পদ্মা সেতুর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রকারীদের খুঁজে বের করুন: হাইকোর্ট

0
681

নিজস্ব প্রতিবেদক : পদ্মা সেতু নির্মাণ চুক্তিতে দুর্নীতির গুজব ছড়িয়ে মিথ্যা গল্প সাজানো নেপথ্যের ষড়যন্ত্রকারীদের খুঁজে বের করার ব্যাপারে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।

পদ্মা সেতুর নকশা১৯৫৬ সালের অনুসন্ধান আইন অনুযায়ী কমিশন বা কমিটি গঠনে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না তা জানতে চেয়ে এই রুল জারি করেন হাইকোর্ট। ষড়যন্ত্রকারী এসব নেপথ্যের কুশীলবদের কেন বিচারের মুখোমুখি করা হবে না রুলে তাও জানতে চাওয়া হয়েছে।

বিচারপতি কাজী রেজা-উল হক ও বিচারপতি মোহাম্মদ উল্লাহ এর বেঞ্জ স্বপ্রণোদিত হয়ে এ রুল জারি করেন। আগামী ২০ মার্চ পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করা হয়েছে।

রুলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব, স্বরাষ্ট্র সচিব, আইন সচিব, যোগাযোগ সচিব, পুলিশের আইজি আর দুদক এর চেয়ারম্যানকে কমিশন গঠনে কী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে তা আগামী ৩০ দিনের মধ্যে তা জানানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

একটি জাতীয় দৈনিকে চলতি মাসে প্রকাশিত ‘ইউনূসের বিচার দাবি, ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান’ শীর্ষক প্রতিবেদনটি আদালত আমলে নিয়ে এ রুল জারি করেন।

