নিহত ‘জঙ্গি’ শিবির কর্মী, পরিকল্পনা ছিল শোকের আয়োজনে হামলা

0
263

নিজস্ব প্রতিবেদক: পান্থপথে আবাসিক হোটেলে বিস্ফোরণে নিহত সন্দেহভাজন ‘জঙ্গি’র নাম ও পরিচয় জানিয়েছে পুলিশ। বাহিনীটির প্রধান এ কে এম শহীদুল হক জানিয়েছেন, নিহত ব্যক্তির নাম সাইফুল ইসলাম। তার বাড়ি খুলনার ডুমুরিয়া। তিন ছাত্র জীবনে জামায়াতের ছাত্র সংগঠন ইসলামী ছাত্রশিবিরের কর্মী ছিলেন। তিনি ১৫ আগস্ট শোক দিবসের আয়োজনে নাশকতার পরিকল্পনা করেছিলেন।

পুলিশ প্রধান জানান, এই ‘জঙ্গি’র তার নাম সাইফুল ইসলাম। তার বাড়ি খুলনার ডুমুরিয়া থানায়। তার বাবা একটি মসজিদের ইমাম। সে মাদ্রাসার ছাত্র ছিল। পরে খুলনার বিএম কলেজের ছাত্র ছিল। ছাত্র জীবনে সে ছাত্র শিবির করত।’

মঙ্গলবার জাতীয় শোক দিবসের নানা আয়োজনের ভিড়ে পান্থপথের হোটেল ওলিওকে ঘিরে পুলিশের এই অভিযান বড় খবর হয়ে দাঁড়ায়। ভোর থেকেই হোটেলটি ঘেরাও করে রাখে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

সকালে ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানাতে গিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান জানান, পান্থপথের একটি ভবনে জঙ্গিরা অবস্থান করছে বলে শুনেছি। পুলিশ, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য ও সোয়াট টিম ভবনটি ঘিরে রেখেছে। ভবনটিতে নাশকতার সরঞ্জমাদি থাকতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

আইজিপি জানান, সাইফুলকে অনুসরণ করে পান্থপথে ওলিও নামে ‘সাধারণ’ একটি হোটেলে অবস্থানের কথা জানতে পারে পুলিশ। পুলিশ তখন সেটি ঘেরাও করে তাকে বের হয়ে আসতে বলে।

‘আমরা তল্লাশি করে যখন ঘেরাও করলাম, তখন যে রেসপন্স পেলাম, তাতে বুঝলাম যে জঙ্গি।তাকে আমরা আটকে রাখলাম এবং তাকে সারেন্ডার করার জন্য বিভিন্নভাবে আমরা তাকে বলেছি। কিন্তু সে সারেন্ডার করে নাই, বাধ্য হয়ে পুলিশ অপারেশনে গেছে। পুলিশ যখন অপারেশন শুরু করেছে তখন সে একটি বোম, এক্সপ্লোসিভ ব্লাস্ট করে দরজা ভেঙে ফেলেছে। যখন আরেকটি বোমা ব্লাস্ট করতে যাবে, তখন পুলিশ গুলি করেছে।’

পুলিশ প্রধান বলেন, ‘নিহত জঙ্গির সাথে দুই দুইটা ভেস্ট (আত্মঘাতী বিস্ফোরক বাঁধা) ছিল, আইডি ছিল। সেগুলো দিয়ে সে নিজেই আত্মাহুতি দিয়েছে।’

সাইফুল যে কক্ষে ছিল, বিস্ফোরণে তার সব উড়ে গেছে জানিয়ে আইজিপি বলেন, ‘সাইড ওয়ালও উড়ে গেছে। তার মানে বোঝা যাচ্ছে এটা শক্তিশালী বিস্ফোরক বা আইডি।’

সাইফুল শোক দিবসের আয়োজনে নাশকরার চেষ্টায় ছিল জানিয়ে শহীদুল হক বলেন, ‘এটা যদি সে ব্লাস্ট করত কোনো জনসমাবেশে তাহলে বড় ধরনের ক্ষতি হতো। আল্লাহর রহমতে আমাদের গোয়েন্দাদের চৌকস তৎপরতার কারণে এই বিপদ থেকে আল্লাহ আমাদের রক্ষা করেছে।’

এক প্রশ্নের জবাবে আইজিপি বলেন, ‘জামায়াত শিবির না হলে জাতির জনকের হত্যার শোক দিবসে আরেকটি ঘটনা ঘটাবে-এটা ঘটাতে পারত না। জামায়াত-শিবিরসহ যারা এই হত্যা ঘটিয়েছিল তারা সবাই মিলে ষড়যন্ত্র করে আবার একটি ঘটনা ঘটানোর পরিকল্পনা করেছিল। আমরা আমাদের পুলিশ সে জঙ্গি হামলার চেষ্টা নস্যাৎ করে দিয়েছি।’

অন্য এক প্রশ্নের জবাবে পুলিশ প্রধান বলেন, ‘আগস্ট মাস আসলেই আমরা সতর্ক হই। অনেক ঘটনা ঘটেছে এই মাসে। আগস্ট মাসে জাতির জনককে হত্যা করা হয়েছে। ২১ আগস্টের ঘটনা ঘটেছে, ১৭ আগস্ট দেশব্যাপী বোমা হামলা চালান হয়েছে। আগস্ট আসলে আমরা আইনশৃঙ্খলাবাহিনী খুব সতর্ক হয়ে দায়িত্ব পালন করি। এই বিষয়টা মাথায় রেখেই আমরা নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করি। ঢাকায় শহরেও আমরা গোয়েন্দা নজরদারি বাড়িয়েছিলাম। তার ফলশ্রুতিতেই এই আস্তানাটা আমরা খুঁজে পাই।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here