নড়াইলে জুতা ব্যবসায়ী হত্যার বিচারের দাবীতে রাস্তায় বিক্ষোভে পরিবার ও স্বজনেরা

0
200

নড়াইল প্রতিনিধি : মসজিদ কমিটির সভাপতি পরিবর্তনকে কেন্দ্র করে নড়াইলের কালিয়ায় জুতা ব্যবসায়ী কামরুল শেখ হত্যার বিচারের দাবীতে বিক্ষোভ করেছে পরিবার-স্বজন ও এলাকাবাসী। শুক্রবার (১৫ জুলাই) কালিয়ার চাচুড়ি বাজারের রাস্তায় বিক্ষোভ ও মানববন্ধন হয়েছে।

সকাল ১০টায় শুরু হওয়া ঘন্টাব্যাপী চলা বিক্ষোভ মিছিল চাচুড়ি বাজার প্রদক্ষিণ করে। এর আগে রাস্তার দুইপাশে হাজারো মানুষ দাড়িয়ে মানববন্ধন করে। এ সময় স্বামী হত্যার বিচার চেয়ে কথা বলেন নিহত কামরুলের স্ত্রী রহিমা বেগম, আহত জাকিরের মেয়ে বন্যা, সাবেক ইউপি মেম্বার কোবাদ মোল্যা,বাজারের ব্যাবসায়ী মুন্সি লুৎফার রহমান,পুরুলিয়া ইউনিয়নের সাবেক মেম্বার বিল্লাল হোসেন ও মসজিদ কমিটির সভাপতি মোস্তাক আহমেদ কিসলু পুরুলিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আমিরুল ইসলাম মনি।

বক্তরা এসময় হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেফতার ও বিচারের আওতায় আনার জোর দাবী জানান।

গত ৩০জুন ভোরে পুরুলিয়া গ্রামে প্রতিপক্ষের হাতে নির্মমভাবে নিহত হন কামরুল শেখ (৪০)। এসময় কামরুলের বড় ভাই জাকিরের বাম পা বিচ্ছিন্ন করা সহ আরো ৫ জনকে কুপিয়ে গুরুতর আহত করা হয়।

কামরুল পুরুলিয়া গ্রামের মৃত রশিদ শেখের ছেলে। স্থানীয় চাচুড়ি বাজারে সে জুতার ব্যাবসা করতো।

এ ঘটনায় কামরুলের ভাই অহত জাকির বাদী হয়ে ৩১ জনের নামে কালিয়া থানায় মামলা করে ৩ জুলাই। মামলার ৪ জন আসামী গ্রেফতারার হলেও হত্যায় জড়িত প্রধান আসামীদের গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

জানা যায়, পুরুলিয়া পূর্বপাড়া জামে মসজিদের সভাপতি শাহাদত সর্দার কে পরিবর্তন করে মোস্তাক আহমেদ কিসলুকে সভাপতি করে মুসল্লিরা। নতুন সভাপতিকে হিসাব বুঝে দিতে অস্বীকৃতি জানান সাবেক সভাপতি শাহাদত সর্দার। এ দিনে শুক্রবার (২৪জুন) জুম্মার নামাজের পর শাহাদত সর্দঅরের পক্ষের সবুর শেখ এবং প্রতিপক্ষের নয়ন সরদারের সমর্থকদের মধ্যে উত্তেজনা বাড়তে থাকে।

গত ৩০জুন সকালে ফজরের নামাজের পর নয়ন সরদারের সমর্থকরা সবুর শেখ সহ তার পরিবারের উপর হামলা চালায়। কামরুলের ঘরে ডুকে ঘুমন্ত অবস্থায় তাকে কুপিয়ে হত্যা করে। কামরুলের দুই ভাই জাকির শেখ ও ইমরুল শেখ, চাচাতো ভাই মানসুর শেখ, মঞ্জুর শেখ ও সবুর শেখ কে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে।#