সায়েন্স সিটি কলকাতা
Rate this post

1 / 3

কলকাতায় সায়েন্স সিটি 1996 সাল নাগাদ ধারণাতীত হয়েছিল এবং 1997 সালের মাঝামাঝি নাগাদ এটি সর্বসাধারণের জন্য সম্পূর্ণরূপে উন্মুক্ত করা হয়। 1993 সালের প্রাক্কালে স্পিলবার্গের সুপার-হিট চলচ্চিত্র জুরাসিক পার্ক, বিশেষ করে তরুণ প্রজন্মের মধ্যে বিজ্ঞানের বিস্ময়কর পুনর্নবীকরণের এক আগ্রহদীপ্ত আলোড়ন তৈরি করেছিল। 1996 সালে কলকাতায় একটি বিজ্ঞান কেন্দ্র খোলার ধারণা পূর্ণ বিকশিত হয়েছিল। একটি প্রতিষ্ঠান খোলার জন্য ইষৎ ধারণা বশবর্তী হতে থাকে, যা সর্বসাধারনের মধ্য বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সংস্কৃতির অন্তর্দৃষ্টিকে অগ্রসর করে তুলবে, অবশেষে সায়েন্স সিটি খোলার কাজ চরিতার্থতা লাভ করে।
অনেক সমারোহের মধ্যে দিয়ে সায়েন্স সিটি উন্মুক্ত করা হয়েছিল, সায়েন্স সিটি পরিদর্শনকারী সকলকে নিক্কো পার্কের জন্য ছাড় টিকিট প্রদান করা হয়েছিল এবং ভ্রমণার্থীদের এক জায়গা থেকে আরেক জায়গা নিয়ে যাওয়ার জন্য একটি বাসের বন্দোবস্তও করা হয়েছিল।
সায়েন্স সিটি দুটি ভাগে বিভক্ত আছে – বিজ্ঞান কেন্দ্র এবং কনভেনশন্ (সম্মেলন) কেন্দ্র। সায়েন্স সেন্টার বা বিজ্ঞান কেন্দ্রে সমস্ত মজার ও শিক্ষামূলক প্রদর্শনী ও নিদর্শন রয়েছে। কনভেনশন্ কেন্দ্র বা সম্মেলন কেন্দ্রটি জমায়েতের জন্য বিপূল পরিমাণ পূর্ণ সুসজ্জিত জায়গার সমন্বয়ে গঠিত। এখানে 20,000-এরও বেশি আসনবিশিষ্ট একটি মহান থিয়েটার বা নাট্যমঞ্চ রয়েছে, একটি মিনি অডিটোরিয়াম রয়েছে যেখানে প্রায় 400 জন ব্যাক্তি বসতে পারে এবং এগারোটি সভাগৃহ সহ একটি সেমিনার সভা গৃহ রয়েছে – যেগুলির ধারণ ক্ষমতা 15 থেকে 100 জন।
সায়েন্স সেন্টার (বিজ্ঞান কেন্দ্র)-টি আবার শৃঙ্খলাবদ্ধ বিভাগে বিভক্ত করা রয়েছে – স্পেস ওডিসি, ডায়নামোশেন, ইভোলিউশেন থিম পার্ক, মেরিটাইম সেন্টার ও সায়েন্স পার্ক। এই সমস্ত প্রতিটি বিভাগও আবার বিভিন্ন বিজ্ঞান চিত্র প্রদর্শনী, 3D প্রদর্শনী ও চলচ্চিত্র নাট্য অনুষ্ঠানস্থল। এই প্রদর্শনী ও নিদর্শনগুলি, বিদ্যালয়ের শিশুদের আগ্রহের মাত্রা এবং মনোযোগের বিস্তার লাভের কথা মাথা রেখেই নকশায়িত করা হয়েছে। তাই সাধারণত জাঁকজমকপূর্ণতা, যদি কোনওভাবে ভয়ানক বাতাবরণকে সাধারণভাবে সায়েন্স মিউজিয়ামে মধ্যে পরিব্যাপ্ত করা যায়, যা আনন্দের সাথে এই স্থান থেকে নিরুদ্দিষ্ট করা গেছে। এখানে দর্শকদের সবসময়ের জন্য প্রিয় কিছু আকর্ষণের মধ্যে রয়েছে স্পেস থিয়েটার, প্ল্যানেটেরিয়াম (তারামন্ডল), 3D ভিশন থিয়েটার এবং টাইম মেশিন্।
স্পেস থিয়েটারে একটি চমৎকার চলচ্চিত্র আন্টার্কটিকা আলোড়ন সৃষ্টি করেঃ একটি ভিন্ন প্রকৃতির একটি দু:সাহসিক অভিযানের মাধ্যমে পৃথিবীর শীতলতম অঞ্চলে ভূমি ও সমুদ্র জীবন কি রকম দেখতে লাগে তার দৃ্শ্য দেখায়। এরপর এখানে রয়েছে 3D থিয়েটার – যা দর্শক অতিথিদের মধ্যে বিস্ময়কর রূপে সাফল্যের আলোড়ন সৃষ্টি করে। টাইম মেশিন, একটি কৃত্রিম গমন যাত্রা যা দর্শকদের গ্রহের মধ্যে দিয়ে চলার এক প্রতীকি ছাপ প্রদান করে, যা আরেকটি অত্যাশ্চর্য্য আকর্ষণ।
যেহেতু এই স্থানটিে পরিবার ও শিশুদের কথা মাথায় রেখেই নির্মিত, সেইজন্য এখানে একটি বিশাল পিকনিক স্থল রয়েছে; যেখানে আপনি বাড়ি থেকে খাবার এনে আনন্দ উপভোগ করতে পারেন। যেহেতু পার্কিং অঞ্চলটিতে একসঙ্গে 1000-টিরও বেশি গাড়ি রাখার বন্দোবস্ত রয়েছে, সেহেতু গাড়ি পার্কিং-এর এখানে কোনও সমস্যা নেই।
সায়েন্স সিটি কোথায় অবস্থিত?
ঠিকানা :সায়েন্স সিটি, জে.বি.এস.হালডান এভিন্যিউ, কলকাতা – 700046.
দূরাভাষ (ফোন নং) : 033 – 22854343, 22851572, 22852607.
সায়েন্স সিটি কলকাতা মানচিত্র

