পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচল: সরকারি সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় হাইকোর্ট

0
9

নিজস্ব প্রতিবেদক : পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচলের নির্দেশনা চেয়ে দায়ের করা রিটের শুনানি দুই মাসের জন্য মুলতবি করেছেন হাইকোর্ট। বুধবার (২৫ জানুয়ারি) বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার ও অ্যাডভোকেট ইয়ারুল ইসলাম।

আইনজীবীরা জানান, পদ্মা সেতুর ওপর দিয়ে মোটরসাইকেল চলাচলে সরকার কী পদক্ষেপ নেয় তা দেখে দুই মাস পর আদেশ দেবেন হাইকোর্ট।

এর আগে পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধ করা সরকারের সিদ্ধান্তের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হয়। একইসঙ্গে রিটে পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচলের নির্দেশনা চাওয়া হয়। বাংলাদেশ রিপাবলিকান পার্টি নামে একটি সংগঠনের চেয়ারম্যান আবু হানিফ হৃদয় জনস্বার্থে এ রিট দায়ের করেন। রিটে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় সচিব এবং বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষসহ সংশ্লিষ্টদের বিবাদী করা হয়।

তবে হাইকোর্টের আরেকটি বেঞ্চ পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধ করার সরকারের সিদ্ধান্তের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করা রিট আবেদনটি উত্থাপিত হয়নি মর্মে খারিজ করেন। গত ১৫ জানুয়ারি বিচারপতি মো. খসরুজ্জামান ও বিচারপতি মো. ইকবাল কবীরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

পরে রিট আবেদনটি নতুন করে আরেকটি হাইকোর্ট বেঞ্চে শুনানির জন্য উপস্থাপন করা হয়।

প্রসঙ্গত, ২০২২ সালের ২৬ জুন সেতুতে যান চলাচলের প্রথম দিনেই মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা ঘটে। এতে হতাহতের ঘটনাও ঘটে। পরে ২০২২ সালের ২৬ জুন গৃহীত সিদ্ধান্ত অনুসারে পরদিন ২৭ জুন পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধ ঘোষণা করে সরকার। পুনরায় আদেশ না দেওয়া পর্যন্ত পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচল বন্ধ থাকবে বলে জানানো হয়।