির্বাচনী ব্যবস্থাকে ভ-ুল করবে। বিএনপি-জামায়াত জোট গণতন্ত্রকে ধ্বংস করতে বাইরের তথা পাকিস্তানের অগণতান্ত্রিক শক্তিগুলোর প্ররোচনায় প্রত্যক্ষ উস্কানিও অবিরত কার্যকর। এই প্রেক্ষাপটে গণতন্ত্রের প্রাণ নির্বাচনকে নির্দোষ রাখতে হবে। নির্বাচন কমিশনের শক্তি ও ক্ষমতার প্রসার ঘটাতে হবে। নেতা কে হবেন, নিয়ন্ত্রণ কার হাতে থাকবে, গণতন্ত্র তা নিজেই খুঁজে নেয়। গণতন্ত্রে নাগরিকই বেছে নেন নিজের ভবিষ্যত। নির্বাচনের ফলাফলে নাগরিক শেষ পর্যন্ত যে বিষয়টির পরিচয় দেন, কে হলো তার বুদ্ধিমত্তা। কিন্তু ভারসাম্যহীন, একতরফা কোন আস্ফালনে যদি সেই বুদ্ধিমত্তা আচ্ছন্ন হয়ে পড়ে, তাহলে গণতন্ত্রের ধারণারই মৃত্যু ঘটে। যে কোন গণতান্ত্রিক রণাঙ্গনে নাগরিকের স্বাধীন চিন্তার প্রতিফলন কাক্সিক্ষত। তবে সেই স্বাধীন চিন্তা বা বুদ্ধির প্রয়োগের জন্য উপযুক্ত পরিবেশও জরুরী। কিন্তু রাজনীতির ময়দানে সংগ্রামের উপস্থিতি চিরন্তন। সংঘাত তীব্রতর হয়ে উঠাও অস্বাভাবিক ঘটনা নয় মোটেই। কিন্তু সংঘাতের পথ বেছে নেয়ার নামে নৈরাজ্যকে ছাড়পত্র দেয়ার অধিকার কারও নেই। নির্বাচন এলেই সংঘাতের আগমন বাড়তে থাকে। নির্বাচন কমিশন সেসব সংঘাত বন্ধে রাজনৈতিক দলগুলোর ওপর চাপ প্রয়োগ করতে পারে।

বাংলাদেশে নির্বাচন মানেই এক ধরনের উৎসব। এতে শামিল হয় ভোটার ছাড়াও অগণিত মানুষ। ভোটাররা যেমন প্রাণ পায়, তেমনি নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণায় ব্যাপক জনগণের অংশগ্রহণ উদ্দীপিত করে প্রার্থীদের। দেশের জাতীয় নির্বাচনসহ যে কোন নির্বাচন অনুষ্ঠানে কমিশনের ভূমিকা নিয়ে কতিপয় রাজনৈতিক দলের অভিযোগ অতীব পুরনো। এরা নির্বাচন কমিশন সম্প্রতি সাতটি কর্মপরিকল্পনা নিয়ে নির্বাচনী রোডম্যাপ ঘোষণা করেছে। আইনী কাঠামোগুলো সংস্কার, নির্বাচন প্রক্রিয়া সহজীকরণ ও যুগোপযোগী করতে পরামর্শ গ্রহণ, সংসদীয় এলাকার নির্বাচনী সীমানা পুনর্নির্ধারণ, নির্ভুল ভোটার তালিকা প্রণয়ন ও সরবরাহ। বিধি অনুসারে ভোটকেন্দ্র স্থাপন ইত্যাদি বিষয়ে যে রোডম্যাপ ঘোষণা করেছে, তা স্বচ্ছ ও অবাধ নির্বাচনের পথকে সুগম করবে। কিন্তু জামায়াত সঙ্গী বিএনপি এই রোডম্যাপ সম্পর্কে তাদের অজ্ঞতার যে নিদর্শন রেখেছেন, তাতে তারা তা মানেন না। অথচ কমিশনকে শক্তিশালী করার জন্য তাদের কোন উদ্যোগ নেই। এই রোডম্যাপ নিয়ে আলোচনার জন্য কমিশন সংলাপের আয়োজন করেছে। প্রথম দিনে অর্থাৎ আগামী ৩১ জুলাই তারা সুশীল সমাজের সঙ্গে বৈঠক করবে। কারা এই সুশীল! কিসের ভিত্তিতে তাদের বাছাই করা হয়েছে, তা এখনও অজ্ঞাত। জামায়াত-শিবির পরিচালিত মানবাধিকার কমিশন, নির্বাচন পর্যবেক্ষণ গ্রুপ, এনজিওপ্রধানরা যদি সুশীল হয়, তবে কমিশনের অশুভ যাত্রা শুরু হবে। টকশোতে অংশ নেয়া আর পত্রিকায় কলাম লেখা জামায়াতী মানসিকতার ধারক-বাহকদের সুশীল বানিয়ে যদি সংলাপ করা হয়, তবে সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য সহায়ক হবে না, হুদা কমিশন ও রকীব কমিশন যে সুশীলদের নিয়ে বৈঠক করেছিল, তাদের নির্বাচন সম্পর্কে ধারণাহীনরাও ছিলেন। নিরপেক্ষতা প্রমাণ করার জন্য কমিশন যদি সংবিধানবিরোধী এবং যুদ্ধাপরাধীদের প্রতি সহানুভূতিশীলদের সুশীল বানান, তবে ফলাফল হবে শূন্য। কমিশনের উচিত বৈঠকের আগেই এই সুশীলদের একাত্তর ও পঁচাত্তরের ভূমিকা যেমন স্পষ্ট হবে, তেমনি পক্ষপাতদুষ্ট অবস্থানও পরিষ্কার হবে। নির্বাচনকে কণ্টকমুক্ত করতে হলে অর্বাচীন, অজ্ঞ এবং এনজিও মার্কাদের পরিহার করাই হবে সঙ্গত।

SHARE
Previous articleঢাকা ছাড়ল প্রথম হজ ফ্লাইট
Next articleবৃষ্টি থাকছে আরো ২ দিন
সম্পাদক-বীর মুক্তিযোদ্ধা ইয়াকুব কবির, প্রকাশক-ফয়সাল ফারুকী অমি, প্রধান সম্পাদক - জাহিদ হাসান টুকন, নির্বাহী সম্পাদক-সাকিরুল কবীর রিটন বার্তা সম্পাদক-ডি এইচ দিলসান। নিউজ রুম ই-মেইল-magpienews24@gmail.com

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here