পাইকগাছায় খাস আদায়ের নামে চিংড়ি চাষীদের কাছে লাখ টাকা দাবী : ডালপালা ফেলে দখল চেষ্টার অভিযোগ

0
327

তদন্ত কমিটির রিপোর্ট আলোর মুখ দেখেনি

বাবুল আক্তার : পাইকগাছায় আদালতে মামলা ও উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা উপেক্ষা করে চিংড়ি ঘেরস্থ দখলভিত্তিক স্বত্ব অনুসরণ না করে গোপানীয়ভাবে খাস আদায়কারী নিয়োগের অভিযোগ উঠেছে। হিন্দু সম্প্রদায়ের চিংড়ি ঘেরস্থ ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান সংলগ্ন স্থানে বাসা বাড়ী ও ঘেরে ডালপালা দিয়ে দখল চেষ্টা সহ লাখ টাকা দাবীর অভিযোগ আদায়কারীদের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় প্রতিকার চেয়ে গতকাল ভূক্তভোগীরা উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি)’র দারস্থ হলে তিনি তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবেন বলে আশ^স্ত করেছেন। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার গড়ইখালী ইউপির নুরপুর আমিরপুর মৌজার কানাখালী গ্রাম এলাকায়।
সরেজমিনে তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, গড়ইখালী নুরপুর আমিরপুর মৌজার ১৫৪ নং তৌজির মধ্যে ১৪২৬, ১৪৩৫, ১৩৩৯ চিড়াভিজা খাল সহ বিভিন্ন দাগে ৩.১৮ একর খাস সম্পত্তির ১০টি চিংড়ি ঘেরের মধ্যে রয়েছে। জলমহলের কর্তৃত্ব নিয়ে ইতোমধ্যে স্থানীয় খোকন গাজী, যুবলীগনেতা মাসুম সানা ও স্থানীয় জমি ও ঘের মালিকদের মধ্যে দীর্ঘদিনের বিরোধের সূত্র ধরে আদালতে মামলার ঘটনা ঘটেছে। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, বিভিন্ন দাগের এ খাস জলমহলের জলমহলটি ১০টি মৎস্য ঘেরের ভিতর দিয়ে অবস্থান করায় জমি ও মৎস্য চাষীদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে কর্তৃপক্ষের নির্দেশে গড়ইখালী ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা দখলভিত্তিক হিসেবে গত ২২/০৫/২০১৪ তারিখে বাংলা ১৪২২ সাল খাস আদায়ে রাজস্ব আদায় করেন। কিন্তু অভিযোগ উঠেছে, পরবর্তীকালে তহশীলদার সিরাজুল ইসলাম যোগসাজসে অবৈধভাবে প্রতিপক্ষ খোকন গাজী গংদের অনুকুলে ভিত্তিহীন রিপোর্ট দিলে কানাখালীর অনিল মিস্ত্রী গংরা, খোকন গাজী ও তহশীলদারের বিরুদ্ধে গত ০১/১২/২০১৬ তারিখে পাইকগাছা সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে দেঃ ১৯৫/১৬ নং মামলা করলে আদালত বিবাদীদের বিরুদ্ধে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা দেন। এ সংক্রান্ত বিষয়ে বর্তমানে জেলা জজ আদালতে দেঃ মিস আপীল ১৭/১৭ মামলাটি চলমান রয়েছে এবং আগামী ১৬/০১/২০১৮ তারিখে দিন ধার্য্য রয়েছে। এদিকে মামলা চলা অবস্থায় রাজস্ব আদায়ের জন্য মামলার বাদীসহ স্থানীয় ভবতোষ মন্ডল, রশিদ সরদারদের আবেদনের প্রেক্ষিতে ০৫/০৪/২০১৭ তারিখে জেলা প্রশাসকের কাছে আবেদনের প্রেক্ষিতে ০৩/০৫/২০১৭ তারিখে জেলা জলমহল ব্যবস্থাপনা কমিটির সচিব ও রেভিনিউ ডেপুটি কালেক্টর এস,এম সাইফুর রহমান ১০৮৩ স্মারকে নীতিমালার আলোকে খাস আদায়ের জন্য পাইকগাছা সহকারী কমিশনার (ভূমি) কে নির্দেশ দিলেও তা কার্যকর হয়নি বলে স্থানীয়দের অভিযোগ। এ বিষয়ে ভূক্তভোগী জমি ও ক্ষুদ্র চিংড়ি চাষীদের মধ্যে অনীল কৃষ্ণ মিস্ত্রী, হরপ্রসাদ বাছাড়, বিকাশ বাছাড়, কালিপদ সরদার, দূর্গাপদ মিস্ত্রী একাধিক হিন্দু পরিবার অভিযোগ করেন, ইতোপূর্বে তাদের ঘেরভূক্ত চিড়াভিজানো খালসহ এ খাস খালের খাস আদায়ের কথা বলে খোকন গাজী, তার সহযোগী যুবলীগনেতা মাসুম সানা ২০১০ সাল থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত হাজার হাজার টাকা তাদেরকে ভয়-ভীতি দেখিয়ে উত্তোলন করেছেন। যা তাদের পিয়ন বুকে স্বাক্ষর রয়েছে এবং সর্বশেষ তারা খাস আদায়ের চিঠির কথা বলে তাদের দখলীয় চিংড়ি ঘেরে ডালপালা ফেলে হুমকি-ধামকি ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে বাসা বেঁধে দখল চেষ্টার পায়তারা করছে। ইতোপূর্বে খাস আদায়ের নামে অর্থ বাণিজ্যের অভিযোগ করলে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে ৪ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠণ করা হলেও তা আজও আলোর মুখ দেখেনি। এ বিষয়ে গতকাল ঘের মালিকদের মধ্যে ইউনিয়ন যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক মানবেন্দ্রনাথ, ভবরঞ্জন মন্ডল ও ভূক্তভোগীরা উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ আব্দুল আউয়ালের স্মরণাপন্ন হলে তিনি সংশ্লিষ্ট জলমহলের ফাইল পর্যালোচনা করে স্থানীয়দের আশ^স্ত করে বলেন, খাস আদায়কারীদের দ্বারা কেউ যাতে নির্যাতিত না হয় সে বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here