পৌঁছানোর উপায়
বিমান মাধ্যমে : নিকটবর্তী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর হল নেতাজী সুভাষচন্দ্র বসু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর। এখান থেকে একজন ভ্রমণার্থীর ক্যাবের মাধ্যমে ভায়া ভি.আই.পি. রোড ও ই.এম.বাইপাস হয়ে সায়েন্স সিটিতে পৌঁছাতে প্রায় আধ ঘন্টা সময় লাগে।
রেল মাধ্যমে : হাওড়া রেলওয়ে স্টেশন থেকে একজন ভ্রমণার্থীর ভায়া 117-নং জাতীয় সড়ক হয়ে সায়েন্স সিটিতে পৌঁছাতে প্রায় আধ ঘন্টা সময় লাগে। এর মোট দূরত্ব হল 15.4 কিলোমিটার (প্রায় 9.6 মাইল)।
সায়েন্স সিটি কলকাতা পরিদর্শনের সেরা সময়
কলকাতা ও তার আশেপাশের দর্শনীয় আকর্ষণগুলি পরিদর্শনের সেরা সময় হল শীতকালের নভেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারি মাসের মধ্যে। মার্চ ও অক্টোবরের মাসগুলিত পরিভ্রমণের পরিকল্পনাও খুব একটা খারাপ হয় না। প্রখর গ্রীষ্মের সময়, প্রচন্ড তাপ ও আর্দ্রতার দরুণ, কলকাতা পরিভ্রমণ সাধরণভাবে এড়িয়ে চলাটাই বাঞ্চনীয়।
সায়েন্স সিটি কলকাতা দর্শনের সময়
রবিবার ও বেসরকারী ছুটির দিনগুলি সহ, সায়েন্স সিটি সপ্তাহের প্রতিদিনই সকাল 9:00-টা. থেকে রাত 9:00-টা. পর্যন্ত খোলা থাকে। সায়েন্স সিটি হোলির দিন বন্ধ থাকে।
সায়েন্স সিটি টিকিট
টিকিটের মূল্য ভিন্ন ভিন্ন ব্যাক্তিবিশেষের জন্য বিভিন্ন প্রকারের হয়। 20 বা তার বেশী জনের একটি সাংগঠনিক সমষ্টিকে, একজন ব্যাক্তির চেয়ে কম মূল্য দিতে হয়, বিদ্যালয় সমষ্টিকে আবার সাংগঠনিক সমষ্টির চেয়েও কম মূল্য দিতে হয় এবং সমিতির অধীনস্থ কোনও বিশেষাধিকার বিভাগকে 5/- টাকার একটি খুবই কম মূল্য প্রদান করতে হয়।
একজন ব্যাক্তির প্রবেশ মূল্য হল মাথা পিছু 40/- টাকা, অন্যদিকে সায়েন্স সিটির অভ্যন্তরীণ আকর্ষণগুলির টিকিট আলাদাভাবে কেনা প্রয়োজন। গড় হিসাবে, একজন ব্যাক্তি যিনি যেকোনও রাইড ও প্রদর্শনীগুলি উপভোগ করলে আশা করা যায়, আপনার প্রবেশমূল্য সহ মোটামুটি 250/- টাকা থেকে 300/- টাকার মধ্যে খরচ হতে পারে।
সায়েন্স সিটি কলকাতা সম্পর্কিত তথ্য
সায়েন্স সিটিতে ভারতের প্রথম বড় বিন্যাসের চলচ্চিত্র থিয়েটার আছে।
ভারতীয় উপমহাদেশের মধ্যে এটি বৃহত্তম বিজ্ঞান কেন্দ্র।
সায়েন্স সিটি কলকাতার উপর আরোও তথ্য
সায়েন্স সিটির স্থানাঙ্ক কি কি?
22.54 ডিগ্রী N, 88.39 ডিগ্রী E।
সায়েন্স সিটির নিকটবর্তী আকর্ষণগুলি কি কি?
নিক্কো পার্ক, বিড়লা মন্দির, ক্রাইস্ট কিং-এর গীর্জা, বিড়লা ইন্ডাস্ট্রিয়্যাল আ্যন্ড টেকনোলোজিক্যাল মিউজিয়াম, ব্যাসিলিকা ব্যান্ডেল মঠ, পার্ক শো হাউস সিনেমা।
– See more at: http://bengali.mapsofworld.com/travel/destinations/india/science-city-kolkata/#sthash.Nl1lWbHF.dpuf

