পাইকগাছায় উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র চলছে ফার্মাসিস্ট ও পিয়ন দিয়ে : ভোগান্তিতে হতদরিদ্র মানুষ

0
75

বাবুল আক্তার, পাইকগাছা : পাইকগাছায় ১০টি ইউনিয়নে ৬টি উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রে বছরের পর বছর মেডিকেল অফিসার না থাকায় চিকিৎসা সেবার কাজ চলছে উপ-সহকারী, ফার্মাসিস্ট ও পিয়ন দিয়ে। ফলে স্বাস্থ্যসেবা থেকে বঞ্চিত এলাকার হতদরিদ্র মানুষ।
জানা যায়, পাইকগাছা উপজেলার ১০টি ইউনিয়নের মধ্যে ৫টি ইউনিয়নে ৬টি উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র। স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলো হলো, গদাইপুর উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র, যা পাইকগাছা পৌর সদরে অবস্থিত। এছাড়া রাড়–লী ইউনিয়নের বাঁকা বাজার ও কাটিপাড়া বাজার উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র, কপিলমুনির আগড়ঘাটা উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র, গড়ইখালী উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা যায়, প্রতিটি কেন্দ্রে একজন মেডিকেল অফিসার, একজন উপ-সহকারী মেডিকেল অফিসার, একজন ফার্মাসিস্ট ও একজন পিয়ন (এমএলএসএস) থাকার কথা থাকলেও এগুলো চলছে উপ-সহকারী, ফার্মাসিস্ট ও পিয়ন দিয়ে। এর মধ্যে গদাইপুর, আগড়ঘাটা ও গড়ইখালী উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র চলছে, একজন করে উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার দিয়ে। রাড়–লী ইউনিয়নের বাঁকা বাজার ও কাটিপাড়া বাজার কেন্দ্র চলছে একজন করে ফার্মাসিস্ট দিয়ে। এরমধ্যে বাঁকার ফার্মাসিস্ট থাকেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং চাঁদখালী উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র চলছে একজন পিয়ন দিয়ে। প্রতিটি স্বাস্থ্য কেন্দ্রে একজন মেডিকেল অফিসার সহ ৫জন কর্মকর্তা-কর্মচারী থাকার কথা থাকলেও আছে মাত্র একজন করে কর্মচারী। এক্ষেত্রে ৬টি স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ৬জন কর্মচারী চিকিৎসা সেবার দায়িত্ব পালন করছেন। ডাক্তারসহ জনবল সংকটের কারণে এলাকাবাসী স্ব-স্ব এলাকায় চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে বলে সরেজমিনে এমনটি দেখা যায়। ফার্মাসিস্ট ও পিয়নরা ডাক্তারের ভূমিকায় থাকায় অপচিকিৎসার ভয়ে এলাকাবাসীর অত্র সেবা কেন্দ্র থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে। এদিকে, অবকাঠামো দিক দিয়ে পাকা ও আধুনিকায়ন হলেও কেন্দ্রের চারিপাশ নোংরা ও স্যাঁতসাঁতে অবস্থা বিরাজ করে। এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ভারপ্রাপ্ত মেডিকেল অফিসার সুজন কুমার সরকার বলেন, জনবল সংকটের কারণে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here