পাইকগাছায় দখলদারের ঘেরা-বেড়ার খোয়াড়ে কর্মকার পরিবার

0
255

এমপি, প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের শালিস উপেক্ষিত

পাইকগাছা প্রতিনিধি :পাইকগাছার উত্তর সলুয়ায় জামাতপন্থী এক দখলদারের অত্যাচারে জর্জরিত আন্না কর্মকারের পরিবারের লোকজন উদ্বেগ-উৎকন্ঠায় দিন কাটাচ্ছে বলে এমন খবর পাওয়া গেছে। কয়েকদিন পূর্বে দখলদার সাত্তার ফকিরের বিরুদ্ধে গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর সংখ্যালঘু এ পরিবারটির মধ্যে আরও ভিতি কাজ করছে। এ পরিবারের অভিযোগ সাত্তার এমপি, প্রশাসন, চেয়ারম্যান, মেম্বর ও গণ্যমান্য ব্যক্তির শালিস বা মীমাংসা কিছুই তোয়াক্কা করেন না। অভিযোগ উঠেছে সে দীর্ঘদিন ধরে ক্ষমতাসীনদের কোন না কোন নেতার ছত্রছায়ায় থেকে এ কাজ করে আসছে। জনপ্রতিনিধি ক্ষমতাসীনদের দলের অনেক কর্মীরা জানিয়েছেন, সাত্তার শালিস মানে কিন্তু তাল গাছটি সবসময় তার দখলে থাকবে এমন কথা জানিয়েছেন। সম্প্রতি, সরেজমিনে গেলে ভূক্তভোগী পরিবারটি গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে অত্যাচারের হাত থেকে রেহাই পেতে সহায়তার কথা জানিয়েছেন।
জানা গেছে, উপজেলার উত্তর সলুয়াতে মৃত বলাই কর্মকারের ছেলে অমল কর্মকার অভিযোগ করেছেন, সাত্তারের ঘেরা-বেড়ার খোয়াড়ে থেকে আমরা মানবেতর জীবন-যাপন করছি। প্রতিবাদ করলে ভয়াল মুর্তিতে সে, তার ছেলে, ভাইপো দা, লাটিশোটা নিয়ে তেড়ে আসে। ক্ষেতের ফসল, জ্বালানী কাঠ, প্রকাশ্যে নিয়ে যায়। বিগত দিনে সাত্তার মৃত বলাই কর্মকারের ছেলে শ্যামল ও বাসুদেব কর্মকারের নিকট থেকে দলিলমূলে উত্তর সলুয়া ভিটে বাড়ীর ৩৩৯ দাগ সহ নগর শ্রীরামপুর মৌজা থেকে ৪৩.৭৫ শতক সম্পত্তি ক্রয় করলে ভাগ বাটোয়ারা নিয়ে ওয়ারেশসহ সে বিরোধে জড়িয়ে পড়ে। অমল ও তার স্ত্রী আন্না কর্মকার অভিযোগ করেছেন, সাত্তার ভিটে বাড়ী থেকে প্রাপ্য সম্পত্তি থেকে বেশি সম্পত্তি গায়ের জোরে ঘেরা-বেড়া দিয়ে নিয়েছেন। এ নিয়ে প্রতিবাদ করলে তার ভাড়াটে লোকজন মারপিট করলে আন্না কর্মকারের মেরুদন্ডের হাড় মারাত্মকভাবে ক্ষতি হয়। যা বর্তমানে তিনি ভারতে চিকিৎসা নিচ্ছেন বলে জানিয়েছেন। এ বিষয়ে ইউনিয়ন আ’লীগের আহবায়ক শেখ বেনজির আহমেদ বাচ্চু, অসহায় এ পরিবারের উপর এ ধরণের নিপীড়ন নিঃসন্দেহে অন্যায় কাজ। সমাধানের জন্য তিনি প্রশাসন সহ সকলের সহায়তা কামনা করেছেন। স্থানীয় ইউপি সদস্য সফিকুল ইসলাম জানিয়েছেন, দু’পক্ষের বিরোধ নিয়ে ইতিমধ্যে ৫ বার স¤পত্তির পরিমাপ করে মীমাংসা করা হয়েছে। কিন্তু বেপরোয়া সাত্তার আইন-কানুন কিছুই মানে না বলে জানিয়েছেন। সাত্তার আমার লোক ছিল দাবী করে ইউনিয়ন আ’লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা ক্ষোভের সাথে বলেন, গত ইউপি নির্বাচনে সে আমার সাথে ছিল। কিন্তু বর্তমানে নেই। হিন্দু পরিবারের উপর অত্যাচার-নির্যাত ানের বর্ণনা দিয়ে আ’লীগের এ নেতা আরো জানান, মূলত হিন্দু পরিবারকে উচ্ছেদ করার জন্য জামাতপন্থী সাত্তার পরিকল্পিতভাবে এ সব ঘটনা ঘটাচ্ছেন বলে তিনি অভিযোগ করেন। আইনশৃংখলা কমিটির সভায় বিষয়টি উত্থাপনের কথা জানিয়ে হরিঢালী ইউপি চেয়ারম্যান আবু জাফর সিদ্দিকী রাজু জানান, এমপির নির্দেশনা পেয়ে দু’পক্ষের মধ্যে শালিস করা হয় এবং সাত্তার থানা থেকে মুচলেকা দিয়ে ছাড়া পান। কিন্তু অদৃশ্য কারণে এ পরিবারটির জমি ঘেরা-বেড়া দিয়ে রেখেছে। এ অভিযোগ অতি রঞ্জিত দাবী করে সাত্তার ফকির সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তার প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে জানিয়েছেন, গত ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যানের বিপক্ষে কাজ করায় তিনি আমার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে এবং আমাকে জামাত বানিয়ে ষড়যন্ত্র হচ্ছে বলে তিনি অভিযোগ করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here