পদ্মাসেতু: চক্রান্তকারী খুঁজতে কমিশন না হওয়ায় হাইকোর্টের ক্ষোভ

0
262

নিজস্ব প্রতিবেদক: দুর্নীতির মিথ্যা অভিযোগ তুলে কারা পদ্মাসেতু প্রকল্প ঠেকিয়ে রাখার চেষ্টা করেছিল, তাদের খুঁজে বের করতে এখনও কমিশন না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছে হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ। দুই দফা তাগাদা দেয়ার পরও অগ্রগতি না দেখে সরকারকে ৩১ আগস্টের মধ্যে কমিটি অথবা কমিশন গঠনের নির্দেশও দেয়া হয়েছে।

বিচারপতি কাজী রেজা-উল হক ও বিচারপতি মোহাম্মদ উল্লাহর হাইকোর্ট বেঞ্চ বুধবার এ আদেশ দেয়। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল তাপস কুমার বিশ্বাস।

এর আগেও এই কমিটি বা কমিশন গঠনের কথা বলেও আদালত কোনো সময় বেঁধে দেয়নি। আদালত বলে, ‘ফেব্রুয়ারি মাসে অর্ডার হয়েছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত আপনাদের চিঠি চালাচালি শেষ হয় নাই।’

পদ্মা সেতু দুর্নীতি নিয়ে মিথ্যা গল্প সৃষ্টিকারী এবং প্রকৃত ষড়যন্ত্রকারীদের খুজে বের করতে তদন্ত কমিশন গঠন করতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে গত ১৫ ফেব্রুয়ারি রুল জারি করে হাইকোর্ট। দুই সপ্তাহের মধ্যে মন্ত্রী পরিষদ সচিব, আইন সচিব, স্বরাষ্ট্র সচিব, যোগাযোগ সচিব, আইজিপি এবং দুদকের চেয়ারম্যানকে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে। এছাড়া আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী এই তদন্ত কমিটি গঠনে কী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে তা ৩০ দিনের মধ্যে মন্ত্রিপরিষদ সচিবকে প্রতিবেদন আকারে দেওয়ার নির্দেশও দিয়েছিল আদালত।

২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বরের জাতীয় নির্বাচনের আগে দেয়া ইশহেতারে দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে রাজধানীর সড়ক যোগাযোগ সহজ করতে পদ্মায় সেতু নির্মাণের অঙ্গীকার করা হয়। এ লক্ষ্যে জাতিসংঘসহ বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক সংস্থার সঙ্গে চুক্তিও করা হয়। কিন্তু পরামর্শক নিয়োগে দুর্নীতি চেষ্টার অভিযোগ তুলে বিশ্বব্যাংক এই প্রকল্পে অর্থায়নে অনীহা জানায়।


এই ঘটনায় দেশ-বিদেশে তোলপাড় হয়। সরকার দুর্নীতি চেষ্টার অভিযোগ অস্বীকার করে একে চক্রান্ত দাবি করে। কিন্তু বিশ্বব্যাংক সেই সময়ের যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানাতে থাকে। এক পর্যায়ে ২০১০ সালে নিজেরা তদন্ত শুরু করে বিশ্বব্যাংক।

অভিযোগ সম্পর্কে নিজেদের তদন্তে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে তারা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে রয়্যাল কানাডিয়ান মাউন্টেড পুলিশকে (আরসিএমপি) অনুরোধ জানায়। ওই অনুরোধে ২০১১ সালের সেপ্টেম্বরে কানাডায় এসএনসি লাভালিনের কার্যালয়ে অভিযান চালিয়ে রমেশ শাহ ও সাবেক পরিচালক মোহাম্মদ ইসমাইলকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

পরে আদালত জানায়, বিশ্ব ব্যাংক চারজন বেনামী তথ্যদাতার বরাতে কানাডার আদালত আরসিএমপির কাছে অভিযোগ পাঠায়।

পরে ২০১২ সালের ৩০ জানুয়ারি গণমাধ্যমে এক বিবৃতিতে এই প্রকল্প থেকে সরে যাওয়ার কথা জানায় বিশ্বব্যাংক। পরে সরকার নিজ অর্থায়নে সেতুর কাজ এগিয়ে নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়। বর্তমানে এই সেতুর ৪০ শতাংশেরও বেশি কাজ শেষ হয়েছে। ২০১৮ সালের শেষ দিকে যান চলাচলের জন্য সেতুটি উন্মুক্ত করার কথা আছে।

সেতুর কাজ চলমান থাকা অবস্থাতেও দুর্নীতির অভিযোগ নিয়ে সরকারকে বেকায়দায় পড়তে হচ্ছিল। তবে গত ১০ ফেব্রুয়ারি কানাডার একটি গণমাধ্যমে বিশ্বব্যাংকের মামলার বিষয়ে সে দেশের আদালতের রায় প্রকাশ হয়। এতে পদ্মাসেতুকে দুর্নীতি চেষ্টার অভিযোগকে গালপপ্প বলেন বিচারক।

কানাডা আদালতের রায় প্রকাশের পর বাংলাদেশে সরকার আবারও পদ্মাসেতু প্রকল্পে দুর্নীতি চেষ্টার অভিযোগ তোলার পেছনে ষড়যন্ত্রের অভিযোগ আনে। গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. মুহম্মদ ইউনূসকে বয়সের কারণে সরে যেতে বলার কারণে বিশ্বব্যাংক এবং যুক্তরাষ্ট্র এই অভিযোগ তুলেছিল বলে জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ বেশ কয়েকজন মন্ত্রী। সে সময়ই এই চক্রান্তে বাংলাদেশের কারা কারা জড়িত, সে বিষয়ে কথা ‍উঠে।

এ নিয়ে যখন কথা হচ্ছিল, তখন ১৪ ফেব্রুয়ারি দৈনিক ইনকিলাব ‘ইউনূসের বিচার দাবি, বিশ্বব্যাংক ও টিআইবি’র ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে। এতে বলা হয়, ‘বিশ্বব্যাংকের পাশাপাশি দেশি-বিদেশি কিছু ব্যক্তিত্বের দৌড়ঝাঁপ, আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের ক্রিয়াকর্ম ও মিডিয়ার অতি উৎসাহ পদ্মা সেতু ইস্যুতে সরকারকে বিপাকে ফেলে দেয়। যা ছিল সরকারের জন্য চরম অবমাননাকর। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃঢ়তায় নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতুর কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে।’

প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘পদ্মাসেতু নির্মাণে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়ন থেকে সরে যাওয়ার কারণ পর্দার আড়ালে নোবেল বিজয়ী ড. মুহম্মদ ইউনূস কলকাঠি নাড়ছেন বলে মনে করে সরকার।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here