‘পশ্চিমবঙ্গ বাংলাদেশের গেটওয়ে’

0
261

ম্যাগপাই নিউজ ডেস্ক : পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, বাংলা (পশ্চিমবঙ্গ) শুধুমাত্র বাংলার নয়, বাংলা গোটা দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার গেটওয়ে, বাংলাদেশেরও গেটওয়ে। তাই এই বাংলা থেকেই বাংলাদেশ, ভুটান, নেপালসহ অন্য দেশে শিল্প সম্প্রসারণের সুযোগ রয়েছে।

সোমবার কলকাতার কাছে নিউটাউনে হোরাসিস এশিয়া সম্মেলনে উপস্থিত থেকে বাংলাদেশ, নেপাল, ভুটান, মিয়ানমার, যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপ থেকে আগত ৩০০ জন বিদেশি শিল্পপতিদের সামনে বাংলায় বিনিয়োগের পক্ষে কথা বলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন ‘ভারতে আসতে গেলে বাংলাকে বাছতেই হবে’। এর কারণ হিসাবে মমতা বলেন, ‘কৌশলগত, ভৌগলিক গত, অর্থনৈতিক বা রাজনীতিগতভাবে পশ্চিমবঙ্গ অত্যন্ত নিরাপদ ও সুদৃঢ়। আমরা মনে করি যাত্রা যদি নিরাপদ হয় তবে যেকোন কিছুই নিরাপদ থাকে। বাংলা (পশ্চিমবঙ্গ) শুধু বাংলার নয়, বাংলা হল এশিয়া ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার প্রবেশ পথ (গেটওয়ে)। বাংলা হল বাংলাদেশের প্রবেশপথ। বাংলাদেশ আমাদের প্রতিবেশি বন্ধুত্বপূর্ণ দেশ এবং আমরা বাংলাদেশকে খুব ভালবাসি। বাংলা থেকে আপনারা বাংলাদেশে ব্যবসা বাড়াতে পারবেন, এই বাংলাকে কেন্দ্র করেই ভুটান, নেপাল, থাইল্যান্ড, কুয়ালামপুর, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, মিয়ানমারসহ অন্য দেশে এবং পূর্ব ভারতের রাজ্যগুলিতেও শিল্পের সম্প্রসারণ করা যাবে। এই দেশগুলি প্রত্যেকেই আমাদের খুব কাছের’।

এসময় মমতা স্মরণ করিয়ে দেন যে ‘কলকাতা থেকে বিমানে আড়াই ঘণ্টার পথ সিঙ্গাপুর, এখান থেকে বিমানে বাংলাদেশ মাত্র আধা ঘণ্টার পথ। ভুটান যেতেও মাত্র আধা ঘণ্টার সময় লাগে। বাংলাদেশ, নেপালের সঙ্গে আমাদের সীমান্ত রয়েছে। পাশাপাশি সড়কপথেও এই দেশগুলিতে যাতায়াত করা যায়। এমনকি চীন ও জাপানও খুব বেশি দূরে নয়। তাই আপনি যদি বাংলাকে বেছে নেন তবে এই প্রতিবেশি দেশগুলিতেও শিল্পের সম্প্রসারণ সম্ভব’।

মুখ্যমন্ত্রী বলেন তৃণমূল ক্ষমতায় আসে বামেদের ৩৪ বছরের শাসনকালে রাজ্যে বেশ কিছু সমস্যা ছিল। সে সময় রাজ্য সম্পর্কে ভাল ধারনা ছিল না। কিন্তু এখন অবস্থার পরিবর্তন হয়েছে। এখানে কোন শ্রম দিবস নষ্ট হয় না। আমরা কোন লকআউট বা হরতালকে অনুমতি দেই না। শিল্পপতি থেকে শুরু করে শ্রমিক, রাজ্যের মানুষ সবার সঙ্গেই এই সরকার ভাল সম্পর্ক বজায় রাখার চেষ্টা করে চলেছি। এ রাজ্যে শিল্প গড়ার নিজস্ব অবকাঠামো রয়েছে, আমরা অনেক সেতু, ফ্লাইওভার, বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র, স্বাস্থ্য পরিষেবা কেন্দ্র, শিক্ষা কেন্দ্র নির্মাণ করেছি। প্রতিবেশি দেশগুলির সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক রয়েছে।
‘ইজ অব ডুয়িং বিজনেস র‌্যাঙ্কিং’এ এরাজ্য গোটা ভারতে একটা সময় ত্রিশ নম্বরে ছিল কিন্তু এখন আমরা ৩ নম্বরে এসে গেছি। ৩৭২ টি প্যারামিটারের মধ্যে ৩৩৬ টি পূরণ করতে পেরেছি। বাকী ৩৬ টিও আগামী কয়েক মাসের মধ্যে পূরণ করতে পারবো।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here