ন্যূনতম মজুরি নেই ৫৮ শিল্প খাতে

0
424

নিজস্ব প্রতিবেদক : ন্যূনতম মজুরি ঘোষণা হয়, কিন্তু বাস্তবায়ন হয় না। এ পর্যন্ত ৪২টি পেশায় ন্যূনতম মজুরি ঘোষণা করা হলেও কোনো খাতেই শতভাগ বাস্তবায়ন হয়নি। কোনো কোনো ক্ষেত্রে নির্ধারিত মজুরিও অত্যন্ত কম। এখন পর্যন্ত অন্তত ৫৮ শিল্পে নূ্যনতম মজুরি ঘোষণাই করা হয়নি। প্রতি পাঁচ বছরের মধ্যে মজুরি পর্যালোচনার নিয়ম থাকলেও একবারও পর্যালোচনা করা হয়নি ঘোষিত বেশিরভাগ শিল্পে। অন্যদিকে, ন্যূনতম মজুরি বাস্তবায়ন না হওয়াসহ শিল্পকারখানায় শ্রম আইন লঙ্ঘনের দায়ে গত এক বছরে ৮৭২টি মামলা করেছে কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর (ডিআইএফই)।
ন্যূনতম মজুরি বোর্ড সূত্রে জানা যায়, স্বাধীনতার পর এ পর্যন্ত ৪২টি শিল্পে ন্যূনতম মজুরি ঘোষণা করা হয়েছে। সর্বশেষ গত মাসে ওষুধ শিল্পে ন্যূনতম মজুরি ঘোষণা করা হয়। এ ছাড়া জাহাজভাঙা ও টি-প্যাকেটিং শিল্পে মজুরি বোর্ড গঠন করা হয়েছে। এরই মধ্যে দুই বোর্ডেরই কয়েকটি সভা হয়েছে। এর বাইরে সিরামিকস, সিমেন্ট, বৈদ্যুতিক, ইটভাটাসহ আরও ১০টি শিল্পে মজুরি নির্ধারণে বোর্ড গঠনের প্রস্তাব বিবেচনায় রয়েছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে বোর্ডের এক শীর্ষ কর্মকর্তা বলেন, মন্ত্রণালয় না চাইলে বোর্ড নিজে থেকে কোনো খাতের মজুরি বোর্ড গঠন করতে পারে না। সাধারণ শ্রমিকদের চাপ থাকলে সরকার বোর্ড করে থাকে বলেও জানান তিনি। মজুরি বোর্ডের সভাপতি, সদস্য, মালিকপক্ষ ও শ্রমিক প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে খাতভিত্তিক ন্যূনতম মজুরি বোর্ড গঠনের মাধ্যমে মজুরি নির্ধারণ করা হয়।
ডিআইএফইর উপপ্রধান পরিদর্শক মাহফুজুর রহমান ভূঁইয়া জানান, শিল্প প্রতিষ্ঠান হিসেবে ডিআইএফইর কাছ থেকে লাইসেন্স নিয়েছে ৫৪টি শিল্প। এর বাইরে বিবিধ আকারে আরও অন্তত ৫০টি শিল্প খাতে লাইসেন্স দেওয়া হয়েছে। মজুরি বোর্ডের তথ্যমতে, ৪২টি শিল্পে ন্যূনতম মজুরি বোর্ড গঠন করা হয়েছে। বাকি ৫৮ শিল্প এখনও ন্যূনতম মজুরির বাইরে রয়ে গেছে।
ন্যূনতম মজুরি বোর্ড ঘোষিত মজুরিও অনেক ক্ষেত্রে অস্বাভাবিক কম। মজুরি বোর্ডের ওয়েবসাইটে দেওয়া তথ্যে দেখা যায়, পেট্রোল পাম্প শ্রমিক-কর্মচারীদের জন্য মাসিক মজুরি ঘোষণা করা হয়েছে মাত্র ৭৯২ টাকা। মূল মজুরি ধরা হয়েছে ৫৬০ টাকা; বাড়ি ভাড়া ১১২ টাকা ও যাতায়াত বাবদ ২০ টাকা। ১৯৮৭ সালে মজুরি ঘোষণার পর এখন পর্যন্ত তা পর্যালোচনা করা হয়নি। পাঁচ বছরের মধ্যে মজুরি পর্যালোচনার নিয়ম থাকলেও গত ৩০ বছরেও কোনো কোনো খাতের মজুরি পর্যালোচনা না হওয়া প্রসঙ্গে মজুরি বোর্ডের কর্মকর্তারা জানান, মন্ত্রণালয় থেকে আদেশ পেলেই কেবল তারা মজুরি বোর্ড গঠন কিংবা পর্যালোচনা করে থাকেন। পর্যালোচনার জন্য সে রকম কোনো আদেশ তারা পাননি।