আমার কলকাতা ভ্রমন – শামীম হাসান এর বাংলা ব্লগ
10 months agoby শামীম হাসান1,736 Views1 min read
সুপ্রিয় বন্ধুরা, আমি শামীম হাসান আবারো লিখতে বসলাম আমার কলকাতা ভ্রমনের অভিজ্ঞতা নিয়ে। এটাই আমার সর্ব প্রথম দেশের বাহিরে ঘুরতে যাওয়া। কৌতুহল বসত ইন্ডিয়ার ভিসাটা করেছিলাম। আজকের পোষ্টে আমি বিস্তারিত লিখার চেষ্ঠা করবো কিভাবে আপনি কলকাতা ঘুরে আসতে পারবেন। ছবিগুলো দিলাম আপনাদের সুবিধার জন্য। ফেসবুকে আমি http://facebook.com/shamimhsm

প্রথমেই বলে নেই আমি কলকাতা গিয়েছিলাম খুব গরম এর সময়। তাই অভিজ্ঞতা খুব বাজে। আমি গরম সহ্য করতে পারি কিন্তু কলকাতার এতো গরম সহ্য করতে পারি নাই। আমরা দুইজন একসাথে গিয়েছিলাম। আমার সফর সঙ্ঘী ছিলো আরিফ ভাই।চলুন শুরু করা যাক।

মৈত্রী পরিবহন
মৈত্রী পরিবহন
আমি সিদ্বান্ত নেই বাসে করে যাবো। যেহেতু বাংলাদেশে থেকে সরাসরি বাস যাওয়া আসা করে কলকাতায়। পাসপোর্টে “হরিদাসপুর” বর্ডার উল্লেখ করা ছিলো। তাই যশোর এর বেনাপোল বন্দর দিয়েই কলকাতা যাওয়ার সিদ্বান্ত নেই। ৬-৪-২০১৬ তারিখ কমলাপুর এর মৈত্রী বাস কাউন্টার থেকে কলকাতার করুনাময়ী, সল্টলেক যাওযার জন্য টিকিট কনফার্ম করি। যাত্রা ছিলো ১১ তারিখ রাতে। মূল্য ছিলো ১৩৫০ টাকা। যদিও অন্যান্য বাস থেকে এটার টিকিট এর মূল্য অনেক কম। সার্ভিস খারাপ নাহ। মোটামোটি যাওয়ার মতো। আবার শ্যামলী বিআরটিসি টিকেটের দাম ১৯৫০ টাকা। একই ধরনের বাস, একই ধরনের সার্ভিস। তেমন কোন তফাৎ নেই দুইটার মধ্যে। তাই বাসে যাওয়ার জন্য মৈত্রী ই ভালো।

যথারীতি ১১ তারিখ রাত ১০ টায় বাস ছেড়ে দিলো কলকাতার উদ্দেশ্যে। ভালোই লাগতেছিলো। এসি বাস। সরকারি সার্ভিস হিসাবে খারাপ নাহ। কোখাও কোন স্টপেজ দিলো নাহ। একদম সকাল ৫ টায় যশোর এর কোন একটা আনাড়ী এলাকায় বাস থামালো। ১০ মিনিটের বিরতি দিলো। কোন জরুরি কাজ থাকলে তা সেরে ফেলার জন্য। আবার বাস চলতে লাগলো।

বাস স্টপেজে খাবার দাবার
বাস স্টপেজে খাবার দাবার
সকাল ৯ টার দিকে বেনাপোল বন্দরে পৈাছালাম। প্রথম ভ্রমন হওয়ার কারনে কিছুই বুঝলাম না। দাড়িয়ে থাকলাম কিছুক্ষন। বাস থেকে নেমে বুঝলাম ইমিগ্রেশন ও কাষ্টমস করাতে হবে। পাসপোর্ট ও বাস কাউন্টার থেকে দেওয়া ২ টি ফরম পূরন করলাম। এবং সেগুলো নিয়ে লাইন ধরে ইমিগ্রিশন অফিসার এর হাতে দিলাম। তিনি আমাকে দেখে জিজ্ঞাসা করলো কি করেন? আমি বললাম স্টুডেন্ট। তিনি আমার একটা ছবি তুললো এবং একটা সিল মেরে দিলো। ব্যাস কাজ শেষ। বাংলাদেশ এর সীমানা পেরিয়ে ইন্ডিয়া চলে গেলাম হেটে হেটে।

