পাইকগাছায় কপোতাক্ষ নদের তীব্র স্রোতে ২শ ফুট ভেড়িবাঁধ নদীগর্ভে

0
334

হাজারো বিঘা চিংড়ি ঘের, ফসলের ক্ষেত প্লাবিত হয়ে ব্যাপক ক্ষতি

বাবুল আক্তার : পাইকগাছায় পূর্ণিমার প্রভাবে কপোতাক্ষ নদের তীব্র স্রোতে ১৬ নং পোল্ডারে সদ্য মেরামত করা ভাঙ্গন কবলিত এলাকায় ২শ ফুট পানি উন্নয়ন বোর্ডের বেড়ি বাঁধ ভেঙ্গে জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হয়ে শত-শত বিঘার চিংড়ি ঘের, আমন ধানের ক্ষেত, রাস্তা-ঘাট, পোল্ট্রি ফার্ম তলিয়ে ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে। শনিবার দুপুরে বোয়ালিয়া হিতামপুরস্থ স্থানে বেড়ি বাঁধ ভেঙ্গে গেলে গদাইপুর ইউপি চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে স্থানীয়রা স্বেচ্ছা শ্রম দিয়ে ভাঙ্গনে মাটি ফেলে আটকানোর চেষ্ঠা করেও শেষ রক্ষা হয়নি বর্তমানে ভাঙ্গন ভয়াবহ আকারে রূপ নিয়েছে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ঘটাস্থল পরিদর্শন করলেও গতকাল পর্যন্ত বাঁধ মেরামত করার কোন পদক্ষেপ লক্ষ্য করা যায়নি বলে ক্ষতিগ্রস্থরা বিক্ষুব্দ হয়ে উঠেছেন। স্থানীয়রা এ ঘটনার জন্য পাউবো কর্মকর্তাদের দায়িত্বহীনতাকে দায়ী করেছেন। এদিকে, দ্রুত বাঁধ মেরামতের দাবী ও ভেড়িবাঁধের সংস্কার কাজের অনিয়ম-দূর্নীতির অভিযোগে সংশ্লিষ্ট শাখা কর্মকর্তা শহিদুল্লাহ মজুমদারের বিরুদ্ধে স্থানীয় সাংবাদিক আলাউদ্দীন রাজা গতকাল সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় সহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করেছেন। গতকাল সরেজমিনে গেলে, এলাকাবাসী দীর্ঘদিন ধরে এ পোল্ডারে ভাঙ্গনের ইতিহাস তুলে ধরে বলেন, সংশ্লিষ্ঠ পানি উন্নয়ন বোর্ড চলতি অর্থ বছরে ভাঙ্গন এলাকার লাখ লাখ টাকা ব্যয়ে দু’দফায় মেশিনে রাস্তার গোড়া থেকে মাটি কেটে অপরিকল্পিত ভাবে বেড়ি বাঁধের কাজ করায় এ ঘটনা ঘটেছে। গতকাল সকালে সরেজমিনে ভাঙন এলাকায় গেলে ক্ষতিগ্রস্থ চিংড়ি ঘের মালিক ও আমন চাষীরা জানিয়েছেন, এ ভাঙ্গনে ইতোমধ্যে বোয়ালিয়া থেকে আগড়ঘাটা পর্যন্ত ২হাজার একরের ৮০টি চিংড়ি ঘেরের লাখ লাখ টাকার মাছ ভেসে গেছে। শতশত বিঘা আমন ধানের ক্ষেত তলিয়ে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দা ও উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি সমীরণ সাধু জরুরী ভিত্তিতে বাঁধ মেরামতের দাবী জানিয়ে বলেন, গত ৩দিনে গোটা এলাকার ফসলাদি, মৎস্য সম্পদ, রাস্তা-ঘাট, পোল্ট্রি ফার্ম তলিয়ে ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে। স্থানীয়রা অভিযোগ করেন, সংশ্লিষ্ট পানি উন্নয়ন বোর্ডের শাখা কর্মকর্তা শহিদুল্লাহ মজুমদার দায়িত্ব জ্ঞানহীনতার কারণে তাদের এ দূরাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। এ অভিযোগ অস্বীকার করে শহিদুল্লাহ মজুমদার এ ভাঙ্গনের জন্য চিংড়ি ঘের মালিকদের দোষারোপ করে বলেন, ইতোমধ্যে এ ভাঙ্গন এলাকায় মোস্তাক এ- ব্রাদার্স নামে একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ৩ লাখ ৪৬ হাজার টাকা ব্যয়ে ৬০ মিটার বেড়িবাঁধের কাজ করলেও শেষ রক্ষা হয়নি। তিনি আরো জানান, মন্ত্রণালয়ের অর্থ বরাদ্দ না হওয়া পর্যন্ত বাঁধ মেরামত করা সম্ভব হবে না। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ফকরুল হাসান ভাঙ্গন এলাকা পরিদর্শনের কথা জানিয়ে এ প্রতিনিধিকে বলেন, এ মুহুর্তে উপজেলা পরিষদের পর্যাপ্ত অর্থ না থাকায় ভাঙ্গন প্রতিরোধের কোন ব্যবস্থা সম্ভব হচ্ছে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here