নড়াইলে কোটিপতি পিওন…..!

0
2475

নড়াইল প্রতিনিধি: কোটিপতি পিওন নাম তরিকুল ইসলাম। কাজ করেন নড়াইলের কালিয়া উপজেলা সাবরেজিষ্ট্রি অফিসে। কালিয়া উপজেলার গাছবাড়িয়া গ্রামের শাহাদত মুন্সীর ছেলে স্থানীয় হওয়ার সুবাদে নড়াইল-১ আসনের সংসদ সদস্য কবিরুল হক মুক্তি, কালিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান খান শামীমূর রহমান ওছিসহ রাজনৈতিক নেতাদের ছত্রছায়ায় পরোয়া করেনা কাউকেই। যখন যা খুশি তাই করতে পারেন তিনি কোথায় অফিস করবেন কোন অফিসে চাকুরী করবেন আফিসে আসবেন কিনা সবই তার মর্জির উপর চলে। চলবেনাই বা কেন রয়েছে উপর মহলে লম্বাহাত। কোথাও বদলি হলে কয়েক দিনের মধ্যেই পুনরায় ফিরে আসেন সেখানে কালিয়ায় আর ফিরে এসেই নতুন উদ্দমে শুরু করেন তার অপকর্ম। দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তারা যেখানে দুদকের কার্যক্রমে তঠস্থ সেখানে দুদক কর্মকর্তাদের বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে চালিয়ে যাচ্ছেন তার কার্যক্রম।
সম্প্রতি কালিয়া সাবরেজিষ্ট্রি অফিস পরিদর্শনে গেলে তরিকুলের এসব অবৈধ সম্পদ এবং অস্বাভাবিক আচরনের অভিযোগ আসে দুদকের কমিশনার এএফএম আমিনুল ইসলামের কাছে। এপর দুদকের নির্দেশে তাকে কালিয়া থেকে লোহাগড়ায় বদলী করেন জেলা রেজিষ্ট্রার। কিন্তু সেখানে তিনি ১০ দিনের মধ্যে মাত্র একদিন অফিস করেন বাকি দিনগুলোতে অফিসের বিনা অনুমতিতে ঢাকায় গিয়ে তদ্বির করে পুনরায় কালিয়ায় বদলী  হয়ে যোগদান করেছে।
জানা গেছে, পিয়ন তরিকুল ইসলাম। স্থানীয় হোমরা চোমরার সাথে তার ওঠাবসা। এই দাপটে অফিসের সব কর্মকর্তা আর দলিল লেখকেরা তার নিয়ন্ত্রণে। কর্মকর্তাদের নিজ শাসনে রেখে জমির দলিলের শ্রেণি পরিবর্তন করে রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে কম টাকায় দলিল সম্পাদন করে জমিক্রেতার কাছ থেকে আদায় করেন অতিরিক্ত অর্থ। আর এই ঘুষের অর্থ দিয়ে অফিস ম্যানেজ করে আয় করে গড়ে তুলেছেন কোটি টাকার সম্পদ। বার বার কালিয়া উপজেলা থেকে তাকে অন্যত্র বদলীর উদ্যোগ নিলেও ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবশালীদের জোরে তিনি পার পেয়ে যান।
