নড়াইলে খাল খননে ১৫ গ্রামের কৃষকের মুখে হাঁসি

0
386

নড়াইল প্রতিনিধিঃ
নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার নোয়াগ্রাম এলাকায় সমতল ভূমিতে খাল খনন করায় ৫টি ইউনিয়নের ১৫ গ্রামের ২০ হাজার কৃষকের মুখে হাঁসি ফুটেছে। গভীর নলকূপের ওপর নির্ভরশীলতা কমেছে। ধান ও সবজি উৎপাদন এবং পাট জাগ দেয়াসহ বিভিন্ন ফসলের ক্ষেত্রে এ খালের পানি ব্যবহার করা হচ্ছে। এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবির প্রেক্ষিতে খালটি খনন করা হয়েছে।
খাল খননের ফলে ১৫ গ্রামের ৫টি ইউনিয়নের প্রায় ১২ কিলোমিটার বিলের কৃষি জমিতে সেচ এবং পানি নিষ্কাশন সুবিধা পাবেন এ অঞ্চলের কৃষকেরা।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, চলতি অর্থবছরে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে লোহাগড়ার নোয়াগ্রাম ইউনিয়নের শামুখোলা-সুলটিয়া খাল প্রায় ২৮ লাখ টাকা ব্যয়ে খনন করা হয়েছে। খালের দৈর্ঘ্য প্রায় ৩ কিলোমিটার, প্রস্থ ৬০ ফুট ও গভীরতা ১২ ফুট। কাজটি মে মাসের প্রথম দিকে শুরু হয়ে ২০ জুনের মধ্যে শেষ হয়েছে। খালটি নবগঙ্গা নদীর ধোপাদাহ এলাকায় মিলিত হয়েছে। বর্তমানে খালের নামকরণ করা হয়েছে ‘দোদাঁড়িয়া খাল’।
নোয়াগ্রামের সৈয়দ নরুল আজম বাবু জানান, এলাকাবাসী স্বেচ্ছায় জমিদানের মধ্যদিয়ে দোদঁড়িয়া খাল খনন করা হয়েছে। এতে এ অঞ্চলের হাজারো কৃষক উপকৃত হবেন।
একই এলাকার ইমরান হাসান বলেন, এতদিন এলাকার কৃষকেরা গভীর নলকূল থেকে পানি উত্তোলন করে ফসল ফলাতো, এতে উৎপাদন খরচ বেশি হতো। খরা মৌসুমে সেচপাম্পে প্রয়োজন মতো পানি না পাওয়ায় অনেক জমি অনাবাদি পড়ে থাকতো। এখন খালে পানি পাওয়ার সেচ সমস্যার সমাধান হয়েছে।
শুলটিয়া গ্রামের খায়রুজ্জামান প্রিন্স বলেন, খাল খননের আগে প্রায় ২ কিলোমিটার দূরে গিয়ে পাট জাগ দিতে হয়েছে, এতে ফসলের উৎপাদন খরচ বেড়ে যাওয়াসহ সময়ের অপচয় হতো। এ বছর আমরা এই খালে সহজে পাট জাগ দিতে পারব।
নোয়াগ্রামের আসমা বেগম বলেন, বাড়ির পাশে খাল খনন করায় পানির কষ্ট দূর হয়েছে। গৃহস্থালির কাজের পাশাপাশি হাঁস পালনে সুবিধা হয়েছে।
লোহাগড়া উপজেলা চেয়ারম্যান সৈয়দ ফয়জুল আমির লিটু বলেন, এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি প্রেক্ষিতে এ খালটি খনন করা হয়েছে। খালটির এক প্রান্ত নবগঙ্গা নদীর সাথে মিলিত হয়েছে। অপর প্রান্ত মানিকগঞ্জ বাজার এলাকায় ২কিলোমিটার খাল খনন হলে মধুমতি নদীর সাথে মিলিত হবে। এই খালে দুই নদী পানি মিলিত হবে। এতে কৃষি জমিতে পলি মাটি পড়বে এবং জমির উর্বরতা বৃদ্ধি পাবে ফলে এলাকায় কৃষি বিপ্লব ঘটবে।
তিনি বলেন, বর্তমান সরকার নদী ও খাল খনন করে নদীপথ প্রসস্ত করে চলাচলের উপযোগী করছে। পাশাপাশি খাল খনন করে সে পানি ব্যবহার করে মাঠের কৃষি জমিতে আরো বেশি ফসল উৎপাদন হবে এবং বিলের জলাবদ্ধতা নিরসন হবে এই খাল খননের জন্য।
কৃষির উন্নয়নে এলাকায় আরও খাল খনন করা প্রয়োজন বলে মনে করেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ ফয়জুল আমির লিটু।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here