বেনাপোল বর্ডার
বেনাপোল বর্ডার
ইন্ডিয়া যাওয়ার পর সর্বপ্রথম লাইন ধরে দুইজন পুুলিশ অফিসার পাসপোর্ট চেক করলো। আমাকে জিজ্ঞাসা করলো আমার কাছে ডলার আছে কিনা। আমি বললাম আছে। আসলে আমি ডলার নিতে ভুলে গেছিলাম। বললো ডলার দেখাও। আমি বললাম আমি আনতে ভুলে গেছি। অন্য একটা পুলিশ অফিসার কে ডেকে বললো তার সাথে যেতে। তিনি আমাকে আড়ালে নিয়ে সরাসরি বললো ৫০০ টাকা দে ? আমি ও দেওয়ার জন্য প্রস্তুত ছিলাম। সাথে সাথে পকেট থেকে বের করে দিয়ে দিলাম।

চেকিং শেষে আবার সিরিয়াল ধরলাম ইন্ডিয়ার ইমিগ্রেশন অফিসারের কাছে। তিনি পাসপোর্ট চেক করে একটা সীল মেরে দিলো। ব্যাস আমি এখন নিরাপদে ইন্ডিয়া ঘুরে বেড়াতে পারি। বাসে উঠলাম। বাস চলতে লাগলো। অবশেষে দুপুর ১ টায় বাস পোছালো করুনাময়ী আন্তর্জাতিক বাস ষ্টান্ড, সল্টলেক। সেখানে গিযেই আমি হতাশ। কলকাতার মুভিতে যেই কলকাতাকে দেখি বাস্তবে তার পুরু উল্টো। খুব বাজে অবস্থা পরিবেশের।

কলকাতার রাস্তা
কলকাতার রাস্তা
বাস থেকে নেমে ৪ জন মিলে ট্যাক্সি ভাড়া নিয়ে চলে গেলাম নিউ মার্কেট। কারন সেখানে তুলনামূলক কম ভাড়ায় রুম পাওয়া যায় ও ঘুরার অনেক যায়গা নিউ মার্কেটের কাছাকাছি। অনেক ঘুরে একটা রুম ম্যানেজ করলাম। Hotel Wellesley তে উঠলাম।

Hotel Wellesley
Hotel Wellesley
হোটেলটা বেশ ভালোই লেগেছিলো। ১৪০০ টাকায় ডাবল বেডের একটা রুম একদিনের জন্য নিয়ে নিলাম। গোসল করে ফ্রেশ হয়ে কলকাতার ভিক্টোরিয়াল মেমোরিয়াল দেখতে গেলাম।

ভিক্টোরিয়াল মেমোরিয়াল
ভিক্টোরিয়াল মেমোরিয়াল
বিকাল ৫ টা বেজে যাওয়ার ভেতরে মেমোরিয়ালের ভেতরে ঢুকতে পারি নাই। তাই পাশের যায়গাগুলো ঘুরে ‍ঘুরে দেখেছিলাম। চারপাশটা ভালোই লেগেছে। পোলাপাইনকে দেখলাম আড়ালে ভালোই প্রেম করছে। ?

ভিক্টোরিয়াল মেমোরিয়াল ঘুরার পর তার পাশেই বিশাল একটা মাঠে বসেছিলাম কিছুক্ষন। হঠাৎ মনে পরলো আইপিএল খেলা চলছে। ইডেন গার্ডেন তার পাশেই। ভাগ্যক্রমে তার পর দিন ছিলো কলকাতা নাইট রাইডার্স এর খেলা। ব্যাস হেটে হেটে ইডেন গার্ডেন গিয়ে ব্লাকে টিকেট কিনে ফেললাম। ৫০০ টাকার টিকিট ৬০০ টাকা নিয়েছিলো। যাই হোক, টিকিট কিনে হোটেলে ফিরলাম। হোটেলটা একটু দূরে ছিলো।