২০০১ সালের ৫ সেপ্টেম্বর নড়াইল জেলা রেজিস্ট্রি অফিসে নাইটগার্ড পদে যোগদান করেন তরিকুল। এরপর ২০০৩ সালের ৮ ফেব্রুয়ারী পিওন পদে পদোন্নতি পান। একই পদে ২০০৫ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি কালিয়ায় বদলী হন। কালিয়া অফিসে যোগদানের পর থেকেই শুরু হয় তরিকুলের অবৈধ আয় বানিজ্য। সর্বশেষ দুদকের চাপে  চলতি বছরে ২৭ ফেব্রুয়ারী তাকে লোহাগড়া অফিসে যোগদান করতে বলা হয়। এখানে যোগদানের পর থেকে তিনি আর অফিসে না গিয়ে সোজা ঢাকা থেকে তদ্বির করে  ১২ মার্চ তারিখে পুনরায় কালিয়াতে যোগ দেন। কালিয়া উপজেলা সাবরেজিষ্ট্রি অফিসে গিয়ে দেখা যায় অফিসের বাইরে তরিকুলের দামী পালসার, সাংবাদিক দেখে সটকে পড়ে তরিকুল। তবে থেমে থাকেননি, নিজের টাকা আয়ের ঘাটিতে ফিরে আসতে মরিয়া হয়ে তাকে পুনরায় কালিয়ায় বদলী করার জন্য দলিল লেখকদের ভয় দেখিয়ে কাগজে স্বাক্ষর নিচ্ছেন। ইতিমধ্যে ৩২ জন স্বাক্ষর ও করেছেন। নিজের অনিচ্ছায় স্বাক্ষর করা দলিল লেখকেরাও সাংবাদিক দেখে ভয়ে সটকে পড়ছেন।
খোজ নিয়ে জানা গেছে, ২০০৫ সালে কালিয়া সাবরেজিষ্ট্রি অফিসে যোগদানের পর থেকে তার নিজের দুই ভগ্নিপতি আর আপন এক ভাইকে দলিল লেখক বানিয়ে তরিকুল তার অবৈধ বানিজ্যের কারবার শুরু করেন। আর এসব কাজে তাকে সহায়তা করেন বড় ভাই রিপন মুন্সী তিনি ফরিদপুর সাবরেজিস্ট্রি অফিসের প্রধান অফিস সহকারী। তার মাধ্যমেই উপরের কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করেন তরিকুল। এসব কারনে দলিল লেখকেরা তরিকুলের বিপক্ষে মুখ খুলতে সাহস পান না আর কেউ মুখ খুললে নিজ ক্ষমতাবলে তার রেজিষ্ট্রেশন (দলিল লেখার লাইসেন্স) স্থগিত করে রেখে দেন।
কালিয়া সাবরেজিষ্ট্রি অফিসের কয়েকজন দলিল লেখক জানান, অফিসে যে সব দলিল রেজিষ্ট্রি হয় তার মধ্যে সরকারি নানা ধরনের ফি জমির ক্রেতা পরিশোধ করার পরে রেজিষ্ট্রি সম্পাদন করতে নানা অজুহাতে অফিস খরচ, নকলনবিশ খরচ, লেখক সমিতির ব্যয়, উপজেলা মসজিদ বাবদ অলিখিত খাতে দলিল প্রতি ৪ হাজার টাকা থেকে ১৫ হাজার টাকা পর্যন্ত নেয়া হয়। এসব টাকা লেন-দেন করেন পিওন তরিকুল। গড়ে প্রতিমাসে ৪’শ দলিল রেজিষ্ট্রি হলে তা থেকে অবৈধ ভাবে গড়পড়তা দলিল প্রতি ৬ হাজার টাকা আদায় করা হয়। এভাবে মাসে অবৈধ টাকা আয় হয় প্রায় ২৪ লক্ষ টাকা। অফিস, স্থানীয় প্রভাবশালী নেতাসহ অনান্য সব ম্যানেজ করার পরে প্রতিমাসে ১২ থেকে ১৫ লক্ষ টাকা আয় এই পিওনের। গত ১২ বছরে এই আয় অন্ততঃ ২০ কোটি টাকা। এই টাকায় তিনি নড়াইল শহরে স্ত্রী নাসির বেগমের নামে গড়ে তুলেছেন তিনতলা বিশিষ্ঠ আলিশান বাড়ি। ভবনের দ্বিতীয়তলা বসবাস করছেন। নিজেরসহ ভাইদের নামে শহরে অন্ততঃ ১০টি জমি রয়েছে। বাগের হাটের চিতলমারিতে রয়েছে প্রায় ৮০ বিঘা জমির বিশাল মাছের ঘের। সেখানে ও তার আরেক স্ত্রী আর সন্তান রয়েছে তারা তার সম্পত্তি