নেংগুড়াহাট রাজাকারদের ধ্বংশের পরিত্যক্ত ১ মেঃ টন ওজনের বোমাটি এখনো অবহেলিত ভাবে পড়ে রয়েছে

0
441

স্বাধীন বাংলায় স্বাধীনতায় যুদ্ধের সেই বোমাটি দেখেও না দেখার ভান করে পড়ে আছে মুক্তিযোদ্ধা ফজলুর রহমানের বাড়িতে

উত্তম চক্রবর্তী : একাত্তরের রাজাকারদের ধ্বংশ করতে ভারতীয় মিত্র বাহিনী প্লেন থেকে ঐ সময় ১ মেঃ টন ওজনের একটি বোমাটি নিক্ষেপ করলেও সেটি বিষ্ফোরন ঘটেনি। ক্ষেপনাস্ত্রটি পরিত্যাক্তের ন্যায়কে এক মুক্তিযোদ্ধার বাড়িতে সংরক্ষন করে রাখা হয়েছে।
যশোরের মনিরামপুর উপজেলার নেংগুড়াহাট ১১নং চালুয়াহাটি গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা ফজলুর রহমানের মৃত্যু হওয়ায় তার ছেলে জিল্লুর রহমান তার পিতার বরাদ দিয়ে জানান, এ এলাকায় রাজগঞ্জ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে রাজাকার বাহিনীর ঘাটিতে মিত্র বাহিনী এই ক্ষেপনাস্ত্র বিষ্ফোরন ঘটিয়ে রাজাকার ধ্বংশ করবে বলে এমন আশায় তারা ভারতীয় প্লেন থেকে এটি ভূপাত ঘটায়। কিন্তু ম্যাপ পয়েন্টে ভুল করায় সেই বোমাটি পার্শ্ব বর্তী নেংগুড়াহাট বাজারের চালুয়াহাটী গ্রামের উত্তর পাড়া মসজিদের পাশের্র বাশ বাগানে ফেলাই । কিন্তু দূভাগ্য ক্রমে বোমাটি বিষ্ফোরিত না হওয়ায় জীবনে বেচে যায় এ অঞ্চালের হাজার হাজর সাধারন মানুষ। তবে এ সময় এলাকার ৩/৪ কিলোমিটারের ভীতরের মানুষ ঘরবাড়ি ছেড়ে অন্যত্রে চলে যায়। তিনি আরো জানান , বোমাটি পড়ার ২ দিন পর স্থানীয় রাজাকার বাহিনীর লোকজন এসে পরীক্ষা করে সেটি আর বিষ্ফোরন হওয়ার সম্ভবনা নেই বলে জানানোর পর স্থানীয় চালুয়াহাটি গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা ফজলুর রহমান পরিত্যক্ত বোমাটি তার বাড়িতে নিয়ে রাখেন। সেই অবধী সেটি সেখানে পড়ে থাকলেও সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কোন নজরে আসেনি। দীর্ঘকাল ধরে ক্ষেপনাস্ত্রটি ঐ বাড়িতে অবহেলিত অবস্থায় পড়ে থাকার পর বছর তিনেক আগে বাড়ি ওয়ালা সেটি ঘিরে রেখেছে। সরকারী ভাবে ১ মেঃ টন (২৭ মন) ওজনের এই বোমাটি যদি সংরক্ষন করা হতো তাহলে হয়তো বিভিন্ন এলাকা থেকে বোমাটি দেখতে হাজার হাজার মানুষ এখানে ভীড় জমাতো । বোমাটি উক্ত স্থানে সরকারি ভাবে সংরক্ষণ করার জন্য জোর দারি জানিয়েছেন এলাকাবাসি।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here