নীতি ও আদর্শের বিচ্যুতি

0
275

ষাটের দশকে কোল্ড ওয়ার বা স্নায়ুযুদ্ধের সময় বিশ্বের দুই পরাশক্তি তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলিকে প্রতিনিয়ত অস্থির করিয়া রাখিয়াছিল। একজনের লক্ষ্য ছিল এইসব অনুন্নত ও উন্নয়নশীল দেশে সমাজতন্ত্র রফতানি করা, অন্যপক্ষের উদ্দেশ্য ছিল গণতন্ত্র রফতানি করা। এই দুই রফতানির মারপ্যাঁচে পড়িয়া এইসব দেশের দুর্দশা ও দুর্গতির সীমা ছিল না। স্নায়ুযুদ্ধের বলির পাঁঠাও ছিল এইসব দেশ। বেশ কয়েকজন রাষ্ট্রনায়ক হত্যাকাণ্ডেরও শিকার হন। সেই সময় গণতান্ত্রিক শিবিরের অভিযোগ ছিল, সমাজতান্ত্রিক ব্লক এইসব দেশে আয়রন রুলার বা লৌহশাসকের জন্ম দিতেছে। এইসব স্বৈরশাসক জনগণের নাগরিক ও সার্বজনীন অধিকার কাড়িয়া নিতেছে। ক্ষুণ্ন করিতেছে মানবাধিকার। কিন্তু স্বৈরশাসক তৈরির অভিযোগ একসময় তাহাদের বিরুদ্ধেও উঠিতে শুরু করে। মধ্যপ্রাচ্য যাহার জ্বলন্ত উদাহরণ। এখন লক্ষ্য করা যাইতেছে, সেইসব গণতন্ত্রপ্রিয় দেশগুলি নিজেরাই কোনো কোনো ক্ষেত্রে গণতান্ত্রিক রীতি-নীতিকে জলাঞ্জলি দিতেছে। বিস্ময়কর ব্যাপার হইল, গণতন্ত্রের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অনুষঙ্গ প্লুুরালিজম বা বহুত্ববাদ, মাল্টি কালচারালিজম বা বহু সংস্কৃতিবাদ, গ্লোবালাইজেশন বা বিশ্বায়ন ইত্যাদি শব্দ আর সেইভাবে ধ্বনিত-প্রতিধ্বনিত হইতেছে না। অনেক ক্ষেত্রে সেইসব দেশেও এইসব জ্ঞানগর্ভ তত্ত্ব হালে পানি পাইতেছে না।

এই বত্সরের শুরুতে এই বিশ্বের ক্ষমতাধর একটি দেশে একজন নূতন প্রেসিডেন্টের আবির্ভাব ঘটে যাহাকে পৃথিবীর তাবত্ দেশ এখনও বুঝিয়া উঠিতে পারিতেছে না। বুদ্ধিজীবী ও জ্ঞানী-গুণী ব্যক্তিরা তাহার নাড়িনক্ষত্র ধরিতে হিমশিম খাইতেছেন। প্রথম হইতেই তিনি একের পর এক বিতর্ক সৃষ্টি করিয়া লাইমলাইটে চলিয়া আসেন। প্রেসিডেন্টের পদ অলঙ্কারের পরই তিনি কয়েকটি মুসলিম দেশের নাগরিকদের জন্য তাহার দেশের দরজা বন্ধ করিয়া দেন। প্রতিবেশী একটি দেশের নাগরিকদের প্রতি তিনি এতটাই ক্ষেপিয়া যান যে, তাহারা যেন তাহার দেশে প্রবেশ করিতে না পারে, এইজন্য দেওয়াল তুলিয়া দেওয়ারও ঘোষণা দেন। এমনকি সেই দেওয়াল তৈরি বাবদ যে খরচ হইবে, তাহা সেই প্রতিবেশী দেশের নিকট হইতে আদায়েরও হুমকি দেন। এইভাবে সংরক্ষণবাদিতার এমন নীতি তিনি গ্রহণ করেন যাহা গ্লোবাল ভিলেজ নীতি বা গণতান্ত্রিক আদর্শের সহিত অসামঞ্জস্যপূর্ণ। তাহাছাড়া সমাজতান্ত্রিক দেশের কতগুলি নেতিবাচক বৈশিষ্ট্য আছে, যাহা ইউরোপ-আমেরিকার মতো কোনো কোনো উন্নত গণতান্ত্রিক দেশ এখন অনুসরণ করিয়া চলিতেছে যাহা দেখিয়া উন্নয়নশীল দেশগুলি প্রমাদ গুনিতেছে। লিবারাল ডেমোক্রেসি বা উদার গণতন্ত্র জনগণের কয়েকটি অধিকার রক্ষার ব্যাপারে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ ও যত্নশীল। যেমন—মতপ্রকাশের স্বাধীনতা, আইনের শাসনের মাধ্যমে ফেয়ার ট্রায়াল বা ন্যায়বিচার লাভ করা, নির্বাচনে মুক্তভাবে ভোট দেওয়া, নিজ নিজ ধর্মপালনের স্বাধীনতা, ইউনিয়ন করা বা ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান গড়িয়া তুলিবার স্বাধীনতা ইত্যাদি। কিন্তু এইসব দেশে অনেক ক্ষেত্রে এইসব স্বাধীনতা এখন হুমকির মুখে পড়িয়াছে। এমনকি অন্য দেশের মানবাধিকার রক্ষায় তাহারা সোচ্চার হইলেও অনেক সময় নিজ দেশের মানবাধিকার রক্ষায় তাহারা পালন করিতেছেন নীরব দর্শকের ভূমিকা। এইসব দেশে মাল্টি কালচারালিজম বা বহু সংস্কৃতিবাদও এখন যথেষ্ট প্রতিকূলতার সম্মুখীন। কোনো কোনো ক্ষেত্রে মাথাচাড়া দিয়া উঠিয়াছে বর্ণবাদ। এমতাবস্থায় উন্নয়নশীল দেশগুলির করণীয় কী? নীতি ও আদর্শ হইতে বিচ্যুতদের নসিহতকে যথাসম্ভব এড়াইয়া চলার নীতি গ্রহণ করা কি তাহাদের অসংগত হইবে?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here