পাইকগাছায় দ্বিতীয় দফায় এমপির দেয়া প্রাচীর গুড়িয়ে দেয়া হয়েছে : আজিজ পরিবার মুক্ত

0
324

বাবুল আক্তার, পাইকগাছা : পাইকগাছায় প্রথম দফার পর দ্বিতীয় দফায় সরকার দলীয় এমপি এ্যাডঃ শেখ মোঃ নুরুল হকের দখলীয় উচ্চ প্রাচীর বুলটেজর গুড়িয়ে দিয়ে অবরুদ্ধ আ’লীগনেতা আজিজ গোলদার পরিবারের উন্মুক্ত করে দিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফকরুল হাসান। তিনি রবিবার দুপুর সাড়ে ১২টায় প্রথম দফায় ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে প্রাচীর ভেঙ্গে দিয়ে যাতায়াতের পথ উন্মুক্ত হলে বন্দিদশা থেকে মুক্ত হয়ে আজিজ গোলদারের পরিবার সংশ্লিষ্ট প্রশাসন ও গণমাধ্যম কর্মীদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন। এরপর বিকাল সাড়ে ৪টায় ব্যাপক পুলিশী প্রহরায় দ্বিতীয় দফায় বুলটেজর দিয়ে দখলীয় প্রাচীর গুড়িয়ে দেন একই আদালত। গত ক’দিন ধরে গণমাধ্যমে ব্যাপক প্রচারের ফলে সরকারের শীর্ষ পর্যায়ে পৌছালে খোদ আ’লীগ ও প্রশাসন বিব্রতকর অবস্থায় পড়ে। সর্বশেষ শীর্ষ পর্যায়ের নির্দেশনা পেয়ে ইউএনও এ পদক্ষেপ নেন।


জানা যায় পাওয়ার অব এ্যাটর্ণী নিয়ে, ২০১৬ সালের ৩ জানুয়ারি সংসদ সদস্য এ্যাডঃ শেখ মোঃ নুরুল হকের পুত্র শেখ মনিরুল ইসলামের নেতৃত্বে পৌর আ’লীগের ৪নং ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আজিজ গোলদারের ৫০ বছরের দখলীয় ৫০ শতক বসত ভিটাসহ সম্পত্তি জবর-দখল করে নেয়। যার চারিপাশ দিয়ে নির্মাণ করে ১০ ফুট উচ্চ প্রাচীর। চারিদিক প্রাচীর দেওয়ায় আজিজ পরিবারটি অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে। এ ঘটনায় পাল্টাপাল্টি মামলা ও সংবাদ সম্মেলন হলেও কোন প্রতিকার মেলেনি। এ পরিবারটি যাতায়াতের জন্য বিকল্প পথ হিসেবে বেছে নেয় মই ও প্রাচীরের নিচ দিয়ে সুড়ঙ্গ পথ। জবর দখলের কারণে আজিজের পুত্র সাইফুল ইসলাম ৪ জানুয়ারি’১৬ পাইকগাছা থানায় এমপিপুত্র সহ ১৬ জনের নামে একটি মামলা করে। এর পূর্বে ৩ জানুয়ারি এমপির ভাতিজা আলাউদ্দীন বাদী হয়ে আব্দুল আজিজ সহ ১৬ জনের নামে থানায় চাঁদাবাজী মামলা করে। এ মামলায় পুলিশ আদালতে ফাইনাল রিপোর্ট দিয়েছে। এ ব্যাপারে আব্দুল আজিজ গোলদার জানান, তার দাদী স্থানীয় অজিত হালদার ও ঠাকুরদাসের কাছ থেকে ক্রয় করে ভোগ-দখল করে আসছে। যার যাবতীয় খাজনা দাখিলাসহ রেকর্ড রয়েছে। তবে সংসদ সদস্য এ্যাডঃ শেখ মোঃ নুরুল হক জানান, উক্ত সম্পত্তি দীর্ঘদিন ধরে আজিজ গোলদার জবর-দখল করায় জমির প্রকৃত মালিক অজিত হালদার ও ঠাকুরদাসের কাছ থেকে এমপি পুত্র মনিরুল ইসলামের নামে ৯ ডিসেম্বর’২০১৫ তারিখের ৩৪৬৬ নং দলিল মূলে পাওয়ার অব এ্যাটর্ণী করে দেয়। আজিজ পরিবারের কোন সম্পত্তি নেয়া হয়নি। এদিকে পাইকগাছা থানা সূত্রে জানা যায়, ১৭ মে’২০১২ তারিখের গেজেটে ২৩০১ নং খতিয়ানে সরল মৌজায় ২৩, ১৯ ও ২২ দাগে অমূল্য সরকারের ৫০ শতক সম্পত্তি ১/১ সরকারের অনুকূলে রেকর্ডভূক্ত হয়। এ সম্পত্তি কিভাবে পাওয়ার অব এ্যাটর্ণী হলো তা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। সম্প্রতি এ বিষয়টি বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রচার ও প্রকাশ পাওয়ায় ঘটনাটি চাঙ্গা হয়ে উঠেছে। এখন আজিজ পরিবারের লোকজন মামলা আতংকে রয়েছেন বলে জানিয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here