ঘোষিত মজুরিও বাস্তবায়ন হয় না সব শিল্পে। ডিআইএফইর সর্বশেষ কমপ্লায়েন্স প্রতিবেদন অনুযায়ী, ১০ শতাংশ কারখানায় সরকার ঘোষিত ন্যূনতম মজুরি কাঠামো অনুসরণ করা হয় না। একই সংখ্যক কারখানার শ্রমিকরা নিয়মিত মজুরি পান না। মূলত বড় কারখানার সাব-কন্ট্রাক্টের কাজ হয় এসব কারখানায়। প্রতিবেদন অনুযায়ী, ট্রেড ইউনিয়ন নেই ৯৭ শতাংশ কারখানায়। পার্টিসিপেটরি কমিটি নেই ৬৫ শতাংশ কারখানায়। ৯ শতাংশ কারখানায় শ্রমিকরা কাজ করেও ওভারটাইম পান না। এমনকি মাতৃত্বকালীন ছুটি দেওয়া হয় না ৩৫ শতাংশ কারখানায়। পরিদর্শনে এ রকম ২৬টি সূচকের সবক’টিতেই দুর্বলতা পাওয়া গেছে। তবে শিশুশ্রম প্রশ্নে আশাব্যঞ্জক অগ্রগতি হয়েছে। মাত্র ১ শতাংশ কারখানায় শিশুশ্রমের অস্তিত্ব পাওয়া গেছে।বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব লেবার স্টাডিসের (বিলস) তথ্যমতে, দেশে বর্তমানে কর্মক্ষম শ্রমশক্তি ছয় কোটি ৭০ লাখ। এর মধ্যে কর্মে নিয়োজিত পাঁচ কোটি ৬৭ লাখ। মাত্র ২০ শতাংশ শ্রমিক প্রাতিষ্ঠানিক খাতে নিয়োজিত। বাকিদের শ্রমকে এখনও শিল্প-কাঠামোর আওতায় আনা হয়নি। বিলসের অ্যাডভোকেসি কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম সমকালকে বলেন, ন্যূনতম মজুরি ঘোষণা হওয়ার পরও অনেক শিল্পের মালিক তা মানতে চান না। সেখানে শ্রমিকরা কীভাবে বঞ্চিত হচ্ছেন, তা সহজেই অনুমান করা যায়। তার মতে, সব শিল্পের জন্য একটি জাতীয় ন্যূনতম মজুরি কাঠামো থাকা উচিত। এর ভিত্তিতে নির্ধারণ করা হলে শ্রমিকদের নূ্যনতম মজুরি সুবিচারপূর্ণ হবে।
এক বছরে ৮৭২টি মামলা: শিল্পকারখানায় শ্রম আইন লঙ্ঘনের দায়ে গত এক বছরে শ্রম আদালতে ৮৭২টি মামলা করেছে ডিআইএফই। এর মধ্যে পোশাক শিল্পকারখানা মালিকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে ৫৮৪টি, অন্যান্য শিল্পে মামলার সংখ্যা ২৮৮টি। গত এক বছরে দুই হাজার ৫২৭টি পোশাক কারখানা, ২০ হাজার ৩২৪টি পোশাকবহির্ভূত কারখানা, পাঁচ হাজার ৫৮৭টি দোকান ও অন্যান্য তিন হাজার ৪০৭টি প্রতিষ্ঠান পরিদর্শনে বিভিন্ন অনিয়মের প্রমাণ পাওয়ায় এসব মামলা করা হয়।
এক বছরে কর্মক্ষেত্রে ৭০০ শ্রমিকের মৃত্যু: ২০১৬ সালে কর্মক্ষেত্রে শ্রমিকদের হতাহতের সংখ্যা নিয়ে একটি জরিপ চালিয়েছে বিলস। এতে দেখা যায়, গত বছর ৬৯৯ শ্রমিক কর্মক্ষেত্রে নিহত হয়েছেন। নিহতদের মধ্যে ৬৭১ পুরুষ, বাকি ২৮ জন নারী। নিহতদের মধ্যে সর্বাধিক সংখ্যক ২৪৯ জন পরিবহন খাতের শ্রমিক। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ শ্রমিক নিহত হয়েছেন নির্মাণ শিল্পে; তার সংখ্যা ৮৫। তবে সবচেয়ে বড় শিল্প পোশাক খাতে এ সংখ্যা ছিল নয়জন। একই সময়ে আহত শ্রমিকের সংখ্যা ছিল ৭০৩ জন। আহতদের মধ্যে বেশিরভাগই ছিল পোশাক খাতে। ২০৬ জন পোশাক শ্রমিক এ সময় আহত হন। জরিপ অনুযায়ী, এ সময় শ্রম অসন্তোষ ও শ্রমিক আন্দোলনের ঘটনা ঘটেছে ২৩৭টি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here