পটুয়াখালী থেকে ৫১৯ জেলেসহ ৩২ ভারতীয় মাছ ধরার ট্রলার আটক

0
118

পটুয়াখালী প্রতিনিধি : পটুয়াখালীর কলাপাড়ার পায়রা বন্দর (রাবনাবাদ চ্যানেল) থেকে কোস্টগার্ড সদস্যরা ৫১৯ জেলেসহ ৩২ ভারতীয় মাছ ধরার ট্রলার উদ্ধার করে নিরাপত্তা হেফাজতে রেখেছে। ভারতীয় পতাকা বহনকারী প্রত্যেকটি ট্রলারে ১৫-১৮ জন জেলে রয়েছে। এদের বাড়ি ভারতের দক্ষিন চব্বিশ পরগনার বিভিন্ন এলাকায় বলে জানা গেছে।

বাংলাদেশের সমুদ্রে ২০ মে থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত সব ধরনের মাছ ধরায় নিষেধাজ্ঞা জারি রয়েছে। বৈরী আবহাওয়ায় সাগর উত্তাল থাকায় রোববার দুপুর ১টার দিকে মাছ ধরা অবস্থায় বাংলাদেশ জলসীমায় প্রবেশ করে রাবনাবাদ চ্যানেলে আশ্রয় নেয় বলে ভারতীয় জেলেরা দাবি করেন বলে জানিয়েছেন পায়রা বন্দর কোস্টগার্ড কর্তৃপক্ষ।

তবে স্থানীয় জেলেরা দাবি করেন, বাংলাদেশ জলসীমায় অনুপ্রবেশ করে মাছ শিকার করছিল এসব ট্রলারের জেলেরা। ঝড়ের কবলে পড়ে পায়রা বন্দর এলাকায় আশ্রয় নেয় তারা। প্রতিটি ট্রলারে মাছ রয়েছে। এসব জেলে এখন পায়রা সমুদ্র বন্দর এলাকার রাবনাবাদ চ্যানেলে কোস্টগার্ডের নিরাপত্তা হেফাজতে রয়েছে।

তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কোস্টগার্ডের একাধিক সূত্র জানায়, ওসব ট্রলারে প্রচুর পরিমাণ মাছ রয়েছে।

পায়রা বন্দর কোস্টগার্ড কন্টিনজেন্ট কমান্ডার মো. রেজাউল করিম জানান, ট্রলার এবং জেলেদের নাম তালিকাভুক্ত করা হচ্ছে, যেহেতু অনেকগুলো ট্রলার, বিষয়টি সময়সাপেক্ষ বলে তিনি উল্লেখ করেন। তবে ট্রলারগুলোতে কোনো অবৈধ জিনিস রয়েছে কি না তাও খতিয়ে দেখছে কোস্টগার্ড সদস্যরা।

এদিকে মহিপুর-আলীপুর মৎস্যবন্দর আড়তদার মালিক সমিতির সভাপতি আনসার উদ্দিন মোল্লা জানান, সমুদ্রে মাছ ধরায় নিষেধাজ্ঞা থাকায় বাংলাদেশি জেলেরা শিকার না করলেও থেমে নেই ভারতীয় জেলেদের মাছ ধরা।

তিনি আরো দাবি করেন, হঠাৎ এতগুলো ট্রলার পায়রা বন্দরে প্রবেশ করায় তাদের দীর্ঘদিনের অভিযোগের সত্যতা মিলেছে যে, ভারতীয় ট্রলার প্রতিদিন বাংলাদেশের জলসীমায় ঢুকে এমনিভাবে রুপালী ইলিশ শিকার করে বলে দাবি তাদের।

সমিতির পক্ষ থেকে আরো বলা হয়, বাংলাদেশি জেলেরা ভারতের জলসীমা লঙ্ঘন করলে মাসের পর মাস জেল খেটে দেশে ফিরতে হয়। অথচ ওদের জন্য আমাদের দেশে অবৈধ অনুপ্রবেশের কোনো শাস্তি নেই।

এ ছাড়া সমুদ্র পথে আন্তর্জাতিক পাচারকারী চক্র সক্রিয় থাকায় বিষয়টি তদন্তের প্রয়োজন বলে দাবি করেন মাছ ব্যবসায়ীরা।

কলাপাড়া সহকারী কমিশনার (ভূমি) অনুপ কুমার দাস জানান, জেলেরা ভারতের পশ্চিমবঙ্গের অধিবাসী এবং প্রত্যেকেই বাংলা ভাষায় কথা বলেন।

কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মুনিবর রহমান জানান, জেলেরা প্রতিকূল আবহাওয়ার কারণে বাংলাদেশি জলসীমায় নিরাপত্তার কারণে প্রবেশ করেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here