নড়াইলে হ্যান্ডকাপসহ হত্যা মামলার আসামির পলায়ন!

0
557

নড়াইল প্রতিনিধি
নড়াইলের কালিয়ায় পুলিশের হাত থেকে হ্যান্ডকাপ পরা অবস্থায় সুমন মুন্সী নামের এক হত্যা মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি পালিয়ে গেছে। শুক্রবার (১৪ জুলাই) রাত আটটার দিকে উপজেলার চাঁচুড়ী বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। শুক্রবার গভীর রাত পর্যন্ত বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়েও সুমনকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

বনগ্রামের মোঃ মুজিবুর রহমান সেখ হত্যা মামলা সুমনের বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট রয়েছে। যার দায়রা মামলা নং-৭/১১। বর্তমান মামলাটি বিচারাধীন রয়েছে। এছাড়া সুমন এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। সে বনগ্রামের রেজাউল করিম মুন্সীর ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার পুরুলিয়া এলাকার থেকে আটককৃত সুমন মুন্সীকে এসআই আতিক মোটর বাইকে করে কালিয়া থানায় নেওয়ার পথে চাঁচুড়ী বাজার সংলগ্ন খেলার মাঠের উত্তর পাশে অবস্থিত মিল্টন মোল্যার মুদি দোকানের নিকট পৌঁছানো মাত্র নড়াইল গামী একটি যাত্রীবাহী বাস অতিক্রম করার সময় বাইকটির গতি কমানোর কারণে সুমন লাফ দিয়ে ও পুলিশকে শারীরিক ভাবে আঘাত করে হ্যান্ডকাপসহ পালিয়ে যায় বলে প্রতক্ষদর্শীদের অভিযোগ। এ ব্যাপারে প্রত্যক্ষদর্শী আঃ হাই মোল্যা (০১৯৩৬০২৮১৩১) জানান, ‘আমরা কয়েকজন ঘটনাস্থলের পাশে বসে ছিলাম। এমন সময় মোটর সাইকেলের পেছনে বসা এক আসামী পুলিশের কাছ থেকে হ্যান্ডকাপসহ হাত উচু করে দৌঁড়ে পূর্বদিকে পালিয়ে যান। এ সময় পুলিশ তার পেছনে পেছনে ধর ধর করে দোঁড়ালেও আটক করতে পারেনি।’ অপর প্রত্যক্ষদর্শী চাঁচুড়ী বাজারের প্রহরী সজল বলেন, ‘শুক্রবার রাত আটটার পর সুমন মুন্সী নামে এক আসামী হ্যান্ডকাপ পরা অবস্থায় পুলিশের হাত থেকে পালিয়ে গেছে। এরপর কালিয়া থানার দুই এসআই আতিক ও অখিল রায় এলাকায় অনেক খোঁজাখুজির পরও আর আটক করতে পারেনি।’

পুলিশ জানায়, এলাকার আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ২০০৯ সালের জুনে মোঃ মুজিবুর রহমান সেখকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে জখম করে সুমন মুন্সীসহ একদল দুর্বৃত্ত। এরপর ২০০৯ সালের ২৯ জুলাই যশোর কুইন্স হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। এ ঘটনায় সুমন মুন্সী ও তার বাবাসহ ১০ জনকে আসামি করে কালিয়া থানায় মামলা দায়ের করে। ওই মামলায় গত প্রায় ৬ মাস আগে আদালত সুমনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোওয়ানা জারি করলেও পুলিশ আটক করতে পারেনি।
এ প্রসঙ্গে কালিয়া থানার এসআই আতিকুজ্জামান সুমনকে গ্রেফতারের সত্যতা অস্বীকার করে বলেন, ‘তিনিসহ সংগীয় পুলিশ সুমনকে গ্রেফতারের জন্য তাড়া করে ছিলেন। কিন্তু গ্রেফতার করতে পারেনি। রাতের অন্ধকারে সে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়’।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here