ইডেন গার্ডেন, কলকাতা
ইডেন গার্ডেন, কলকাতা
তাই পরদিন ঐ হোটেলটা ছেড়ে দিয়ে ইডেন গার্ডেন ্এর কাছাকাছি Hotel Biman এ উঠলাম। ঐ দিনই সাইন্স সিটি পুরুটা ঘুরে ঘুরে দেখলাম।

সাইন্স সিটি, কলকাতা
সাইন্স সিটি, কলকাতা
পরে আইস ক্যাটিং শপিং সেন্টার ঘুরে আসলাম। তারপর ইডেন গার্ডেন এ খেলা দেখলাম কলকাতা নাইট রাইডার্স/মুম্বাই ইডিয়ান্স এর।

ইডেন গার্ডেন কলকাতা, সাথে আরিফ ভাই
ইডেন গার্ডেন কলকাতা, সাথে আরিফ ভাই

পরদিন হোটেল ছেড়ে দীঘা যাওয়ার জন্য বাস ভাড়া করলাম। বাসে করে দীঘা সমুদ্র সৈকত দেখার জন্য নিউ দীঘা চলে গেলাম। সেখানে Hotel Tokyo তে উঠলাম। ফ্রেশ হয়ে সমুদ্র দেখার জন্য চলে গেলোম সমুদ্র। বাহ। অসহ্য গরমের কলকাতা এবার কিছুটা ভালো লাগা শুরু হয়েছে। সমদ্রে বেশ বাতাস। সমুদ্রের হেব্বি গর্জন। রুপচাদা মাছ খেলাম। গুল্লা খেলাম। ভালোই লেগেছে।

দীঘা সমুদ্র সৈকতে রুপচাদা
দীঘা সমুদ্র সৈকতে রুপচাদা
পরদিন ঘুম থেকে উঠে উরিষ্যা বর্ডারে গেলাম বাসে করে। সেখান থেকে রিক্সায় করে বীচে পোছালাম। তেমন কিছু দেখতে পাইনি। তাই সেখান থেকে আবার বাইকে করে তালসিড়ি বীচে গেলাম। মাঝখানে নৌকায় করে যেতে হয়। যােই হোক, তালসিড়ি বীচটা ভালোই।

তালসিড়ি বীচ এ
তালসিড়ি বীচ এ
মন্দ নয়। তার পর আরিফ ভাই বললো এখানে নাকি দুইটা মন্দির আছে। জাষ্ট দেখে আসা দরকার তাদের সংস্কৃতি বুঝার জন্য। সেখানকার বড় বড় দুইটা মন্দিরে গেলাম। যদিও ভেতরে যাই নি। পাশে দাড়িয়ে যে গন্ধ পেয়েছিলাম সেটা মনে হলে এখনো আমার বমি আসে। যাই হোক, তার পর দীঘার একটা পার্ক ভ্রমন করলাম। পুরুনো দীঘাও ভ্রমন করা হযেছে। তারপর হোটেলে ফিরলাম।

তালসিড়ি বীচ এ আমি ও আরিফ ভাই
তালসিড়ি বীচ এ আমি ও আরিফ ভাই
রাতে থেকে সকালে আবার কলকাতা ফিরলাম। এসে রবীন্দ্রনাথ এর বাড়ি দেখলাম। ভালোই লেগেছে। বড় বাজার আসলাম শপিং করার জন্য। একটা হোটেলে থাকলাম। আরিফ ভাই শপিং করলো। এদিকে আমি অস্থির হয়ে গেছি বাসায় ফিরার জন্য। কোলকাতা শহরে আমার মন টিকতেছিলো না। তাই আমি শ্যামলীর টিকেট কাটলাম। পরদিন নিকো পার্ক দেখলাম।

নিকো পার্ক, কলকাতা
নিকো পার্ক, কলকাতা
রাতে একটা হোটেলে থেকে পরদিন আরিফ ভাইও টিকিট কাটলো আমার অত্যাচারে। তিনি যদিও আরো কিছুদিন থাকতে চেয়েছিলো। যাই হোক, পরে একটা হোটেলে রাত কাটিয়ে ১৮ তারিখ সকাল ৬ টায় বাসে উঠেছিলাম।

