‘পণ্যমূল্য বাড়াবে নতুন ভ্যাট আইন’

0
298

ম্যাগপাই নিউজ ডেক্স : নতুন ভ্যাট আইন গরিবদেও জন্য নির্যাতনমূলক দাবি করে আগামী বাজেটে এই আইন কার্যকর না করতে দাবি জানিয়েছে ২৪টি সংগঠন। ১৫ শতাংশ হারে ভ্যাট কার্যকর হলে পণ্যমূল্য বেড়ে যাবে বলে দাবি করেছে তারা।

সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি জানানো হয়। ২৪টি এনজিওর পক্ষে এ সংবাদ সম্মেলন ডাকা হলেও অধিকাংশ সংগঠনের প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন না।

যেসব সংগঠনের পক্ষ থেকে এই সংবাদ সম্মেলন ডাকা হয় সেগুলো হলো: অনলাইন নলেজ সোসাইটি, অর্পণ, উদ্দীপন, উদয়ন বাংলাদেশ, উন্নয়ন ধারা ট্রাস্ট, এসডিও, কোস্ট ট্রাস্ট, জাতীয় কৃষাণী শ্রমিক সমিতি, জাতীয় শ্রমিক জোট, ডাক দিয়ে যাই, দ্বীপ উন্নয়ন সংস্থা, পিএসআই, বাংলাদেশ শ্রমিক ফেডারেশন, বাংলাদেশ কৃষক ফেডারেশন (জাই), বাংলাদেশ ভূমিহীন সমিতি, বাংলাদেশ কৃষি ফার্ম শ্রমিক ফেডারেশন, মুক্তির ডাক, লেবার রিসোর্স সেন্টার, সংগ্রাম, সিডিপি, হিউম্যঅনিটি ওয়াচ, সিনার্জি বাংলাদেশ, জ্ঞান অধ্যয়ন কেন্দ্র, ন্যাচার কেম্পেইন বাংলাদেশ এবং আলোক যাত্রা।

সংবাদ সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন ইক্যুইটিবিডির চিফ মডারেটর রেজাউল করিম চৌধুরী। উপস্থিত ছিলেন অ্যাকশন এইডের আব্দুল আলী সাব্বির, সিনার্জি বাংলাদেশের মনোয়ার মুক্ত কর এবং কৃষক ফেডারেশনের এএসএম বদরুল আলম।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়,  ‘আগামী ১ জুলাই থেকে নতুন মূল্য সংযোজন কর (মূসক) বা ভ্যাট আইন বাস্তবায়ন করা হবে। এতে ট্যারিফ লাইনের প্রায় ৭৫ শতাংশ পণ্যের আমদানি, উৎপাদন, সরবরাহ বা বিক্রিসহ সকল পর্যায়ে একক হার হিসেবে ১৫ শতাংশ মূসক আরোপিত হবে। ফলে চার হাজার ৮১৬ ধরনের পণ্যের ওপর ১৫ শতাংশ হারে মূসক বসবে। এতে দৈনন্দিন জীবনের প্রয়োজনীয় বহু জিনিসপত্র ও সেবায় ভোক্তা পর্যায়ে ব্যয় বেড়ে যাবে। দেশি ব্র্যান্ডের কাপড়চোপড়, ভোজ্যতেল, চিনি, সুপার শপ, নির্মাণসামগ্রীর মধ্যে রড, গ্যাস, বিদ্যুৎ বিল, সোনার গয়না ইত্যাদি ব্যয় বেড়ে যাবে।

সংবাদ সম্মেলনে এতে বলা হয়, নিত্যপ্রয়োজনীয় উপাদান গ্যাস-বিদ্যুতের ওপর বর্তমানে পাঁচ শতাংশ হারে মূসক আছে এবং নতুন আইনে সেটি ১৫ শতাংশ হলে সেটি ভোক্তা ও উৎপাদক পর্যায়ে বিরূপ প্রতিক্রিয়া হবে। এতে সীমিত আয়ের, বিশেষ করে নিম্ন মধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্ত পরিবারের সংসার খরচও বাড়বে।’

ভ্যাট আরোপের বিষয়টি ন্যায্যতার দৃষ্টিতে দেখার আহ্বান জানিয়ে সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ‘ধনীদের ভোগ্য পণ্যের উপর ক্রমবর্ধমান হারে ভ্যাট আরোপ করতে হবে এবং দরিদ্রদের ভোগ্য পণ্যের উপর কোন ভ্যাট আরোপ না করা উচিত।’

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) শর্ত মেনে নতুন এই মূসক আইন তৈরি করা হয়েছে দাবি করে সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ‘২০১২ সালে বাংলাদেশকে বর্ধিত ঋণ সহায়তার (ইসিএফ) প্রায় ১০০ কোটি ডলার অনুমোদন করে আইএমএফ। এই ঋণ পাওয়ার অন্যতম প্রধান শর্ত ছিল নতুন মূসক আইন করা।’

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, প্রত্যক্ষ কর আদায় বিশেষ করে বহুজাতিক কোম্পানি ও ধনী ব্যক্তিদের কাছ থেকে কর আদায় তুুলনামূলক কঠিন হওয়ায় অভ্যন্তরীণ রাজস্ব আহরণের সহজ হাতিয়ার হিসেবে প্রত্যক্ষ কর না বাড়িয়ে পরোক্ষ কর তথা ভ্যাটের হার এবং এর আওতা বাড়ানো হয়েছে। এতে সাধারণ মানুষের ওপর বোঝা বাড়বে এবং ধনী ও গরিবের মধ্যে আয় বৈষম্য আরো বৃদ্ধি পাবে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, দক্ষিণ এশিয়ায় অন্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশেই ভ্যাটের হার সবচেয়ে বেশি। ভারতে মূসক হার সাড়ে ১২%, নেপালে ১৩%, মালদ্বীপ ও ভুটানে মূসক না থাকলেও গুডস অ্যান্ড সার্ভিসেস ট্যাগ (জিএসটি) আছে। মালদ্বীপে সব ক্ষেত্রে ছয় শতাংশ এবং পর্যটন খাতে ১২% জিএসটি আরোপ হয়। বাংলাদেশের প্রতিযোগী অর্থনীতির দেশ ভিয়েতনাম, কম্বোডিয়া, ইন্দোনেশিয়া ও মিয়ানমারে মূসকের হার ১০%।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here