দেখভাল করেন। নড়াইল ও কালিয়ার বড় বড় সব লোকদের সাথে তার ওঠাবসা মদের আসরে বসা এগুলো এখন নিত্য নৈমিত্তিক ব্যাপার। ব্যক্তিগত কাজে ঢাকায় যাওয়া আসা করেন  বিমানে চড়ে নিজের চলাচলের জন্য রয়েছে সর্বশেষ মডেলের পালসার মোটর সাইকেল। আরো কতকিছু যে রয়েছে তার সন্ধান পাওয়া ও বেশ কষ্টসাধ্য ব্যাপার কারন ভয়ে কেউ মুখ খুলতে চায়না।
এখানেই শেষ নয় স্থানীয় এক সাংবাদিক এসব বিষয়ে খোঁজ নিতে জেলা রেজিষ্টার অফিসে ফোন করলে তা তরিকুলের কানে যায়, তিনি (তরিকুল) ঐ সাংবাদিককে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে তাকে দুনিয়া থেকে সরিয়ে দেবার হুমকী দেন। এ ঘটনার পরে তিনি কালিয়া অফিসে গিয়ে অন্যদের ভয় দেখানোর জন্য বলেন, ‘জানিস আমি হলাম সাংবাদিক পেটানো তরিকুল, নড়াইলের এক সাংবাদিক আমার পেছনে লাগতে এসছিলো, তাকে ইচ্ছামতো পিটিয়েছি’।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, কালিয়া সাবরেজিস্ট্রি অফিসের নকলনবীশ সর্দার মঞ্জুরুল আলমের সহায়তায় অবৈধ টাকা পয়সা আদায় করা হয়। সপ্তাহের রোববারে এখানে দলিল রেজিষ্ট্রি হয়। ঐ দিন সন্ধ্যায় অফিসে বসে এই সকল অবৈধ টাকার লেনদেন করেন এরা। এছাড়া তরিকুলের আপন দুই ভগ্নিপতি দলিল লেখক বাদশা ও মাজাহারুল এবং আরেকভাই শফিকুল মুন্সিসহ এই কয়েকজনের সিন্ডিকেটের মাধ্যমে সকল অনিয়মের টাকা সন্ধ্যায় ভাগবাটোয়ারা করেন তরিকুল নিজে, যার সিংহভাগই গ্রহন করেন তিনি। আর স্থানীয় সংসদ সদস্য, উপজেলা চেয়ারম্যান, সাবরেজিষ্ট্রারসহ অফিসের অন্যদের ভাগ করে দেন এই তরিকুল।
কালিয়া উপজেলা সাবরেজিষ্ট্রি অফিস সূত্রে জানা গেছে, প্রতিমাসে কালিয়া সাবরেজিস্ট্রি থেকে প্রায় ৪’শ দলিল সম্পাদিত হয়। বিগত ২০১২ সাল থেকে ৫ বছরে মোট দলিল সম্পাদিত হয়েছে ২২ হাজার ৭’শ ৬৪টি। এর মধ্যে ২০১২ সালে ৪ হাজার ৩’শ ১৫টি, ২০১৩ সালে ৪হাজার ২১৪, ২০১৪ সালে ৪ হাজার ৯০১টি, ২০১৫ সালে ৪ হাজার ৮৩৭টি এবং ২০১৬ সালে ৪ হাজার ৪৯৭টি সম্পাদিত হয়েছে। এই হিসাবে গড়ে প্রতিবছর সম্পাদিত দলিলের পরিমান প্রায় সাড়ে ৪ হাজার। এই হিসেবে বছরে অবৈধ আয়  ২কোটি ৭০ লক্ষ টাকা  ১২ বছরে যার পরিমান প্রায় ৩২ কোটি। নানা জায়গায় এই টাকা ভাগ দিয়ে এই কয় বছরে তরিকুল অন্ততঃ ২০-২৫ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।
জমির জালিয়াতিতে ভূক্তভোগীরা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, জমি কিনতে গেলে সরকারি খাতে যে টাকা দিতে হয় তা কমানোর জন্য শ্রেণি পরিবর্তন করছি কিছু টাকা কম লাগার জন্য কিন্তু রেজিষ্ট্রি অফিসের তরিকুল আর তার ভাই বিগার যেভাবে বাড়তি টাকা নিয়ে নেয় তাতে সরকারের খাতে টাকা যাওয়াই বরং ভালো।
