পথখাবারের মারাত্মক স্বাস্থ্য ঝুঁকি

0
319

পথখাবারের স্বাস্থ্যগত ঝুঁকি লইয়া সম্প্রতি গণমাধ্যমে বেশকিছু প্রতিবেদন প্রকাশিত হইয়াছে। খাইতে মুখরোচক মনে হইলেও মূলত এইসকল খাবারের মাধ্যমে শরীরে প্রবেশ করিতেছে নানা ধরনের রোগ-জীবাণু। অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে তৈরি ও পরিবেশিত হয় বলে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞগণও এইসকল খাবারকে জনস্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক হুমকি হিসাবে চিহ্নিত করিয়াছেন। একাধিক গবেষণায় দেখা গিয়াছে যে, এই ধরনের খাবার গ্রহণের ফলে ডায়রিয়া, আমাশয়, টাইফয়েড, আলসার, হূদরোগ ও হেপাটাইটিসসহ নানা ধরনের সংক্রামক ও জটিল রোগে আক্রান্ত হইবার ঝুঁকি অত্যন্ত প্রবল।

রাজধানী ঢাকাসহ সর্বত্রই নগরজীবনের অপরিহার্য অনুষঙ্গ এই পথখাবার। তুলনামূলকভাবে সস্তা হওয়ায় স্বল্প আয়ের মানুষই এইসকল খাবারের উপর বেশি নির্ভরশীল থাকেন। তবে স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া ছাত্র-ছাত্রীসহ সমাজের নানা স্তরের পেশাজীবী মানুষকেও নিয়মিত এই ধরনের খাবার গ্রহণ করিতে হয়। সাম্প্রতিক এক পরিসংখ্যান হইতে জানা যায়, দেশে প্রায় ১৩০ ধরনের পথখাবার রহিয়াছে, যাহার অধিকাংশই জনস্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। দেশের একমাত্র খাদ্য গবেষণা প্রতিষ্ঠান ন্যাশনাল ফুড সেফটি ল্যাবরেটরির (এনএফএসএল)-এর সম্পতি প্রকাশিত প্রতিবেদনেও এই সকল খাবারের উপাদানে কলিফর্ম, মাইকোটক্সিন, সিসা, সালমোনেল্লা ও ই-কোলাই-এর মতো বিষাক্ত জীবাণুর অস্তিত্ব পাওয়া গিয়াছে বলিয়া সতর্ক করা হইয়াছে। তবে শুধু রাস্তার পার্শ্বের খোলা খাবার শুধু নহে, সারা দেশের অধিকাংশ হোটেল-রেস্তোরাঁর জন্যও এই সতর্কতা সমভাবে প্রযোজ্য। অতিশয় উদ্বেগের বিষয় হইল, এই ধরনের অব্যাহত সতর্কতার পরও ভুক্তভোগী জনগণ কিংবা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কোনো প্রকার বোধোদয় পরিলক্ষিত হইতেছে না।

তবে ইহা ঠিক যে, রাজধানীর হোটেল রেস্তোরাঁগুলিতে মাঝে মধ্যেই ভ্রাম্যমাণ আদালতের তদারকি লক্ষ্য করা যায়। কিন্তু এই ক্ষেত্রে রাস্তার পার্শ্বের কিংবা ভ্রাম্যমাণ খাবারের দোকানগুলি একেবারেই নিয়ন্ত্রণহীন। অনতিবিলম্বে তাহাদেরকে সিটি কর্পোরেশন বা নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষসহ সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগের কঠোর তদারকির আওতায় আনা অপরিহার্য হইয়া পড়িয়াছে। পাশাপাশি ভোক্তাদেরও সচেতন হইতে হইবে। ইহার জন্য সরকারি উদ্যোগে প্রচারণারও প্রয়োজন রহিয়াছে বৈকি। তাহা ছাড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান-সংলগ্ন এলাকায় পথখাবার বিক্রেতাদের পরিচ্ছন্ন কিংবা স্বাস্থ্যসম্মত খাবার বিক্রি বাধ্যতামূলক করা প্রয়োজন। তবে শুধু সরকারের মুখাপেক্ষী না হইয়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলিকেও এই ব্যাপারে উদ্যোগী হইতে হইবে। বস্তুত ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়ের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধি পাইলেই কেবল পথখাবারের স্বাস্থ্যঝুঁকিকে কার্যকরভাবে কাটাইয়া ওঠা সম্ভব হইবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here