নয়টি নদীর পানি বিপৎসীমার ওপরে, বাড়বে আরও

0
302

নিজস্ব প্রতিবেদক: রংপুরে তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় গঙ্গাচড়ায় আলমবিদিতর ইউনিয়নের পাইকান জুম্মাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টির কাছাকাছি পানি চলে এসেছে। বর্ষাকালের মধ্যবর্তী এই সময়ে দেশজুড়ে প্রচণ্ড দাপট দেখাচ্ছে বৃষ্টি। মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে বৃষ্টি ও উজান থেকে আসা ঢলের কারণে দেশের নদ-নদীগুলোর পানি বেড়েই চলেছে। আজ মঙ্গলবার সকালে ব্রহ্মপুত্র-যমুনা, তিস্তাসহ দেশের নয়টি নদ-নদীর পানি বিপৎসীমার ওপরে রয়েছে।

বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের পূর্বাভাস থেকে জানা গেছে, আজ সকাল নয়টায় ধরলা নদী কুড়িগ্রামে ১৫, তিস্তার ডালিয়ায় ১৪, গাইবান্ধায় ঘাঘট নদ ২৭, চিলমারিতে ব্রহ্মপুত্রের পানি বিপৎসীমার ২৩ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

যমুনা নদীর পানি বাহাদুরাবাদে ৬৪, সারিয়াকান্দিতে ৪০, কাজীপুরে ৪২, সিরাজগঞ্জে ৪৫ সেন্টিমিটার, এলাসিনে ধলেশ্বরীর পানি ২৫ সেন্টিমিটার ওপরে ছিল। এ ছাড়া কানাইঘাটে সুরমা ৫৯, কুশিয়ারার পানি অমলশীদে ৬৩ ও শেওলায় ৬২ মিলিমিটার ওপর দিয়ে বয়ে চলছিল। জারিয়াজঞ্জাইলে কংস নদীর পানি ছিল বিপৎসীমার ৩১ সেন্টিমিটার ওপরে।

পদ্মা, যমুনা ও ব্রহ্মপুত্রের পানি আরও ৪৮ ঘণ্টা এবং সুরমা, কুশিয়ারার পানি ২৪ ঘণ্টা বৃদ্ধি পেতে পারে।

এদিকে বৃষ্টির এই ধারা আরও তিন দিন থাকতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। মঙ্গলবারের আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, মৌসুমি বায়ুর বলয় পাঞ্জাব, হরিয়ানা, উত্তর প্রদেশ, বিহার, পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চল হয়ে উত্তর-পূর্ব দিকে আসাম পর্যন্ত বিস্তৃত। এর একটি বর্ধিতাংশ উত্তর বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশের ওপর মোটামুটি ও উত্তর বঙ্গোপসাগরে মাঝারি অবস্থায় সক্রিয় রয়েছে। এর ফলে সারা দেশে হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি হতে পারে।

আজ দুপুর ১২টা পর্যন্ত দেশের প্রায় সব অঞ্চলেই বৃষ্টি হয়েছে। তবে সবচেয়ে বেশি বৃষ্টি হয়েছে ডিমলায় ৬৬ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। বেলা তিনটা পর্যন্ত রাজধানী ঢাকায় বৃষ্টির পরিমাণ ছিল ৪৩ মিলিমিটার।

প্রতিবেশী ভারতের উত্তর-পূর্বের আসাম, মেঘালয়, মণিপুর, অরুণাচল প্রদেশ, সিকিম, ত্রিপুরা, মিজোরাম, উত্তর প্রদেশ, বিহার, হিমাচল প্রদেশ, ছত্তিশগড়সহ বেশ কয়েকটি রাজ্যে ভারী বৃষ্টি হচ্ছে। ভারতের আবহাওয়া অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, এসব রাজ্যে ১৩ জুলাই পর্যন্ত প্রচণ্ড ভারী বৃষ্টি হতে পারে। এরপর ১৪ জুলাই থেকে ভারতের গুজরাট, গোয়া, পূর্ব রাজস্থানে বৃষ্টির পরিমাণ বাড়তে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here