ডোবা জমি ডাঙ্গা দেখিয়ে কিম্বা পুকুর দেখিয়ে যতসব আকাম করে তরিকুল আর আতœীয় স্বজন। তরিকুল নিজের প্রভাব খাটিয়ে অধিকাংশ দলিল ভগ্নিপতি আর ভাইয়ের মাধ্যমে রেজিষ্ট্রেশন করায়। তার প্রভাবের কারনে এখানে কোন সমিতি দাড়াতে পারেনি অথচ অসহায় দলিল লেখকেরা না খেয়ে মরছে।
জেলার সকল উপজেলায় দলিল লেখক সমিতি থাকলে ও কালিয়াতে ৫২ জন দলিল লেখকের কোন সমিতি কার্যকরী নাই। ২০১১সালে কয়েকজনের উদ্যোগে একটি সমিতি রেজিষ্ট্রেন করেন যার নং-৩৮/নড়াইল। এদের মধ্যে মুরাদ হোসেন ৩ বছর অগে মালয়েশিয়ায় এবং হাসিবুল আলম উজ্জ্বল সৌদি আরব থাকলেও তাদের রেজিষ্ট্রেশন টিকিয়ে রেখেছেন অফিসের কর্তারা। এই সমিতির বর্তমান সভাপতি মোশাররফ হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক অচিন্ত্য বিশ্বাস।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে দলিল লেখক সমিতির একজন নেতা বলেন, এখানকার সমিতি আর অফিসের মাতবর তরিকুল। তার বিরুদ্ধে কথা বলায় সে ১৫ মার্চ তারিখে ফোনে আমার লাইসেন্স কেড়ে নেবার হুমকী দিয়েছে। লোহাগড়া উপজেলা সাবরেজিষ্টার মঞ্জুরুল ইসলাম জানান, গত ২৭ ফেব্রুয়ারী সে লোহাগড়ায় যোগদান করে ৩দিনের ছুটি নিয়ে আর অফিসে আসেনি, আইজিআর (মহাপরিদর্শক-রেজিষ্টার)এর বদলীর আদেশ আসলে ৮মার্চ তারিখে তাকে পুনরায় ডিসচার্জ করে দেয়া হয়।
কালিয়া উপজেলা সাব রেজিষ্ট্রারার কার্ত্তিক জোয়ার্দ্দার বলেন, সে (তরিকুল) গত সপ্তাহে আবার তার রি অর্ডার করিয়ে কালিয়াতে যোগদান করেছেন। তার দূর্নীতি ও অবৈধ আয়ের ব্যাপারে কোন কিছু তিনি জানেন না বলে জানান। আর এসবের সাথে নিজের সংশ্লিষ্টতা ও অস্বীকার করেন।
নড়াইল জেলা রেজিষ্টার শেখ মোহাম্মদ হাবিবুল্লাহ জানান, দুদকের আদেশের ভিত্তিতেই তাকে লোহাগড়া বদলী করা হয়েছিলো। পরে সে আবার ঢাকা থেকে আদেশ এনে কালিয়াতে যোগদান করেছে। নড়াইলে আসার ব্যাপারে এখনো আমাদের কাছে কোন আদেশ আসেনি। জেলা রেজিষ্টার অফিস তার ব্যাপারে সতর্ক আছে বলে তিনি জানান।
তিনি আরো বলেন, তরিকুলকে বদলী না করার জন্য স্থানীয় সংসদ সদস্য লিখিত সুপারিশ রয়েছে।
অভিযুক্ত তরিকুলের কাছে অভিযোগ বিষয়ে জানার জন্য ০১৮৪৩৩৮৪২০৫ এই নম্বরে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও রিসিভ করেননি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here