শ্যামলী পরিবহন
শ্যামলী পরিবহন
শ্যামলী কাউন্টারের সাথে হোটেল
শ্যামলী কাউন্টারের সাথে হোটেল
আমি বেশি শপিং করিনাই। একেবারে হালকা শপিং। যাই হোক, বর্ডারে পৌছালাম। প্রথমে ইমিগ্রেশন ভালো মতোই শেষ হলো। তারপর নাকি আবার কিসের লাইন করলো।যাওয়া মাত্রই বললো খরচা দিন, খরচা দিন ? ১০০ টাকা দিয়ে দিলাম। ইন্ডিয়ার ঝামেলা শেষ।

বাংলাদেশে ঢুকার পর একটা পুলিশ বলে, ভাই আমাকে ১০০ টাকা দিন আমি সিল মেলে দিই। লাইন ফাইন লাগবে না ? আমি দিলাম। সিল ও মেরে এনে দিলো। ভালোই তো। আবার কাষ্টমস লাগবে। বলে আরো ১০০ দিন আমি পাস করিয়ে দেই। কোন চেক টেক হবে নাহ। আহা ভালোই তো। দিলাম। পাস করিয়ে দিলো। সব শেষে বলে ভাই ্আরো কিছু বকশিস দেন ? আমি হাসলাম। বললাম আর কত বকশিস চান রে ভাই। তিনিও হেসে দিলো। সব ঝামেলা শেষ। বাসে ্ওঠলাম। কিছুক্ষন পর আবার বিজিবি চেকিং। যাদের যাদের সন্দেহ হয় তাদের ব্যাগ খুলে চেক করে। কোন জিনিস ৭ টার বেশি আনলে জবাবদিহি করতে হয় এখানে।

দুপুর দুইটায় মাগুরা একটা বাস ষ্টপিজে থামালো। হোটেলে বেশ খাওয়া দাওয়া করলাম। মনে হচ্ছিলো ৭ দিন পর নিজের মায়ের হাতের রান্না খাচ্ছি। তারপর বাসে ওঠে সোজা কমলাপুর। থাগ লাইফ ?

সবশেষে আমি বলি কি, যদি সংস্কৃতি দেখার জন্য কলকাতা যান তবে ঠিক আছে। যদি ভালো লাগার জন্য যান তবে আমি বলবো বাংলাদেশটা আগে ঘুরে ঘুরে দেখুন। কলকাতা বাংলাদেশের থেকে জঘন্য। বাংলাদেশ অনেক সুন্দর একটা দেশ। সেটা কলকাতা গিয়ে অনুভব করেছি। সবচেয়ে বড় সমস্যা আমার যেটা হয়েছে সেটা হলো খাবার দাবারের। তাদের খাবারের গন্ধ আমি সহ্যই করতে পারি না। এক হোটেলে বললাম খাসি দিতে। দিলো পাঠা। সেই মাংসে কামড় দেওয়ার পর দুই দিন ‍শুধু জুস খেয়ে ছিলাম। উপায় ছিলো না ?

আমরা দুইজন যাওয়াতে অনেক টাকা সেভ হয়েছে। আমার খরচ হয়েছে মাত্র ১৮,০০০ বাংলাদেশি টাকা। আমরা বেশ হিসেব করে রুম ভাড়া নিয়েছি। তাই কম পড়েছে। আমরা ৭ দিন ছিলাম কলকাতা।

আমি গরমের কারনে দূরে কোথাও যাই নাই। নয়তো ভালো লাগলে কাশমির, দার্জির্লি অবশ্যই যাওয়ার ইচ্ছা ছিলো। সব মিলিয়ে ভ্রমন আমার মন মতো হয় নাই ফ্রান্স ?

কলকাতার যে সকল যায়গা ঘোরার মতো আছে এক নজরে তার লিষ্ট।

১। ভিক্টোরিয়াল মেমোরিয়াল
২। সাইন্স সিটি
৩। ইডেন গার্ডেন
৪।ইনডিয়ান মিউজিয়াম
৫। ইকো পার্ক
৬। নিকো পার্ক
৭। একুয়াটিকা ওয়াটার কিংডম
৮। দীঘা সমুদ্র সৈকত
৯। তালসিড়ি লাল কাকড়ার বীচ
১০। কবি রবীন্দ্রনাথ এর বাড়ি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here