নির্মল বায়ু এবং টেকসই পরিবেশ

0
212

ঝাপসা হইয়া গিয়াছে দিল্লি। বায়ু দূষণের ভারী যবনিকা কিছুতেই অপসারিত হইতেছে না দিল্লির আকাশ হইতে। দিল্লি যেন পরিণত হইয়াছে ভয়ঙ্কর গ্যাস চেম্বারে। বায়ুপ্রবাহ প্রায় শূন্যের কোঠায় চলিয়া আসিয়াছে দিল্লি ও সংলগ্ন এলাকায়। এমতাবস্থায় বন্ধ করিয়া দেওয়া হইয়াছে দিল্লির সকল স্কুল। বিশেষ প্রয়োজন ব্যতীত প্রবীণ নাগরিকদের ঘরের বাহিরে না যাইবার পরামর্শ দিতেছেন দিল্লির চিকিত্সকেরা। প্রতি বত্সরই এই নভেম্বর মাসে তীব্র বায়ুদূষণের শিকার হয় দিল্লি। কিন্তু কোনো ধরনের ব্যবস্থাই এই দমবন্ধ অবস্থা হইতে মুক্তি দিতে পারিতেছে না দিল্লিকে। এই সময় তীব্র বায়ু দূষণের কারণ হিসাবে উঠিয়া আসিয়াছে পাঞ্জাব, হরিয়ানা ও রাজস্থানে ফসলের গোড়া পোড়াইবার ঘটনা। তাহা ছাড়া, গত ১৫ বত্সরে দিল্লিতে গাড়ির সংখ্যা বৃদ্ধি পাইয়াছে প্রায় ৯২ শতাংশ। দিল্লির সন্নিকটবর্তী তাপবিদ্যুত্ কেন্দ্রের কারণে বায়ু দূষণের জন্য দায়ী পারটিকুলেট ম্যাটার বৃদ্ধি পাইতেছে বিপুল হারে। অন্যদিকে নিয়ম না মানিয়া তৈরি হইতেছে বিভিন্ন আবাসন ও তাহার পরিকাঠামো।

দিল্লি ও বেইজিংয়ের বায়ু দূষণের পাশাপাশি ঢাকার অবস্থাও খুব স্বস্তিদায়ক নহে। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক গবেষণা সংস্থা হেলথ ইফেক্টস ইনস্টিটিউট এবং ইনস্টিটিউট ফর হেলথ মেট্রিকস অ্যান্ড ইভালুয়েশনের যৌথ উদ্যোগে এই বত্সর প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে বলা হইয়াছে যে, বায়ুতে যেইসকল ক্ষতিকর উপাদান রহিয়াছে, তাহার মধ্যে মানবদেহের জন্য সবচেয়ে ক্ষতিকর উপাদান হইতেছে পিএম ২.৫। এতদিন এই উপাদান সবচাইতে বেশি নির্গত করিত চীন। কিন্তু গত দুই বত্সরে চীনকে টপকাইয়া ওই দূষণকারী স্থানটি দখল করিয়াছে ভারত। আর অস্বস্তির কথা হইল—চীন ও ভারতের পরেই রহিয়াছে বাংলাদেশের অবস্থান। ইটভাটা, শিল্পকারখানার ধোঁয়া, যানবাহনের ধোঁয়া এবং সড়ক ও ভবন নির্মাণসামগ্রী হইতে তৈরি ধুলায় সৃষ্টি হয় ক্ষতিকর বায়ুবাহিত কণা। ঢাকা ও ঢাকার সন্নিকটে কয়লা ও জৈব জ্বালানি পোড়াইবার ফলে সবচাইতে বেশি সৃষ্টি হইতেছে ক্ষতিকর এই কণা। অন্যদিকে শুষ্ক মৌসুমে বাতাসে ওই ক্ষুদ্র কণাগুলি অধিক পরিমাণে পরিবাহিত হয়। প্রকৃতপক্ষে নির্মাণকাজে যাহাতে ধুলা কম হয়, তাহার জন্য দেশের প্রচলিত আইন রহিয়াছে। তাহা যথাযথভাবে মানিয়া চলিলেও ক্ষতিকর কণার দাপট হইতে রেহাই মিলিতে পারে বহুলাংশে। কিন্তু এই আইন মানিবার ব্যাপারে সংশ্লিষ্টদের সদিচ্ছার অভাব দেখা যায়।

বিশ্বে যে সকল কারণে সবচাইতে বেশি মানুষের মৃত্যু হয়, তাহার মধ্যে বায়ুদূষণ রহিয়াছে পঞ্চম স্থানে। বায়ু দূষণ নিয়ন্ত্রণ বিধিমালা বা নীতিমালা প্রণয়ন ও জনসচেতনতামূলক কার্যক্রমের মাধ্যমে নির্মল বায়ু ও পরিবেশের টেকসই উন্নয়নকল্পে ১৪৬ কোটি ৪ লক্ষ টাকা ব্যয়ে একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হইতেছে বটে। তবে মনে রাখিতে হইবে, নির্মল বায়ু এবং টেকসই পরিবেশ ব্যতীত টেকসই উন্নয়নও সম্ভব নহে। সুতরাং সময় থাকিতে বায়ুদূষণ হইতে রক্ষা পাইতে আরো ব্যাপক কার্যক্রম গ্রহণ করা প্রয়োজন। প্রয়োজন ব্যাপক জনসচেতনতা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here